ছেলেদের ঈদ ফ্যাশন

ফাইয়াজ আহমেদ

রবিবার , ১৯ মে, ২০১৯ at ৪:১৩ পূর্বাহ্ণ
287

ফ্যাশন সচেতন সব তরুণই এখন আধুনিক ডিজাইনের পোশাক পরতে বেশি আগ্রহী। তাই ছেলেদের পোশাক ট্রেন্ডে পরিবর্তন এসেছে বিভিন্ন সময়ে ডিজাইনে, কাটিংয়ে এবং প্যাটার্নে। ফ্যাশন সবসময় পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যায়। তবে ছেলেদের পোশাকের পরিবর্তনটা হয় ধীরে ধীরে। হঠাৎ করে চোখে পড়ে না। এবারের ঈদে ছেলেদের ফ্যাশনে রয়েছে নতুনত্ব।
ঈদসহ যেকোনো অনুষ্ঠানে ছেলেদের পাঞ্জাবি বা কুর্তা পরার চল রয়েছে আমাদের দেশে। এবারের ঈদেও সেই ধারা অব্যাহত থাকবে। তবে রেগুলার ড্রেস হিসেবে শার্ট, টি-শার্ট বা ফতুয়ার কদরও কম নেই। যদিও এ বছর ছেলেদের পোশাক ট্রেন্ডে খুব একটা পরিবর্তন আসেনি। বিশেষ করে কাটিং ও প্যাটার্নে। তবে দু’তিন বছর ধরে চলে আসা ছেলেদের পোশাক ট্রেন্ডে দেশীয় ডিজাইন প্রাধান্য লক্ষ করা গেছে। পাশাপাশি ফিউশনধর্মী পোশাকের দাপটও চোখে পড়েছে। তবে হুবহু পশ্চিমা ধাঁচের নয়, ডিজাইন পরিবর্তন করে দেশে পরার উপযোগী করেছেন ডিজাইনাররা। ফ্যাশনের মূলত দু’টি ধারা- ট্র্যাডিশনাল ও ফিউশন। মানুষও এই দুই ধারায় পোশাক পরতেই পছন্দ করে। তবে ফ্যাশনে এখন ফিউশনের জয়জয়কার। গত কয়েক বছরের ফ্যাশনের দিকে তাকালে বোঝা যায়, পোশাকের চেয়ে বেশি পরিবর্তন এসেছে পোশাকের অলঙ্করণে ব্যবহৃত নানা উপাদানে।
আমাদের ফ্যাশন জগৎ মূলত ঈদ, পূজা ও পয়লা বৈশাখকে কেন্দ্র করেই আবর্তিত হয়। এসব উৎসবের সময় আবহাওয়া বেশ উষ্ণ থাকে। তাই একেবারে আঁটসাঁট নয়, একটু ঢিলেঢালা পোশাকের প্রতি আগ্রহ থাকে ফ্যাশনপ্রেমীদের। আর উৎসবের সময় থিমভিত্তিক পোশাকের চাহিদা থাকে বেশ। এবারের ঈদের পোশাকে তিনটি থিমভিত্তিক মোটিফের ব্যবহার বেড়েছে। এগুলো হচ্ছে- ইসলামিক, জ্যামিতিক ও ফ্লোরাল। এর পাশাপাশি আমাদের দেশে সবসময় আবহাওয়ার কথা মাথায় রেখেই পোশাক নির্বাচন করতে হয়। এখন গ্রীষ্মের হাত ধরে প্রকৃতি উত্তপ্ত হচ্ছে আর বাড়ছে গরমের তীব্রতা। তাই খেয়াল রাখতে হবে, গরমে ঈদের পোশাকটি যেন কোনোভাবেই অস্বস্তির কারণ না হয়। গরমে আরামদায়ক পোশাকের পাশাপাশি নিজের রুচির বিষয়টিও মাথায় রাখতে হবে। একই সাথে আমাদের দেশি ফ্যাশন হাউজগুলোও সব সময়ই সময়োপযোগী পোশাক তৈরি করে থাকে। আমাদের দেশি ফ্যাশন হাউজগুলো এখন ব্যস্ত সময় পার করছে ঈদের পোশাক প্রস্তুতি নিয়ে।
এ বছর ছেলেদের ঈদের পোশাক ট্রেন্ডে পাঞ্জাবি, কুর্তা, শার্ট, টি-শার্ট, ফতুয়ার পাশাপাশি যোগ হয়েছে কাবলি সেট।
ঈদের পোশাক প্রস্তুতি এবং ফ্যাশন ট্রেন্ড সম্পর্কে ফ্যাশন হাউজ জেন্টেল পার্কের ডিজাইনার জাহিদ হোসেন আকাশ জানান, গত কয়েক বছর ধরে ছেলেদের পোশাক ট্রেন্ড প্রায় একই রকম রয়েছে। কাটিং বা প্যাটার্নে তেমন কোনো পরিবর্তন আসেনি। ঈদের ট্রেন্ডে পাঞ্জাবির চলটা সবসময়ই থাকে। তবে এবার ভিন্নধর্মী কিছু পাঞ্জাবি ফ্যাশনপ্রেমীদের জন্য তৈরি করা হয়েছে। পাঞ্জাবির পাশাপাশি থাকছে কাবলি সেট। অবশ্য কাবলি সেট খুব কম ছেলেই পরেন। এবারের ঈদে ছেলেদের ক্যাজুয়াল পোশাকে কিছুটা বৈচিত্র্য এসেছে। কাটিংয়ের ক্ষেত্রে ফিউশনকাট এবং অ্যাঙ্গেলকাট দিয়ে পোশাক তৈরি করছেন ডিজাইনাররা। পোশাকে রঙের ক্ষেত্রে এককালার এবং গাঢ় রঙ প্রাধান্য পেয়েছে। তবে এক কালারের পাশাপাশি স্ট্রাইপ ও ছোট ছোট চেকের প্রাধান্য থাকবে ক্যাজুয়াল পোশাকে। এ ছাড়া বৈচিত্র্য এসেছে কালারের শেডে। আর গরমে কাপড়কে আরামদায়ক রাখতে নরমাল বা গার্মেন্ট ওয়াশ করা হচ্ছে।
ফ্যাশন হাউজ ডিমান্ডের স্বত্বাধিকারী রাসেল জানান, এ বছর ছেলেদের পোশাক ট্রেন্ডে খুব একটা পরিবর্তন আসেনি। বিশেষ করে কাটিং বা প্যাটার্নে। তবে সুক্ষ কিছু পরিবর্তন এসেছে ভ্যালু অ্যাডিশনে। এ ছাড়া শার্ট, টি-শার্ট, পাঞ্জাবি, কুর্তা বা ফতুয়ার প্রচলন রয়েছে। প্রিন্টেড শার্টের চাহিদা রয়েছে। পাঞ্জাবির লুকে নানা পরিবর্তন দেখা যেতে পারে। এ ছাড়া নেক লাইন, বর্ডার, এগুলোতে ডিজিটাল প্রিন্টের ছোঁয়া থাকবে। যেহেতু বেশ কয়েক বছর ধরেই গরম এবং বর্ষায় রোজার ঈদ হচ্ছে, এ জন্য আরামদায়ক পোশাকের দিকেই বিশেষ নজর দিয়ে ঈদের পোশাক তৈরি করছে ফ্যাশন হাউজগুলো। এ ক্ষেত্রে সুতি বা সেমি ভয়েল গুরুত্বটা বেশি পাচ্ছে। ছেলেদের পোশাকে প্রিন্টের পাশাপাশি এক কালার প্রাধান্য পেয়েছে।

x