নগরীর ভবনগুলোর পরিকল্পনা ত্রুটি খতিয়ে দেখার আহ্বান নওফেলের

নিহতদের পরিবারকে ১ লাখ ও আহতদের দিলেন ২০ হাজার টাকা

আজাদী প্রতিবেদন

বুধবার , ২০ নভেম্বর, ২০১৯ at ৪:০২ পূর্বাহ্ণ
81

পাথরঘাটায় বিস্ফোরণে বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শন করলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। কথা বললেন স্থানীয় জনগণ ও ক্ষতিগ্রস্তদের সাথে। শান্তনা দিয়েছেন হতাহতের আত্মীয় স্বজনদের। ঘটনাস্থলে নিহতের প্রতিটি পরিবারকে এক লাখ টাকা এবং হাসপাতালে আহতদেরকে ২০ হাজার টাকা করে দিলেন। প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকেও সাহায্য দেওয়া হবে বলে জানান উপমন্ত্রী।
গতকাল মঙ্গলবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে তিনি ঘটনাস্থলে যান। এসময় ঘুরে ঘুরে দেখেন ঘটনাস্থলের আশপাশ। এরপর আহতদের দেখতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান। এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে চট্টগ্রাম নগরীতে গড়ে ওঠা ভবনগুলোর পরিকল্পনাগত ত্রুটি আছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে সেবা সংস্থাগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। এ সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যেভাবে দালানকোঠা বৃদ্ধি পেয়েছে সেগুলোতে কোনো পরিকল্পনাগত ত্রুটি ছিল কিনা সেটা দেখতে হবে। কারণ পরিকল্পনায় যদি ত্রুটি থাকে দুর্ঘটনার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়। নগরীর পুরনো ভবনগুলোর গ্যাস, বিদ্যুৎ লাইন নিয়মিত পরীক্ষা করা উচিত। একইসাথে সিডিএর নকশা অনুমোদন এবং অনুমোদিত নকশা অনুসারে ভবন নির্মাণ হয়েছে কিনা সেটাও নজরদারির আওতায় আনতে হবে। এক্ষেত্রে ঝুঁকি এড়াতে সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থাকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে।
প্রসঙ্গত: গত রোববার সকালে বড়ুয়া বিল্ডিংয়ের নিচতলায় ওই বিস্ফোরণে সাতজন নিহত ও অন্তত ১০ জন আহত হন। এ ঘটনায় ভবনটির মালিক দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে অবহেলাজনিত মৃত্যু ও ক্ষতিসাধনের অভিযোগে মামলা হয়েছে।
সেবা সংস্থাগুলোকে ভবন পরিদর্শনের আহ্বান জানিয়ে নওফেল বলেন, এই যে ভয়াবহ দুর্ঘটনা। এটি শুধু বাসিন্দাদের ক্ষতিগ্রস্ত করেনি রাস্তায় চলাচলকারী পথচারীদেরও হতাহত করেছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আহ্বান জানাব তারা যেন পরিদর্শন কাজ দ্রুত শুরু করেন। তবে দালান মালিকরা যেন হেনস্থার শিকার না হয় বিষয়টাও খেয়াল রাখতে হবে।
পাথরঘাটা বিস্ফোরণের বিষয়ে তিনি বলেন, কী কারণে বিস্ফোরণ ঘটেছে, সেটা এখন পর্যন্ত সঠিকভাবে নিরূপণ করা যায়নি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়েছিল গ্যাস সিলিন্ডার বা গ্যাসের লাইন থেকে বিস্ফোরণ হয়। পরবর্তীতে কর্ণফুলী গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি থেকে বলা হয়েছে, গ্যাস লাইনে কোনো সমস্যা সেখানে দেখা যায়নি। সব প্রতিবেদন জমা হলে ঘটনার প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এ ধরনের ঘটনা থেকে প্রতিকারের উপায় বা সুপারিশ পাওয়া যাবে।

x