দাবানলে পুড়ছে ক্যালিফোর্নিয়া

শনিবার , ২৬ অক্টোবর, ২০১৯ at ৮:২৪ পূর্বাহ্ণ

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যে ছড়িয়ে পড়েছে দাবানল। আগুনে এরইমধ্যে পুড়েছে ১৬ হাজার একর জমি। শুষ্ক বাতাসে ঘণ্টায় ১১২ কিলোমিটার এলাকা পুড়িয়ে অঙ্গরাজ্যটির দক্ষিণদিকে এগিয়ে যাচ্ছে আগুনের লেলিহান শিখা।
এখন পর্যন্ত আগুনে হতাহতের খবর মেলেনি। তবে লস অ্যাঞ্জেলেস, সান ফ্রান্সিসকো, সোনোমা কাউন্টিসহ ৭টি শহরে জরুরিভিত্তিতে স্থানীয়দের বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। শুধু লস অ্যাঞ্জেলেস থেকেই অন্তত ৫০ হাজার মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিয়েছেন উদ্ধারকর্মীরা। আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলো জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) স্থানীয় সময় দুপুরে স্বল্প আদ্রতা ও তীব্র বাতাসে ঘণ্টা না পেরোতেই আগুনে পুড়ে গেছে কয়েকশ মাইল জমির গাছপালা ও আঙুরের ফসলি জমি। আগুন দক্ষিণের হেল্ডসবার্গের দিকে এগিয়ে যাওয়ায় সেখানে জরুরি অবস্থা জারি করেছে প্রশাসন। স্থানীয়দের কোনো অবস্থাতেই গাড়িতে চেপে বের না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন উদ্ধারকর্মীরা। জরুরি সহায়তায় শহরটিতে প্রায় দেড় হাজার দমকলকর্মী কাজ করছেন। এদিকে, আগুন না ছড়ালেও তাপ ছড়িয়ে পড়েছে সান ফ্রান্সিসকোর আশপাশের শহরগুলোতে। বাতাসে উড়ে আসা ছাইয়ের কণায় স্বাভাবিক অবস্থায় শ্বাস নিতেও কষ্ট হচ্ছে অনেকের। ধোঁয়ায় বাতাসে কমে গেছে অঙিজেনের পরিমাণও। তাই হাসপাতাল ছাড়াও নির্দিষ্ট আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতেও অক্সিজেন ট্যাঙ্কের যোগান দিতে বলা হয়েছে। গত বুধবার (২৩ অক্টোবর) থেকে ছড়িয়ে পড়া এই আগুনে পুড়ে গেছে প্রায় শ’খানেক ঘরবাড়ি। পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ ৫০টি স্থাপনাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দাবানলে ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যটির সব শিক্ষা ও বেশকিছু বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। যেকোনো সমস্যায় জরুরি হটলাইনে যোগাযোগের নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য প্রশাসন। দাবানলের আগুনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বৈদ্যুতিক ও গ্যাস লাইন। তাই বুধবার রাজ্যটিতে জরুরি সংযোগ দুটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। এতে প্রায় তিন লাখ বাড়িঘর বিদ্যুৎবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। তবে, আগুন থেমে না যাওয়া পর্যন্ত জরুরি কিছু সংযোগ ছাড়া অন্যগুলো বন্ধ রাখারই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রাজ্য গভর্নর। ক্যালিফোর্নিয়ায় শীত আসার আগের মুহূর্তে বাতাসে কমে যায় আর্দ্রতা। এসময় গাছের পাতার ঘর্ষণেও আগুন লেগে যায় বনে। অনেক সময় বৈদ্যুতিক তারের কারণেও একই ঘটনা ঘটে। তাই এসময়টায় যেকোনো ধরনের পিকনিক বা ক্যাম্পিং নিষিদ্ধ বনটিতে। বেশিরভাগ সময়ই মানুষের অসাবধানতার কারণেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে বনে।

x