চন্দনাইশে স্থগিত ২ কেন্দ্রের পুনঃনির্বাচনে বাধা নেই

আপিল বিভাগের আদেশ

চন্দনাইশ প্রতিনিধি

শুক্রবার , ১৯ এপ্রিল, ২০১৯ at ৭:২৭ পূর্বাহ্ণ

চন্দনাইশ উপজেলা নির্বাচনে স্থগিত ২ কেন্দ্রের পুনঃনির্বাচনের উপর হাইকোর্টের দেয়া স্থগিতাদেশ বাতিল করে আদেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। গত ১৬ এপ্রিল হাইকোর্টের দেয়া স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে গতকাল ১৮ এপ্রিল স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল জব্বার চৌধুরীর করা আপিলের শুনানী শেষে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে গঠিত ৭ জন বিচারপতির পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ দেন। ফলে চন্দনাইশ উপজেলা নির্বাচনে স্থগিত ২ কেন্দ্রের পুন:নির্বাচনে আর কোন বাধা রইল না।
জানা যায়, গত ২৪ মার্চ অনুষ্ঠিত চন্দনাইশ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে স্থগিত ২ কেন্দ্রের পুন:নির্বাচন গত ১৭ এপ্রিল তারিখ ঘোষণা করা হয়। এজন্য নির্বাচন কমিশন ও উপজেলা প্রশাসন সকল প্রস্তুতিও সম্পন্ন করেন। কিন্তু গত ১৬ এপ্রিল আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী একেএম নাজিম উদ্দীন নির্বাচন স্থগিত চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন দায়ের করেন। শুনানী শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি জেবিএম হাসান নির্বাচনে ২ সপ্তাহের স্থগিতাদেশ দেন। তিনি একইসাথে আগামী ২ সপ্তাহের মধ্যে স্থগিত কেন্দ্রের ব্যাপারে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার আদেশ দেন।
এদিকে রিট আবেদনের ৫নং প্রতিপক্ষ স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল জব্বার চৌধুরী সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ প্রত্যাহার চেয়ে গতকাল ১৮ এপ্রিল আপিল করেন। শুনানী শেষে হাইকোর্টের দেয়া স্থগিতাদেশ বাতিলের আদেশ হয়। আবদুল জব্বার চৌধুরীর পক্ষে শুনানীতে অংশ নেন অ্যাডভোকেট ছৈয়দ মাহাবুবুর রহমান।
এব্যাপারে সহকারি রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ ন ম বদরুদ্দোজা বলেন, এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত স্থগিত ২ কেন্দ্রের নির্বাচনে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের স্থগিতাদেশ বাতিলের কোন কপি তার হাতে আসেনি। তবে নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনামতে- পরবর্তীতে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা এবং নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়া হবে বলেও তিনি সাংবাদিকদের জানান।
উল্লেখ্য, গত ২৪ মার্চ অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার চৌধুরী (দোয়াত কলম) প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী একেএম নাজিম উদ্দীনের চেয়ে ২ হাজার ৬৩৪ ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন। ৮৪ কেন্দ্রের ৮২টি কেন্দ্রের ফলাফলে আবদুল জব্বার চৌধুরী পেয়েছেন ২২ হাজার ২৮১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি একেএম নাজিম উদ্দীন পেয়েছেন ১৯ হাজার ৬৪৭ ভোট। স্থগিত ২টি কেন্দ্রের মোট ভোটার ৪ হাজার ৪০৯ জন। ফলে এগিয়ে থাকা প্রার্থীর ভোটের চেয়ে স্থগিত ২ কেন্দ্রের ভোটার বেশি হওয়ায় ফলাফলও স্থগিত হয়ে যায়।

x