নৃত্যাঞ্চল সঙ্গীত নিকেতনের বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ১৯ মার্চ, ২০২০ at ১০:৪৬ পূর্বাহ্ণ
45

ফুলকি এ.কে.খাঁন মিলনায়তনে নৃত্যাঞ্চল সংগীত নিকেতনের ১১ বছর পূর্তি উপলক্ষে নানা অনুষ্ঠানমালায় ছিল – ২০১৯ সালের বার্ষিক সনদপত্র প্রদান, গুণীজন সংবর্ধনা, সমবেত তবলা লহড়া, সমবেত কথক নৃত্য, সমবেত সংগীত পরিবেশনা ও একক শাস্ত্রীয় সংগীতানুষ্ঠান। অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন এডভোকেট অসিত কুমার দত্ত। সম্মানিত অতিথি ছিলেন অধ্যক্ষ ওস্তাদ মিহির লালা। অতিথি ছিলেন আর্য্য সংগীত সমিতির নৃত্য শিক্ষিকা অর্পিতা দাশ। সম্মাননা পেলেন পণ্ডিত নির্মলেন্দু চৌধুরী, আর্য্য সঙ্গীত সমিতির তবলা শিক্ষা শান্তিময় চৌধুরী, তবলা শিক্ষক প্রণব ভট্টাচার্য, তবলা শিক্ষক সমীর আচার্য্য, নৃত্য শিক্ষিকা কৃষ্ণা বিশ্বাস। সঞ্জয় চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে অতিথি ছিলেন ইমন কল্যাণ বিদ্যাপীঠের পরিচালক রঞ্জন দত্ত, হৃদম সংগীত নিকেতনের বিপ্লব চক্রবর্তী, প্রেমনিধি কালচারাল একাডেমীর শুকদেব প্রভু, ঝুমকা তবলা প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের পরিচালক তবলাশিল্পী পার্থ প্রতীম দাশ, বাগীশ্বরী সঙ্গীতালয়ের সাংগঠনিক সম্পাদক যীশু সেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন লাভলু চক্রবর্তী। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন- সংস্কৃতির জীবনকে মহিমা দেয়, হৃদয়কে প্রেমপূর্ণ করে, মানুষকে ভালবাসতে শেখায়। শিশু-কিশোরকে সংস্কৃতির প্রতি আকৃষ্ট করতে হবে। তবেই তারা দেশ প্রেমিক ও দেশীয় সংস্কৃতির একনিষ্ঠ সেবক হয়ে গড়ে উঠবে।
সমবেত দলীয় নৃত্য ‘এই পৃথিবীর একটাই দেশ’ অংশগ্রহণে রৌদ্রি, বর্ষা, তুষ্টি, সপ্তমা, এষা, ঈষা, নিশি, মন, মমি, ঐশী, তূর্ণা, মিতু, অনামিকা, সুস্মিতা, পুনম, মুক্তা, রিশমা, মৃত্তিকা ও অদ্বিতীয়া। সমবেত তবলা লহরাই ছিলেন – শরৎ, জয়ন্ত, শাওন, কাননজয়, বর্ষা, এষা ও জনি। হারমোনিয়ামে ছিলেন প্রীতম আচার্য। দলীয় সংগীত ‘অঞ্জলি লহ মোর’, ও ‘বরিষ ধারার মাঝে শান্তির ও বারী’ অংশগ্রহণে ছিলেন আনিশা, মনীষা, শ্রেষ্ঠ, প্রেরণা, চন্দ্রিমা, সপ্তমা, আদিত্য, টুশি, তিশা, শর্মী ও আয়াত।
কথক নৃত্য পরিবেশন করেন বর্ষা তুষ্টি ও রৌদ্রি। তবলায় ছিলেন প্রীতম আচার্য্য। ‘আয় তবে সহচরী’ গানটির সাথে নৃত্য করেন মানবী, পিউ, সৃজা ,প্রীতম, জয়িত্রী, দিঘী ও অদিতি। শাস্ত্রীয় সংগীত পরিবেশন করেন প্রত্যয় বড়ুয়া অভি। তবলায় সংগত ছিলেন সমীর আচার্য। দলীয় নৃত্য ‘ঢেঁকি নাচে ধাপুর ধুপুর’, ‘মন মোর মেঘের সঙ্গী’, ও ‘সপ্তসুরের শিখায় আমি’, অংশগ্রহণে রূপ্লক, রবিন, পলাশী ও সুমন। সর্বশেষে ২০১৯ সালের বিভিন্ন বিভাগে উত্তীর্ণ সকল ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে সনদ ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।