পেকুয়ায় প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার ৪৪ ঘণ্টা অনশন

প্রেমিক ৬ লাখ টাকা কাবিনে বিয়েতে রাজি

মো. ছফওয়ানুল করিম, পেকুয়া

সোমবার , ২১ অক্টোবর, ২০১৯ at ৮:০৯ অপরাহ্ণ
619

পেকুয়ায় প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে দীর্ঘ ৪৪ ঘন্টা ধরে অনশন করছেন এক প্রেমিকা। অবশেষে প্রেমিকও ৬ লাখ টাকা কাবিনে বিয়েতে রাজি হয়েছেন বলে জানান প্রেমিক নিজেই।

আজ সোমবার (২১ অক্টোবর) পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ সুতাচুরা এলাকার নবী হোসেনের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকার লোকজন জানান, গত ২০ অক্টোবর বিকেল ৪টার দিকে এক নারী হঠাৎ ওই এলাকার নবী হোসেনের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে অবস্থান নেয়।

এসময় তিনি জানান, নবী হোসেনের পুত্র মোহাম্মদ কাইয়ূম প্রকাশ হেফাজের (২৫) সাথে তার দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। তাকে বিয়ের আশ্বাস দিলেও কাইয়ূম অন্যত্র বিয়ের প্রস্তাব দিচ্ছে শুনে তিনি নিজেই চলে আসেন প্রেমিকের বাড়িতে।

এ বিষয়ে প্রেমিক মোহাম্মদ কাইয়ূম দৈনিক আজাদীকে বলেন, ‘পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ভেলোয়াপাড়া এলাকার আমিন শরীফের মেয়ে জুলেখা বেগমের (২০) সাথে আমার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে দীর্ঘ ৩ বছর আগে। তাকেও আমি মন থেকে ভালবাসি কিন্তু তার মনে সন্দেহ তৈরি হওয়ায় আমাকে না জানিয়ে সে নিজ থেকেই আমার বাড়িতে চলে আসে। তখন আমি বাড়িতে ছিলাম না। আমি মাস্টার্স পরীক্ষা দেয়ার জন্য চট্টগ্রামে আছি।‘

ইতিমধ্যে জুলেখার সাথে মোবাইল ফোনে কথা বলে ৬ লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়েতে রাজি হয়েছেন এবং তার বাবা-মাও এটি মেনে নিচ্ছেন বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় এমইউপি হাবিবুর রহমান বলেন, ‘আমি বিষয়টি শুনে কাইয়ূমের বাড়িতে গিয়ে জুলেখার সাথে কথা বলেছি। সে জানিয়েছে, দীর্ঘ ৩ বছর ধরে তার সাথে কাইয়ূমের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। বিয়ের আশ্বাস দিয়েও বিয়ে না করায় সে কাইয়ূমের বাড়িতে চলে আসে।’ এসময় কাইয়ূম বাড়িতে ছিল না বলে জানান তিনি। আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত প্রেমিকা তার অবস্থানে অনড় রয়েছে বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে উজানটিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশনের বিষয়টি শুনেছি তবে আমি এলাকার বাইরে থাকায় বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য স্থানীয় এমইউপি হাবিবুর রহমানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।’

এদিকে অনেক চেষ্টা চালিয়েও প্রেমিকাপক্ষের কারো সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে প্রেমিকার পিতার বাড়ি টইটং ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের এমইউপি আবুল কাশেম বলেন, ‘আমিন শরীফের মেয়ে জুলেখা বেগম পেকুয়ার উজানটিয়া ইউনিয়নে তার প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নেয়ার বিষয়টি ওই এলাকার এমইউপি হাবিবুর রহমান আমাকে জানানোর পর উভয়পক্ষ কথা বলে একটি সমাধান করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

স্থানীয়রা জানান, প্রেমিক-প্রেমিকা দুজনই শিক্ষার্থী। মোহাম্মদ কাইয়ূম বর্তমানে চট্টগ্রাম সিটি কলেজে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ থেকে মাস্টার্স পরীক্ষার্থী এবং প্রেমিকা জুলেখা চকরিয়া সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে বিএ পরীক্ষার্থী।

x