‘ট্যাঙ্গেল্ড’ কি করোনা’র ছায়াচিত্র

রবিবার , ২২ মার্চ, ২০২০ at ১১:৩০ পূর্বাহ্ণ
57

যে রাজ্য থেকে রুপাঞ্জেলকে আলাদা করে রাখা হয়েছিল সেটার নাম করোনা। প্রাচীন রূপকথা অবলম্বনে তৈরি ২০১০ সালে মুক্তি পাওয়া ‘ট্যাঙ্গেল্ড’ অ্যানিমেশন ছবিটা নতুন করে দেখে ডিজনি ভক্তদের মনে সন্দেহ উঁকি দিয়েছে। অনেকেই ভাবছেন- তবে কি ডিজনি করোনাভাইরাস সম্পর্কে আগেই আঁচ পেয়েছিল? রূপকথার গল্প হলেও বর্তমান করোনা পরিস্থিতির সঙ্গে অদ্ভূত মিল খুঁজে পেয়েছেন ভক্তরা। যেমন- রাজকুমারী রাপুঞ্জেলের জন্মস্থানের নাম করোনা। যদিও করোনার অর্থ সূর্যের আলোকছটা বা জ্যোতির্বলয়। খবর বিডিনিউজের।
যে ডাইনি তাকে চুরি করে এনে বন্দি করে রাখে সে রাপুঞ্জেলকে বলেছিল বাইরের পৃথিবী খুবই বিপজ্জনক তাই বের হওয়া নিষেধ। রাজকুমারীর জীবন কাটে অনেক উঁচু মিনারের ভেতর। তাও আবার ১৮ বছর। সিনেমা ভক্তরা রাপুঞ্জেলের এই একা আটকে থাকার বিষয়টাকে মিলিয়েছেন বর্তমান করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদে থাকার জন্য ঘরে আবদ্ধ থাকার পদ্ধতির সঙ্গে। কি অদ্ভূত মিল- করোনা রাজ্য থেকে দূরে রাখার জন্য রাজকুমারীকে আটকে রাখে ডাইনি। আর এখন করোনাভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে বিশ্বের মানুষ নিজেকেই ঘরে আটকে রাখছে। এদিকে এই ছবি নতুন করে দেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই নিজেদের মন্তব্য জানিয়েছেন।
সিএনএন’য়ে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে টুইটার ব্যবহারকারীদের এরকম মন্তব্য নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ইন্ডির টুইট ছিল এরকম ‘তাহলে তোমরা বলতে চাও রাপুঞ্জেলকে সারাজীবন ‘কোয়ারেন্টাইনে রাখার মানে তার মা তাকে করোনা থেকে লুকিয়ে রেখেছিল।’
নোরা ডোমিনিক টুইটে বলেন, ‘ট্যাঙ্গেল্ড’ আবার দেখলাম। বিশ্বাসই করতে পারছি না রাপুঞ্জেল আক্ষরিক অর্থেই সামাজিক মেলামেশা এড়িয়ে করোনা গ্রাম থেকে দূরের এক মিনারে জীবন কাটাচ্ছিল।’
তবে ১৮ বছর একদম একা থাকা কি আসলেই সম্ভব? রাপুঞ্জেল থেকেছে। এতগুলো বছর তার সময় কেটেছে কীভাবে সেটা কিন্তু গল্পে উল্লেখ নেই। অথচ এখন যারা নিজেদের ঘরে বন্দি করছেন তাদের আপাতত নেটফ্লিঙ দেখা আর খাওয়া ছাড়া যেন কিছু করার নেই। ড্রিয়া টুইট করেন, ‘জানি না রাপুঞ্জেল এতগুলো বছর একা কীভাবে থাকলো। আমি তো মাত্র চারদিন ঘরে থেকে হাপিয়ে উঠছি।’
তার উত্তরে কেইসি নামের একজন টুইট করেন, ‘ছোটখাট কাজ কর। ঘর মুছ। পালিশ করো। কাপড় ধোও। মপ দিয়ে আবার ঘর মুছতে পার। ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বই পড় দিনে কয়েকটা। ছবি আঁকতে পার। গিটার বাজাতে পার। রান্না করতে পার, না পারলে শেখা যেতে পারে ইউটিউব দেখে। আর চিন্তা করতে পার কবে এই জীবন শেষ হবে।’
‘কবে এই জীবন শেষ হবে।’ রাপুঞ্জেলও লিখেছিল এই কথাটি। টুইট করে সেটাও জানিয়ে দিলেন অ্যাশলে লাটিমার। রাজকুমারী বন্দি জীবনে খুঁজে পেয়েছিল জীবনসঙ্গী, এক সত্যিকারের রাজকুমার। যে তাকে বন্দীশালা থেকে মুক্ত করে। তাই তো স্যাম ফিশচারের টুইট, ‘ভুলে যেও না কোয়ারেন্টাইনে থেকেই রাপুঞ্জেল তার ভবিষ্যত স্বামীকে খুঁজে পায়। তাই আশা ছেড় না, ‘থিংক পজিটিভ’।