তিনদিনের মাথায় আকাশে উড়ল ময়ূরপঙ্খী

ছয় মাস পর উড়েছে ইউএস বাংলার বোয়িং

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ at ৬:২৭ পূর্বাহ্ণ
101

ছিনতাই চেষ্টার কবলে পড়া বাংলাদেশ বিমানের বোয়িং ময়ূরপঙ্খী গতকাল উড়াল দিয়েছে। ছিনতাইকারীর কবলে পড়ে জরুরি অবতরণ করার তিনদিনের মাথায় গতরাতে বোয়িংটি উড়াল দেয়। একইসাথে ছয় মাসেরও বেশি মুখ থুবড়ে পড়ে থাকা ইউএস বাংলার বোয়িংটিও গতকাল দিল্লির উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম ছেড়েছে। চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করা দুইটি বোয়িংই একই দিনে উড়াল দিয়েছে।
সূত্র জানিয়েছে, ছিনতাইকারীর কবলে পড়া বাংলাদেশ বিমানের বোয়িং ময়ূরপঙ্খীকে গতরাত ৯টা ২০ মিনিটে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ঢাকা থেকে আসা বিশেষজ্ঞ টিম নানাভাবে পরীক্ষা নিরীক্ষা করার পর বোয়িংটিকে উড়ার উপযোগী ঘোষণা করায় এটিকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে এটিকে বিভিন্ন গন্তব্যে পাঠানো হবে বলেও সূত্র জানিয়েছে। ফ্লাইটটি জরুরি অবতরণ করলেও বড় ধরনের কোন যান্ত্রিক সমস্যা হয়নি। টুকটাক যা সমস্যা ছিল সবই ইতোমধ্যে মেরামত করা হয়েছে। গত রোববার ১৪৮ জন আরোহী নিয়ে বাংলাদেশ বিমানের বিজি ১৪৭ ফ্লাইটটি ছিনতাই চেষ্টার কবলে পড়ে। যৌথ কমান্ডো অভিযানে ছিনতাইকারী পলাশ মাহমুদ নিহত হলেও বিমানটির যাত্রীরা ছিলেন নিরাপদে। ইতোমধ্যে ওই ঘটনায় মামলা রুজু করা হয়েছে। সিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট মামলার আলামত হিসেবে বিমানটি জব্দ করলেও বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের জিম্মায় দিয়েছে। অপরদিকে গত বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর দুপুরে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিএস-১৪১ ফ্লাইটটি ১৬৪ জন যাত্রী এবং ৭ জন ক্রু নিয়ে ঢাকা থেকে কক্সবাজার যাওয়ার পথে যান্ত্রিক ত্রুটির কবলে পড়ে। বোয়িং ৭৩৭ মডেলের উড়োজাহাজটির সামনের চাকা না নামায় কক্সবাজারের পরিবর্তে চট্টগ্রামে নিয়ে আসা হয় এবং শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে অবতরণ করে। চাকা না নামায় বডির উপরই বিমানটিকে নামাতে হয়। এতে ভাগ্যক্রমে ওই ফ্লাইটের যাত্রীদের কোন ক্ষতি না হলেও উড়োজাহাজটি বড় ধরনের ক্ষতির কবলে পড়ে। রানওয়ের উপর আছড়ে পড়ার মতো অবতরণের ঘটনায় এয়ারক্রাফটির সামনের অংশ নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়। বোয়িং কোম্পানির বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলীরা আমেরিকা থেকে এসে ত্রুটি সারানোর কাজ করেন। অবশেষে ছয় মাসেরও বেশি পর বোয়িংটি গতকাল দুপুরে দিল্লির পথে উড়াল দেয়। এই বোয়িংটিও ইউএস বাংলার ফ্লাইটে নিয়মিত চলাচল করবে। গতকাল চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ জরুরি অবতরণ করা দুইটি বোয়িংই একই দিনে চট্টগ্রাম ছাড়ার কথা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন।

x