নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত বাঁশখালী

চলছে সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশী টহল

বাঁশখালী প্রতিনিধি

শনিবার , ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৭:৩৭ অপরাহ্ণ
142

চট্টগ্রামের আলোচিত উপজেলা বাঁশখালীতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণের সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া সাধারণ জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে কঠোর নজরদারির অংশ হিসেবে সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশের টহল চলছে নিয়মিত।

বাঁশখালীর উপকূলীয় ইউনিয়ন ছনুয়া, গন্ডামারা, বাহারছড়া ও খানখানাবাদ এলাকা অন্যান্য এলাকার চেয়ে দূরে হওয়ায় নির্বাচনী সরঞ্জাম ওই সব এলাকায় পাঠানো হচ্ছে সবার আগে।

বিগত দিনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে নানা ধরনের দ্বন্দ্ব সংঘাতের কারণে সাধারণ জনগণের মাঝে যে উৎকন্ঠা বিরাজ করছিল তা প্রশাসনিক কঠোর নজরদারির প্রেক্ষিতে কাটিয়ে ওঠা গেছে। সর্বত্র উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটদানের জন্য গ্রহণ করা হয়েছে নানা ধরনের প্রস্তুতি।

ইতোমধ্যে বাঁশখালী পৌরসভাসহ ১৪টি ইউনিয়নের ১১০টি কেন্দ্রের আশেপাশে সাটানো হয়েছে বিপুল সংখ্যক পোস্টার। নিজেদের পছন্দের প্রার্থীর পোস্টার সাটানোর কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে কর্মী সমর্থকরা। তার সাথে কালকের নির্বাচনী কেন্দ্রে অংশগ্রহণের নিশ্চয়তা নিয়ে নিচ্ছে প্রার্থী ও তার সমর্থকরা।

এদিকে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে সকাল থেকেই সকল প্রিসাইডিং, সহকারী প্রিসাইডিং ও পোলিং-এর দায়িত্বরত কর্মকর্তাসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিশেষ করে পুলিশ ও আনসার ভিডিপি’র সদস্যরা নিজ নিজ কেন্দ্রের দায়িত্ব বুঝে নিচ্ছেন।

এবার বাঁশখালীতে প্রার্থী ৯ জন। তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী ছাড়াও অন্য প্রার্থীরা হলেন বিএনপি’র প্রার্থী জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, জাতীয় পার্টির প্রার্থী মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের প্রার্থী ও উপজেলা জামায়াতের আমীর মাওলানা জহিরুল ইসলাম, ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মাওলানা ফরিদ আহমদ আনসারী। তাদের সবার নাম লোকমুখে বেশি শোনা গেলেও মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কারা আসছেন তা নিয়ে গুঞ্জন চলছে সর্বত্র।

এদিকে উপজেলা নির্বাচন অফিস তথ্যানুসারে পুকুরিয়া ইউনিয়নে ৭টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৯৯৪৭ জন। তার মধ্যে পুরুষ ১০৩৩৮ জন এবং মহিলা ৯৬০৯ জন। সাধনপুর ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৮৬০১ জন। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ৯৫৩৬ জন এবং মহিলা ভোটার ৯০৬৫ জন। খানখানাবাদ ইউনিয়নে ৮টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ২০১২৬ জন। পুরুষ ১০৪৬১ জন এবং মহিলা ৯৬৬৫ জন। বাহারছড়া ইউনিয়নে ৭টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ২৫৩১৬ জন। তার মধ্যে পুরুষ ১৩০৩৩ জন এবং মহিলা ১২২৮৩ জন। কালীপুর ইউনিয়নে ৮টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ২২৮০৪ জন। পুরুষ ১১৯১৪ এবং মহিলা ১০৮৯০ জন। বৈলছড়ি ইউনিয়নে ৬টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ১২৪২১ জন। তম্মধ্যে পুরুষ ৬৫৫১ জন এবং মহিলা ৫৮৭০ জন। কাথারিয়া ইউনিয়নে ৬টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৪৭২৩ জন। পুরুষ ৭৬৫১ জন এবং মহিলা ৭০৭২ জন। সরল ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ২৫১৭৯ জন। পুরুষ ১৩২২৪ জন এবং মহিলা ১১৯৫৫ জন। বাঁশখালী পৌরসভা জলদীতে ৯টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ২৫৭১৬ জন। তার মধ্যে পুরুষ ১৩২৬৫ জন এবং মহিলা ১২৪৫১ জন। শীলকূপ ইউনিয়নে ৪টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৫৫৯৮ জন। তার মধ্যে পুরুষ ৮২০৯ জন এবং মহিলা ৭৩৮৯ জন। গন্ডামারা ইউনিয়নে ৮টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ২২২৭৬ জন। তার মধ্যে পুরুষ ১১৮৪৮ জন এবং মহিলা ১০৪২৮ জন। চাম্বল ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ২৩৬৭০ জন। তার মধ্যে পুরুষ ১২৫৬৮ জন এবং মহিলা ১১১০২ জন। শেখেরখীল ইউনিয়নে ৪টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৪২৯২ জন। তার মধ্যে পুরুষ ৭৫৯৮ জন এবং মহিলা ৬৬৯৮ জন। পুঁইছড়ি ইউনিয়নে ৯টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ২৪১৪৮ জন। তার মধ্যে পুরুষ ১২৬৮৯ জন এবং মহিলা ১১৪৬৯ জন। ছনুয়া ইউনিয়নে ৭টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৮২৫৯ জন। তার মধ্যে পুরুষ ৯৫২৪ জন এবং মহিলা ৮৭৩৫ জন। সর্বোপরি বাঁশখালী ১৪টি ইউনিয়ন এবং ১টি পৌরসভা মিলে মোট ভোটার ৩ লক্ষ ৩ হাজার ৮৬ জন। তারমধ্যে পুরুষ ১ লক্ষ ৫৮ হাজার ৪শ ৯ জন এবং মহিলা ১ লক্ষ ৪৪ হাজার ৬শ ৭৭ জন। ১১০টি ভোট কেন্দ্রে স্থায়ী এবং অস্থায়ী মিলে ৫৯০টি কক্ষে এসব ভোটাররা ভোট প্রদান করবেন বলে উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়।

নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী প্রার্থী সূত্রে জানা যায়, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী তার নিজ এলাকা সরলের জালিয়াঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে, বিএনপি’র জাফরুল ইসলাম চৌধুরী পশ্চিম গুনাগরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে, জাতীয় পার্টির মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী বৈলছড়ি নজুমুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এবং নাগরিক ঐক্যের প্রার্থী মাওলানা জহিরুল ইসলাম শেখেরখীল ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে ভোট প্রদান করবেন। অপরাপর প্রার্থীরাও তাদের স্ব স্ব কেন্দ্রে ভোট প্রদান করবেন বলে জানা যায়।

বাঁশখালীর আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামাল হোসেন বলেন, ‘নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। পর্যাপ্ত পুলিশসহ সেনাবাহিনী, বিজিবি ও র‌্যাব রয়েছে। তারা যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।’

এদিকে বাঁশখালীর নির্বাচন ও আইনশৃঙ্খলা থেকে শুরু করে অন্যান্য বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার বলেন, ‘নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন এবং প্রতিটি কেন্দ্রে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের মাধ্যমে ব্যালেট পেপারসহ অন্যান্য সরঞ্জাম প্রেরণ করা হচ্ছে। আশা রাখি সকলের অংশগ্রহণে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।’

x