বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি নিয়ে কাঠচিত্র

কাপ্তাই প্রতিনিধি

সোমবার , ২০ আগস্ট, ২০১৮ at ৭:০৫ পূর্বাহ্ণ
32

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন সংস্থা বিভিন্নভাবে শোক দিবস পালন করে আসছে। তবে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করতে ভিন্ন ধরনের এক আয়োজন করে। বোর্ডের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর বিভিন্ন কার্যক্রম কাঠের উপর খোঁদাই করে তা প্রদর্শনের আয়োজন করা হয়। ১৯৪০ থেকে ১৯৭৫ এ দীর্ঘ সময় বঙ্গবন্ধুর যাবতীয় কার্যক্রম কাঠের উপর আকর্ষণীয় ভাবে খোঁদাই করা হয়। তা সাধারণ জনগণের প্রদর্শনের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা বলেন, আজ আমরা যে দেশে বসবাস করছি তা এনে দিয়েছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধুর ঋণ আমরা কখনো শোধ করতে পারবো না। তবে বঙ্গবন্ধুর কার্যক্রমগুলো যদি ভিন্ন আঙ্গিকে জনসম্মুক্ষে তুলে ধরা যায় তা হলে অসংখ্য মানুষ সেটি আগ্রহভরে প্রত্যক্ষ করবে। এ উদ্দেশ্যেই পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর সকল কার্যক্রম মূল্যবান সেগুন কাঠের উপর নিখুঁতভাবে খোদাই করে প্রদর্শন করা হয়। এই কাষ্ঠচিত্র প্রদর্শন উপভোগ করতে সমর্বস্তরের হাজার হাজার মানুষ পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সামনে ভিড় জমান বলেও তিনি জানান। সরেজমিন পরিদর্শন দেখা গেছেকাঠচিত্রে বঙ্গবন্ধু ছাড়াও বেগম ফজিলাতুন্নেছা, শেখ মনি, শেখ কামাল, শেখ রাসেল, শেখ হাসিনা, শেখা রেহানা, জয়, পুতুলসহ বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সকল সদস্যের প্রতিকৃতি কাঠ চিত্রে ঠাঁই পেয়েছে। এছাড়াও ১৯৫৩ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি মওলানা ভাসানীর সাথে প্রভাত ফেরিতে বঙ্গবন্ধু, ১৯৫৫ সালে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সাথে বঙ্গবন্ধু, ৫৬ সালে তৎকালীন চীনা কমিউনিস্ট পার্টির চেয়ারম্যান মাও সে তং এর সাথে বঙ্গবন্ধু, ৭১ সালে বঙ্গবন্ধু’র ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ, ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধির সাথে বঙ্গবন্ধু, কিউবার প্রেসিডেন্ট ফিদেল কাষ্ট্রোর সাথে বঙ্গবন্ধু, আবুধাবীতে সুলতান শেখ জায়েদ বিন আল নাহিয়ানের সাথে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি কাঠচিত্র প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান তরুণ কান্তি ঘোষ বলেন, বঙ্গবন্ধুকে স্মরণে রাখতেই তাঁর কার্যক্রম কাঠচিত্রে খোঁদাই করে রাখা হয়েছে। যেভাবে কাঠচিত্রগুলো তৈরি করা হয়েছে তা সহজে নষ্ট হবার নয়। যে কোন অনুষ্ঠানে এসব কাঠচিত্র প্রদর্শনের আয়োজন করা হলে সর্বস্তরের মানুষ এসব কাঠচিত্র থেকে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গবন্ধুর কাজ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন। যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে কাঠচিত্রগুলো তৈরি করেছেন তিনি তাদের সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

x