চিনিযুক্ত পানীয় ক্যান্সারের কারণ!

শুক্রবার , ১২ জুলাই, ২০১৯ at ১০:৩২ পূর্বাহ্ণ
34

ফরাসি বিজ্ঞানীরা বলছেন, ফলের রস ও ফিজি ড্রিংকের মতো চিনিযুক্ত পানীয় খেলে ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে। পাঁচ বছর ধরে এক লাখেরও বেশি মানুষের ওপর গবেষণা চালিয়ে বিজ্ঞানীরা এই ধারণা পেয়েছেন। গবেষণার ফলাফল ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে।
প্যারিসে সরবোন বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক মনে করছেন, রক্তে চিনির মাত্রা বেড়ে যাওয়াই ক্যান্সারের জন্যে দায়ী হতে পারে। তবে, গবেষণায় এ রকম কোনো সুনির্দিষ্ট প্রমাণ পাওয়া যায়নি, যার ভিত্তিতে এটাকে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত বলে বিবেচনা করা যেতে পারে। এ কারণে বিশেষজ্ঞরা আরো গবেষণার ওপর জোর দিয়েছেন। খবর বিবিসির।
যেসব পানীয়তে ৫% এর বেশি চিনি আছে গবেষকরা সেগুলোকে চিনিযুক্ত পানীয় বলে বিবেচনা করেছেন। এসবের মধ্যে আছে ফলের রস, সফট ড্রিংক, মিষ্টি মিল্কশেক, এনার্জি ড্রিংক এবং চিনি দেওয়া চা ও কফি।
গবেষকরা বাজারে জিরো-ক্যালোরি বলে যেসব পানীয় বিক্রি হয় সেসব ডায়েট ড্রিংক নিয়েও পরীক্ষা চালিয়েছেন এবং দেখেছেন এগুলোর সাথে ক্যান্সারের কোনো সম্পর্ক নেই। এসব পানীয়তে চিনির বদলে কৃত্রিম সুইটেনার মেশানো হয়।
গবেষণায় বলা হয়েছে, দিনে যদি ১০০ মিলিলিটার চিনিযুক্ত পানীয় খাওয়া হয়, যা সপ্তাহে দুই ক্যান পানীয়র সমান, তাহলে ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি ১৮% বেড়ে যায়। এ রকম প্রতি ১,০০০ জনে ২২ জন ক্যান্সার রোগী পাওয়া গেছে।
যুক্তরাজ্যে ক্যান্সার গবেষণা সংস্থা ক্যান্সার রিসার্চ ইউকের শীর্ষস্থানীয় বিজ্ঞানী ড. গ্রাহাম হুইলার বলেন, এ থেকে ধারণা করা যায়, চিনিযুক্ত পানীয় খাওয়ার সাথে ক্যান্সারের একটি সম্পর্ক আছে। তবে এ বিষয়ে আরো বিশদ গবেষণার প্রয়োজন রয়েছে।
এই গবেষণার সময় মোট ২,১৯৩ জন ক্যান্সার রোগী পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে ৬৯৩ জন স্তন ক্যান্সার, ২৯১ জন প্রোস্টেট ক্যান্সার এবং ১৬৬ জন মলনালী সংক্রান্ত বা কোলোরেক্টাল ক্যান্সারে আক্রান্ত।
যেভাবে এই গবেষণাটি পরিচালিত হয়েছে তা থেকে এর একটি ধরন চিহ্নিত করা যায়। কিন্তু এসব পরিসংখ্যান থেকে এর কোনো ব্যাখ্যা পাওয়া যায় না। চিনিযুক্ত পানীয় বেশি পান করার কারণে যে ক্যান্সারের রোগী বেশি পাওয়া গেছে গবেষণায় সেটি দেখা যায়নি। তাতে বলা হয়নি যারা বেশি পান করেছে (দিনে প্রায় ১৮৫ মিলিলিটার) তাদের মধ্যে ক্যান্সার রোগীর সংখ্যা যারা কম পান করেছে (দিনে ৩০ মিলিলিটারেরও কম) তাদের তুলনায় বেশি।
তবে যারা চিনিযুক্ত পানীয় বেশি খান তাদের মধ্যে আরো কিছু শারীরিক সমস্যা দেখা যেতে পারে, যেসব থেকে ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায়।
টেসাইড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. অ্যামেলিয়া লেক বলেন, গবেষণাটি যদিও ক্যান্সার ও চিনিযুক্ত পানীয়র মধ্যে সম্পর্কের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো উত্তর দেয়নি, তারপরেও চিনি খাওয়া যে কমিয়ে দেওয়া দরকার, এই গবেষণায় সেই গুরুত্ব উঠে এসেছে। আমাদের প্রতিদিনের ডায়েটে চিনি খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দেওয়া খুবই জরুরি।

x