প্রিমিয়ার লিগে চট্টগ্রাম আবাহনীর শুভ সূচনা

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শুক্রবার , ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ at ৫:৫০ পূর্বাহ্ণ

এবারের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে নতুন স্বপ্ন দেখা চট্টগ্রাম আবাহনী তাদের যাত্রা শুরু করেছে জয় দিয়ে।
বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে তাদের ২-০ গোলে হারিয়ে দুর্দান্ত শুরু করেছে চট্টগ্রাম আবাহনী। প্রিমিয়ার ফুটবল লিগে অন্যতম শিরোপাপ্রত্যাশী দল চট্টগ্রাম আবাহনী। বৃহস্পতিবার লিগের শুরুটাও করলো তারা আশাজাগানিয়া। একসময়ের লিগ চ্যাম্পিয়ন শেখ জামালকে হারিয়ে শুভসূচনা হয়েছে মারুফুল হকের দলের। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ম্যাচের শুরুতে শেখ জামাল সুযোগ পেয়েও এগিয়ে যেতে পারেনি। দিদারুল আলমের জোরালো শট ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। এরপর থেকে চট্টগ্রাম আবাহনীর আধিপত্য। বিশেষ করে তাদের বিদেশি খেলোয়াড়েরা ম্যাচের চিত্র বদলে দেওয়ার চেষ্টা করেন। যদিও প্রথমার্ধে একের এক আক্রমণ করেও গোল পায়নি চট্টগ্রামের দলটি। ম্যাচের ১৭ মিনিটে মোনায়েম খান রাজুর কর্নারে উজবেক খেলোয়াড় পুলাতভ শুকুর আলির হেড ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। ২৬ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে রাকিব হোসেনের ক্রসে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার নিঙন গাইলহার্মে পা ছোঁয়াতে পারলে এগিয়ে যেতে পারতো আবাহনী। স্কোরলাইন গোলশূন্য রেখে বিরতিতে যায় দুই দল। বিরতির পর অবশ্য চট্টগ্রাম আবাহনীকে গোল পেতে বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি। ৫৫ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে রাকিব হোসেনের পাসে নাইজেরিয়ান চিনেদু ম্যাথিউ দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে দলকে এগিয়ে নেন ১-০। ১০ মিনিট পর দ্বিতীয় গোলের এসিস্ট এবার ম্যাথিউ নিজেই। তারই কাটব্যাক থেকে আইভরিয়ান চার্লস দিদিয়েরের প্লেসিংয়ে হয় ২-০। শেষ মিনিট পর্যন্ত আবাহনী এই স্কোরলাইন ধরে রেখে মাঠ ছাড়ে। শফিকুল ইসলাম মানিকের ছাত্ররা ফাঁকে-ফাঁকে আক্রমণ করার চেষ্টা করলেও সফল হতে পারেনি। প্রথম ম্যাচেই হার নিয়ে তাদের মাঠ ছাড়তে হয়েছে। ২০১৫ সালে সর্বশেষ ট্রফি জয়ের পর শেখ জামাল আর শিরোপা লক্ষ্যে দল গড়েনি। মাঝারিমানের দল করেই তারা অংশ নেয় ঘরোয়া ফুটবলে। তাই আস্তে আস্তে আলোচনা থেকে হারিয়ে যাচ্ছে চতুর্থ, সপ্তম ও অষ্টম আসরের প্রিমিয়ার লিগ জেতা দলটি। এবারও সেই ধারা ধরে দল গড়েছে তারা। শুরুটাও ভালো হলো না লিগে। শেখ জামাল ও চট্টগ্রাম আবাহনী দল হিসেবে যতটুকুই শক্তিশালী হোক- দুই দলের ডাগআউটে ছিল কিন্তু দেশের দুই অভিজ্ঞ কোচ। চট্টগ্রাম আবাহনীতে মারুফুল হক এবং শেখ জামালে সফিকুল ইসলাম মানিক। লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই মুখোমুখি হয়েছিলেন তারা। সে লড়াইয়ে শেষ হাসি মারুফুল হকের মুখে।
এদিকে উত্তর বারিধারার বিপক্ষে কষ্টের জয় দিয়ে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের মুকুট ধরে রাখার মিশন শুরু করেছে বসুন্ধরা কিংস। নীলফামারীর শেখ কামাল স্টেডিয়ামে বৃহস্পতিবার উত্তর বারিধারাকে ১-০ গোলে হারায় বসুন্ধরা। দলের হয়ে একমাত্র গোলটি করেন দেনিয়েল কলিনদ্রেস সোলেরা। সপ্তম মিনিটে সোলেরার শট পোস্টের ওপর দিয়ে যায়। প্রথমার্ধে বসুন্ধরার উল্লেখযোগ্য আক্রমণ ছিল এটিই। প্রথমার্ধের শেষ দিকে ল্যান্ডিং ডারবোর শট ফিরিয়ে বসুন্ধরার ত্রাতা গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো। ৭০তম মিনিটে কোস্টারিকার ফরোয়ার্ড সোলেরার প্রচেষ্টা ফিরে আসে পোস্টে লেগে। ৮৬তম মিনিটে উত্তর বারিধারাকেও গোলবঞ্চিত করে পোস্ট। এরপরই কাঙ্খিত গোলের দেখা পায় বসুন্ধরা। সুফিলের ক্রস গোলরক্ষক বিপদমুক্ত করতে ব্যর্থ হলে নিখুঁত টোকায় জাল খুঁজে নেন সোলেরা। বাকিটা সময় ব্যবধান বাড়াতে না পারলেও স্বস্তির জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বসুন্ধরা। সিলেটে রাসেলকে রুখে দেয় ব্রাদার্স। গতকাল হোমভেন্যু সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে প্রিমিয়ার লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই হারা পয়েন্ট খুইয়েছে। ব্রাদার্স ইউনিয়নের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে শুরুতেই হোঁচট খেলো সাবেক চ্যাম্পিয়নরা। গত মৌসুমে ঘরের মাঠে দূর্বার ছিল শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। চ্যাম্পিয়ন বসুন্ধরা কিংস পুরো লিগে যে একটি ম্যাচ হেরেছে সেটি এই সিলেটে রাসেলের বিরুদ্ধে। অথচ এবার সেই হোমভেন্যুতে রাসেল দুই পয়েন্ট নষ্ট করলো সূচনা ম্যাচে। সাইফুল বারী টিটুর দল ম্যাচটি শুরু করেছিল দুর্দান্তভাবেই। খেলা শুরুর ৩ মিনিটের মধ্যেই রাফায়েলের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল তারা। প্রথমার্ধ ওই ১ গোলে এগিয়ে শেষ করলেও দ্বিতীয়ার্ধে গিয়ে তা আর ধরে রাখতে পারেনি। ৫৯ মিনিটে কিরগিজস্তানের ওতাবেক গোল করে পয়েন্ট এনে দেন ব্রাদার্সকে।

x