দক্ষিণ কাট্টলী কলেজ রোডে ‘গগন’ ছড়াটি জলাবদ্ধতার নিরসন হবে কী?

মঙ্গলবার , ১ অক্টোবর, ২০১৯ at ১০:৪১ পূর্বাহ্ণ
13

চট্টগ্রাম জেলার পাহাড়তলী থানার অন্তর্গত ১১ নং ওয়ার্ড সিটি কর্পোরেশন অন্তর্ভুক্ত দক্ষিণ কাট্টলী গ্রাম। এই গ্রামে অনেক খাল ছিল। বর্তমানে খালগুলো নালাতে পরিণত হয়েছে। তবে জেলেপাড়ার খালটি সেনাবাহিনীর সহায়তায় পরিচ্ছন্নের মুখ দেখেছে। কিন্তু গগনের ছড়াটিতে কোন ছোঁয়া এখনো লাগেনি। অতীতে গগনের ছড়াটির উপর নৌকা যাতায়াত করত। বঙ্গোপসাগর থেকে জোয়ারের পানি যাতায়াত করত। বর্তমানে ময়লার পানি যাতায়াত করে। গগন নামে ছড়াটি বিশ্বরোড থেকে এসে বশর কলোনি হয়ে দীন বন্ধু চক্রবর্ত্তী বাড়ি হয়ে পুকুর ঘেঁষে যুধিষ্ঠির হোড়ের বাড়ি হয়ে ভূঁইয়া কলোনি হয়ে সোজা ধোপার পাড়ার মুখ স্পর্শ করেছে তারপর সকল কিছু শেষ। অর্থাৎ এ স্থানে পুকুর ছিল।
পুকুর ভরাট হয়ে ২২ প্লট আকার ধারণ করেছে। বড় বড় দালান হয়েছে। পানি চলাচলের পথ তেমন রাখেনি। বড় নালা হয়নি। বর্ষা আসলে সকল পানি ঢুকে যায় মানুষের ঘর-বাড়িতে। তখন জলাবদ্ধতার শিকার হয়। পানি সহজে নামে না। মানুষের নৈতিক চরিত্রটা আস্তে আস্তে লোপ পাচ্ছে। বাড়ির ছাদটুকু পর্যন্ত রাস্তাতে আসা দ্বিধা বোধ হয় না। নিচের দিকে ছাড়লে উপরে গিয়ে ছাদ দিয়ে নিয়ে ফেলে। সরকারকে আর কী দোষ দিব? যতদিন জনগণের মনে দেশ প্রেম জন্মাবে না ততদিন উন্নয়ন কিছুতেই সম্ভব নয়। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, জয় হউক দেশ।
-রাজীব হোড় (রাজু) যুধিষ্ঠির মহাজন বাড়ি,
দক্ষিণ কাট্টলী, চট্টগ্রাম। -৪২১৯

x