নতুন প্রেসিডেন্ট বেছে নিতে ভোট দিচ্ছে শ্রীলঙ্কা

প্রার্থী ৩৫ জন, দুই ফুট লম্বা ব্যালট : ভোটারবাহী গাড়িবহরে গুলিবর্ষণ

রবিবার , ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ at ৯:৩৫ পূর্বাহ্ণ
26

ইস্টারের পরবে সন্ত্রাসী হামলায় আড়াইশ’রও বেশি মানুষ নিহতের ৭ মাস পর নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট দিচ্ছে শ্রীলঙ্কা। ২০০৯ সালে দেশটিতে কয়েক দশকের গৃহযুদ্ধের অবসানের পর এ নিয়ে তৃতীয়বার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। গতকাল শনিবারের নির্বাচনে মোট ৩৫ জন প্রার্থী লড়লেও ব্যালটে বর্তমান প্রেসিডেন্ট মাইথ্রিপালা সিরিসেনার নাম নেই বলে জানিয়েছে বিবিসি। খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম পবিত্র উৎসব ইস্টারের পরবে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় সমালোচনার মুখে সিরিসেনা নির্বাচনে না দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন। এদিকে দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের তন্ত্রীমালে অঞ্চলে সংখ্যালঘু মুসলিম ভোটারবাহী একটি গাড়িবহরে বন্দুকধারীদের হামলার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল সকালে রাজধানী কলম্বো থেকে প্রায় আড়াইশ’ কিলোমিটার দূরের ওই এলাকায় হামলার ঘটনা ঘটে। ভোটারবাহী গাড়িবহরটিতে শতাধিক যানবাহন ছিল। এর মধ্যে অন্তত দুটি বাসে গুলি লাগে। এতে এখন পর্যন্ত কারো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। খবর বিডিনিউজ ও বাংলানিউজের।
বিপুল সংখ্যক প্রার্থীর কারণে এবার ভোটারদেরকে দুই ফুট লম্বা ব্যালট পেপার সরবরাহ করা হচ্ছে বলে দেশটির নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে। প্রার্থী তালিকায় তিন ডজন নাম থাকলেও ভোটারদের চোখ থাকবে মূলত দুজনের ওপর- সাবেক প্রেসিডেন্ট মাহিন্দা রাজাপাকসের ভাই গোতাবায়া রাজাপাকসে এবং ১৯৯৩ সালে তামিল গেরিলাদের হামলায় নিহত প্রেসিডেন্ট রানাসিংয়ে প্রেমাদাসার ছেলে সুজিত প্রেমাদাসা।
গোতাবায়া ভাইয়ের নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভায় প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন, তার বিরুদ্ধে লিবারেশন টাইগারস অব তামিল ইলম (এলটিটিই) গেরিলাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মানবাধিকার লংঘনের অভিযোগ আছে। অন্যদিকে সুজিতের নির্বাচনী প্রচারণায় প্রাধান্য পেয়েছে গৃহায়ন, দারিদ্র্য বিমোচনসহ নানা সামাজিক ইস্যু।
ইস্টারে সন্ত্রাসী হামলার পর ভোটারদের নিরাপত্তা নিয়ে দুশ্চিন্তার বিষয়টি তার প্রচারণাতেও ছাপ ফেলেছে। প্রেসিডেন্ট হলে তামিল গেরিলাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সময়কার সেনাপ্রধান শরৎ ফনসেকাকে জাতীয় নিরাপত্তার দায়িত্ব দেবেন বলে তিনি প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন। তবে এপ্রিলের ওই হামলা রাজাপাকসে ভাইদের জনপ্রিয়তাই অনেকখানি বাড়িয়ে দিয়েছে; নিরাপত্তা নিয়ে তাদের কঠোর অবস্থান সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহলিজদের মধ্যে গোতাবায়ার অবস্থান শক্তিশালী করেছে, বলছেন পর্যবেক্ষকরা।
বিবিসি লিখেছে, মূল দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর সঙ্গে শ্রীলঙ্কার এ নির্বাচনে নয়া দিল্লি ও বেইজিংও থাকছে। লঙ্কান রাজনৈতিক মহলে সুজিতকে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র ঘেঁষা হিসেবে বিবেচনা করা হয়, অন্যদিকে রাজাপাকসে বলেছেন- নির্বাচিত হলে তিনি চীনের সঙ্গে সম্পর্ক পুনঃপ্রতিষ্ঠায় মনোযোগী হবেন। শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের নিয়ম অনুযায়ী, ভোটাররা সর্বোচ্চ তিনজন প্রার্থীকে পছন্দের ক্রম অনুযায়ী বেছে নেয়ার সুযোগ পাবেন। কোনো প্রার্থী মোট ভোটের ৫০ শতাংশের বেশি পেলে তিনি এমনিতেই জয়ী হবেন; সেরকম কিছু না ঘটলে দেখা হবে ভোটারদের পছন্দের ক্রম। গণনা শেষে সোমবারের মধ্যেই লঙ্কানরা কাকে তাদের প্রেসিডেন্ট হিসেবে বেছে নিয়েছেন তা জানা যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

x