জাঁকজমকের সাথে পালিত হচ্ছে আমিরাতের জাতীয় দিবস

এম এ মন্নান, (আরব আমিরাত) থেকে

সোমবার , ২ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৬:১২ অপরাহ্ণ
24

আজ সোমবার (২ ডিসেম্বর) বিশ্বের অন্যতম অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ ও নিরাপত্তা দেশ সংযুক্ত আরব আমিরাতের ৪৮তম স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস।

১৯৭১ সালের এদিনেই দেশটি সীমানা নির্ধারণের মাধ্যমে ব্রিটেন হতে স্বাধীনতা লাভ করে।

আজ দেশটির জাতীয় দিবস উদযাপিত হচ্ছে জাঁকজমকভাবে। নানা আয়োজনে দিনটি উদযাপন করছেন আমিরাতে সাত লক্ষাধিক দেশীয় প্রবাসীসহ হাজার হাজার ভিন্নদেশীয় প্রবাসীও। আজ জাতীয় ছুটি। তাই সবাই জাতীয় দিবসটি উদযাপনে মেতে উঠেছেন।

জাতীয় দিবসকে ঘিরে সপ্তাহ দুয়েক আগে থেকেই আমিরাতের শহরগুলোকে অপরূপ সাজে সজ্জিত করা হয়েছে। আমিরাতের প্রধান প্রধান সড়কে টানানো হয়েছে জাতীয় পতাকা ও জাতীয পতাকার রঙ সম্বলিত ব্যানার, ফেস্টুন আর রঙ-বেরঙের লাইটিং। সড়কের মাঝখানে লাইট পোস্টগুলো সাজানো হয়েছে ঝলমলে লাইট দিয়ে। শহরের বড় বড় টাওয়ার, মার্কেট ও শপিংমলগুলোতে করা হয়েছে বর্ণাঢ্য চোখ ধাঁধানো আলোকসজ্জা। আমিরাতিসহ প্রবাসীদের অনেক গাড়ি নানান সাজে সজ্জিত করা হয়েছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাত সংক্ষেপে ইউএই একটি মরুময় দেশ। রাজধানীর নাম আবুধাবি। সবচেয়ে বড় শহর দুবাই। সংযুক্ত আরব আমিরাতের উত্তরে পারস্য উপসাগর, দক্ষিণ ও পশ্চিমে সৌদি আরব (কিঞ্চিৎ কাতার) এবং পূর্বে ওমান ও ওমান উপসাগর।

স্বাধীনতা লাভের পরপরই ৬টি প্রদেশ এবং পরে আরো ১টি প্রদেশসহ মোট ৭টি প্রদেশ বা আমিরাত নিয়ে গঠন করা হয় সংযুক্ত আরব আমিরাত। এই ৭টি আমিরাতের বা প্রদেশের নাম হলো যথাক্রমে আবুধাবি, দুবাই, শারজাহ, আজমান, উম্মুল কুয়াইন, ফুজিরা ও রাস আল খায়মা। আল আইনটি একটি প্রদেশের মতো হলেও এটি আবুধাবির উপ-প্রদেশ বা উপ-শহর।

স্বাধীনতা লাভের পরপরই সংযুক্ত আমিরাতের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট শেখ জায়েদের সুদক্ষ নেতৃত্বে দেশটি এগিয়ে যেতে থাকে। ১৯৮০ সালের দিকে তেলের সন্ধান লাভের পরপরই সংযুক্ত আরব আমিরাত হয়ে উঠে একটি অন্যতম তেল রপ্তানিকারক দেশ হিসেবে। তার বিচক্ষণ নেতৃত্বে দ্রুত পাল্টে যেতে থাকে দেশের অবকাঠামো। উন্নতির শিখরে এসে পৌঁছে দেশটি।

সংযুক্ত আরব আমিরাত এখন মধ্যপ্রাচ্যের এক নম্বর আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে।আমিরাতের বৃহত্তম শহর দুবাইতে নির্মিত হয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু টাওয়ার। বিশ্বের সর্ববৃহৎ এয়ারপোর্ট (আল মাকতুম এয়ারপোর্ট দুবাইতে নির্মাণাধীন), বিশ্বের রেকর্ডসংখ্যক তাজা ফুলের বাগান মিরাক্কেল গার্ডেনসহ অনেক স্থাপত্য ইউএইকে পরিচিত করেছে বিশ্বব্যাপী। দুই কোটিরও বেশি পর্যটক আসেন প্রতি বছর এ দেশে। নিরাপত্তার দিক থেকেও সংযুক্ত আরব আমিরাত এক নম্বর নিরাপত্তার দেশ হিসেবে উঠে এসেছে।

নানান কর্মসূচীতে দিনটি পালিত হচ্ছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো এয়ার শো, কার র‌্যালি, আলোকসজ্জা, লেজার শো। উৎসবের আমেজে নানা কর্মসূচি নিয়ে দিনটি উদযাপন করছেন প্রবাসী বাংলাদেশীরাও।

x