টেকনাফে বন্দুকযুদ্ধে ২ মাদক কারবারি নিহত

টেকনাফ প্রতিনিধি

শনিবার , ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ১:৩৮ অপরাহ্ণ

টেকনাফে র‌্যাবের হাতে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও অস্ত্রসহ গ্রেফতার মাদক কারবারি নুর হাফিজ এবং তার সহযোগী সোহেল পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে।

তাদের সাথে নিয়ে পুলিশ অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার অভিযানে গেলে বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ৫ পুলিশ সদস্যও আহত হয়।

ঘটনাস্থল হতে বিপুল পরিমাণ মাদক এবং অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

হ্নীলা-হোয়াইক্যংয়ের সবচেয়ে বড় মাদক সিন্ডিকেটের গডফাদার নিহত হওয়ার পর সীমান্তের অপরাধ জগত ভেঙে তছনছ হয়ে পড়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জানা যায়, আজ শনিবার ভোররাতে টেকনাফ মডেল থানার এসআই মশিউর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ র‌্যাব-৭ কর্তৃক ৮ লাখ ১০ হাজার ইয়াবা, ৬টি অস্ত্র ও ৭০ রাউন্ড বুলেটসহ সোর্পদকৃত হ্নীলা রঙ্গীখালীর গাজী পাড়ায় বসবাসরত স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা কারবারি নয়াবাজারের মৃত দিল মোহাম্মদের পুত্র বার্মাইয়া নুর হাফিজ (৩২) এবং সহযোগী সব্বির আহমদের পুত্র মো. সোহেল (২৭) এর স্বীকারোক্তিতে তাদের আস্তানায় অবৈধ অস্ত্র এবং মাদক উদ্ধার অভিযানে যায়।

এসময় নুর হাফিজ সিন্ডিকেটের স্বশস্ত্র সদস্যরা পুলিশের নিকট হতে তাদের ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ করলে পুলিশের এসআই কামরুজ্জামান (৫০), এএসআই সনজিব দত্ত (৩২), মিশকাত উদ্দিন (৩০), কনস্টেবল সিকান্দর আলী (২৩) ও মহিউদ্দিন (২২) আহত হয়।

পুলিশও আত্মরক্ষার্থে বেশ কয়েক রাউন্ড পাল্টা গুলিবর্ষণ করলে কিছুক্ষণ পর হামলাকারীরা পাহাড়ের দিকে পালিয়ে যায়।

তখন পুলিশ ঘটনাস্থল তল্লাশি করে ৯৫ হাজার পিস ইয়াবা, ৬টি দেশীয় তৈরী এলজি, ১৮ রাউন্ড তাজা কার্তুজ ও ১৩ রাউন্ড কালি খোসাসহ গুলিবিদ্ধ নুর হাফিজ এবং সোহেলকে উদ্ধার করে দ্রুত চিকিৎসার জন্য টেকনাফ উপজেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

সেখানে আহত পুলিশ সদস্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে গুলিবিদ্ধ মাদক কারবারিদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়।

সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের মৃত ঘোষণা করেন। মৃতদেহ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।
টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

x