তিন দফায় পাকিস্তান সফর করবে বাংলাদেশ দল

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বুধবার , ১৫ জানুয়ারি, ২০২০ at ৬:০১ পূর্বাহ্ণ

বাংলাদেশ এবং পাকিস্তান ক্রিকেট দলের মধ্যকার সিরিজ নিয়ে কম রশি টানাটানি হয়নি। আজ পাকিস্তানের এই প্রস্তাবতো পরবর্তীতে বাংলাদেশের আরেকটি প্রস্তাব। কিন্তু কারো প্রস্তাবে সাড়া দেয়না কেউই। শেষ পর্যন্ত বিসিবির পরিচালনা পর্ষদ সভায় বসেও কোন সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি বাংলাদেশ দলের পাকিস্তান সফরের ব্যাপারে। শেষ পর্যন্ত বরফ গলেছে দু’দলের। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের পাকিস্তান সফর নিয়ে একটা সমঝোতায় পৌঁছেছে দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ড। সমঝোতা অনুযায়ী তিন ধাপে পাকিস্তান সফর করবে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। আর এই সিদ্ধান্তের ফলে ম্যাচও বেড়ে গেছে একটি। আর তা হচ্ছে সফরের শেষ ধাপে একটি ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে দু’দল। যা আগের সুচিতে ছিলনা। যেখানে প্রথম ধাপে পাকিস্তানে গিয়ে তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। লাহোরে তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ দিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের পাকিস্তান সফর শুরু হবে । আগামী ২৪, ২৫ ও ২৭ জানুয়ারি এই তিনটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে । প্রথম ধাপের সফর শেষে দেশে ফিরবে টাইগাররা। পরের ধাপে গিয়ে দুই টেস্ট সিরিজের প্রথম টেস্ট ম্যাচটি খেলবে টাইগাররা। আর শেষ ধাপে গিয়ে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের পাশাপাশি সফরের একমাত্র ওয়ান ডে ম্যাচটিও খেলবে টাইগাররা। গতকাল মঙ্গলবার পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) পক্ষ থেকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। পিসিবি’র ওয়েবসাইটে বিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশ করা হয়েছে। সফরের দ্বিতীয় পর্বে থাকবে দুই টেস্ট সিরিজের প্রথম টেস্ট ম্যাচটি। আর সে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে ৭ থেকে ১১ ফেব্রুয়ারি রাওয়ালপিন্ডিতে । এই দুই ধাপের পর তৃতীয় ধাপের মাঝখানে রয়েছে একটি লম্বা বিরতি। কারন এই সময়ে পাকিস্তান সুপার লিগ (পিএসএল) অনুষ্ঠিত হবে। পিএসএল চলবে আগামী ২২ মার্চ পর্যন্ত। পিএসএল শেষে আগামী ৩ এপ্রিল সিরিজের একমাত্র ওয়ান ডে ম্যাচটি মাঠে গড়াবে করাচি ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে। আর করাচিতেই হবে দুই ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় এবং শেষ টেস্ট ম্যাচটি। যার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ৫ থেকে ৯ এপ্রিল। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড পিসিবি’র চেয়ারম্যান এহসান মানি বলেন, শেষ পর্যন্ত আমরা দুই দেশের পক্ষ থেকে একটি সমঝোতায় উপনীত হতে পেরেছি। যা ক্রিকেট খেলা ও ক্রিকেট পাগল দুই জাতির জন্যই ভালো হবে। দুই দেশের মধ্যে খেলা চালিয়ে যেতে সহায়তা করায় আইসিসি চেয়ারম্যান শংকর মনোহরকেও ধন্যবাদ জানালেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি এহসান মানি। এদিকে পিসিবি’র প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান বলেন, এটা দুই দেশের জন্যই উইন-উইন ফল এনেছে। সিরিজটি নিয়ে সব ধোঁয়াশা কেটেছে বলে আমি খুবই আনন্দিত। এর আগে দুই দেশের এই সিরিজ নিয়ে সব সময়ই অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছিল। কারন পাকিস্তানের নিরাপত্তা ব্যবস্থার কারণে বাংলাদেশ দল লম্বা সময়ের জন্য পাকিস্তান সফর করতে রাজি ছিল না। ক্রিকেটার এবং কোচিং স্টাফদের কেউ কেউ যেতে রাজি ছিল না পাকিস্তানে। সরকারের পক্ষ থেকে অনুমতি মিলছিল না লম্বা সময় পাকিস্তান সফর করার। শেষ পর্যন্ত সব আঁধার কেটে গেছে। আলোর মুখ দেখল দুই দেশের আলোচিত এই সিরিজটি। তাতে দু’দেশেরই লাভ হয়েছে বলে মনে করছেন ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা। সেই ২০০৯ সাল থেকে পাকিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বন্ধ রয়েছে। যদিও গত কয় বছর ধরে পাকিস্তানে কিছু কিছু আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজিত হচ্ছে। যার সবশেষটি ছিল শ্রীলংকা ক্রিকেট দলের পাকিস্তান সফর। সে সফরে লংকানরা দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে। অবশ্য এর আগে লংকানরা তিনটি ওয়ানডে এবং তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে স্বাগতিক পাকিস্তানের বিপক্ষে। পাকিস্তান তাদের দেশে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরানোর অংশ হিসেবে এবারের পিএসএলের পুরোটাই আয়োজন করছে নিজেদের মাটিতে। যদিও সেটাও দেখার বিষয় যে, কতটা নিরাপদ ভাবে এই পিএসএল সফল করতে পারে পাকিস্তান তাদের মাটিতে। কারন পিএসএলে থাকবে বিদেশী অনেক নামি দামি তারকা ক্রিকেটার। তবে আপাতত স্বস্তি বাংলাদেশ ক্রিকেট দল পাকিস্তান সফর করবে।

x