প্রগতি চাকমার অপূর্ব দেয়ালচিত্র

নেই প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা

সমির মল্লিক : খাগড়াছড়ি

সোমবার , ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৯:১১ পূর্বাহ্ণ

ক্যানভাসজুড়ে পাহাড়ের প্রকৃতি ,নিসর্গ,পাহাড়ি মানুষ,কোমর তাঁত এবং যাপিত জীবনের কথন স্পষ্ট। যেন প্রকৃতির অকৃত্রিম চিত্র ফুটে উঠেছে রঙ তুলিতে। বিহারের দেয়ালজুড়ের এমন নান্দনিক শিল্পকর্মের কারিগর সদ্য কৈশোর পেরেনো প্রগতি চাকমা। অনন্য সৃষ্টিতে তুলে ধরেছে প্রকৃতির দৃশ্যপট। খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলা থেকে অন্তত ১৮ কিমি দূরে সাধনা টিলা বন বিহারের দেয়ালজুড়ের শৈল্পিক নিসর্গের ছোঁয়া। প্রতিটি চিত্রে পাহাড়ি এক শিল্পী’র প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। তবে প্রতিনিয়ত অভাবের সাথে যুদ্ধ করছে এই চিত্রশিল্পী । শঙ্কা রয়েছে অভাবী সংসারে থেকে চিত্রশিল্পের কাজ চালিয়ে যেতে পারবে কিনা।
প্রগতির স্বজনরা জানান,‘ ছোট বেলা থেকে চিত্রের প্রতি মনোযোগী ছিল প্রগতি। শৌখিন শিল্পী হওয়ার স্বপ্ন ছিল তার। তবে এটি অভাবে সংসারের এটি বড় উচ্চবিলাসী স্বপ্ন বটে। গরীব পরিবার -যেখানে ‘ নুন আনতে পান্তা পুরায়’ অবস্থা ,সেখানে চিত্রশিল্পী হওয়ার স্বপ্নটা একটু বাহুল্যতা হলেও প্রগতি হেঁটেছেন উল্টো পথে। কখনো চিত্র কর্মের জন্য রং তুলি কিনে দেওয়ার মতো অর্থ যোগান দেওয়ার মতো কেউ ছিল না। তবে ভিন্ন উপায়ে নিজের মনোবৃত্তি’র চর্চায় সময় কাটাতেন প্রগতি। সাদা কাগজে কেরোসিনের ছাপ দিয়ে ছবি আঁকতো সে। এভাবেই চলত চর্চা। চর্চা একদিন তাকে দক্ষ করে তুলে।
২০০৮সালে মিশন স্কুলে ভর্তি হওয়ার পর আঁকাআঁকি প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। তবে মননে ছিল চিত্রের প্রতি গভীর অনুরাগ। সাধনাটিলার বন বিহারের মহানাম ভান্তে প্রগতির পাশে দাঁড়ায়। তাঁর সার্বিক সহযোগিতায় প্রগতি চাকমা তাঁর শিল্প চর্চার প্রথম সুযোগ পায়। সাধনা টিলা বিহারের দেয়ালে রঙ তুলিতে ‘দেয়াল চিত্র’র কাজ করে সে। কোন রকমের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছাড়াই প্রগতি দেয়ালে এঁকে গেছেন বড় বড় ক্যানভাস। পেশাদার শিল্পীদের মতোই ফুটিয়ে তুলেছে পাহাড়ে ল্যান্ডস্কেপ। এমন শিল্পকর্ম দেখে বিস্মিত হবে যে কেউ। দেয়ালে রঙ তুলিতে আঁকার সুযোগ পেয়ে প্রগতি চাকমা তুলে ধরেছে তার শিল্প। মূলত পাহাড়ের নৈসর্গিক প্রকৃতি.জুমিয়াদের জীবন, পাহাড়ের মানুষ,প্রাণ-বৈচিত্র্য তুলে ধরে সে।
খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার চিনালছড়া গ্রামের শিব চরণ চাকমা ও চন্দ্র পদ্মা চাকমা’র বড় মেয়ে প্রগতি চাকমা। উচ্চ মাধ্যমিকের ছাত্রী প্রগতি। বর্তমানে বাবুছড়’ার স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের আঁকাআঁকি শেখায় প্রগতি চাকমা। এতে কিছু উপার্জনও হয়। প্রগতি চাকমা জানান,‘ ছোটবেলা থেকে শখ ছিল চিত্রশিল্পী হব। তবে অর্থের অভাবে সেটা সম্ভব হয়নি। নিজের চেষ্টায় দেয়ালচিত্র এঁকেছি। সহযোগিতা পেলে আরো ভালো কাজ করতে পারব। বর্তমানে শিশুদের আর্ট শেখাই। এতে কিছু আয়। অভাব আছে তবে আর্টের কাজ করে যেতে চাই । ’

x