চট্টলবীর মহিউদ্দীন চৌধুরী স্মরণে

মোঃ খোরশেদ আলম

শুক্রবার , ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৫:৪০ পূর্বাহ্ণ

১৫ ডিসেম্বর’১৯ চট্টলবীর এ.বি.এম মহিউদ্দীন চৌধুরীর ২য় মৃত্যুবার্ষিকী। গত ১লা ডিসেম্বর’১৯ খ্রি. গেল তাঁর ৭৫ তম জন্ম বার্ষিকী। বেঁচে থাকলে বটবৃক্ষের ছায়া হিসেবে থাকতেন চট্টগ্রামের মানুষের। পিতা-হোসেন আহমদ চৌধুরী মাতা-বেদুরা বেগম এর ৮ সন্তানের মধ্যে মহিউদ্দীন চৌধুরী ছিলেন ২য়, ১৯৪৪ সালের ১লা ডিসেম্বর রাউজান উপজেলা গহিরা গ্রামে এই কিংবদন্তী নেতার জন্ম। মৃত্যুর আগপর্যন্ত জীবনের অনেকগুলো বছর নির্ঘুম চোখ আর নির্ভেজাল ভালোবাসা দিয়ে মানবসেবা করেছেন তিনি। একজন মানবতাবাদী নেতার কথা যদি লিখতে হয় তাহলে মহিউদ্দীন চৌধুরীর নাম সবার আগে আসে। ’৬০ এর দশকের তুখোড় ছাত্র নেতা। মহিউদ্দীন চৌধুরীর পিতা হোসেন আহমদ চৌধুরী চাকরি করতেন আসাম রেলওয়েতে। সেই সুবাদে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে তাকে ঘুরে বেড়াতে হয়েছে। মেট্টিক পাস করেন মাইজদী সরকারি স্কুল থেকে। পিতার স্বপ্ন ছিল ছেলে বড় হয়ে ইঞ্জিনিয়ার হবেন। তাইতো ভর্তি হয়েছেন ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে। সেখান থেকে চট্টগ্রাম তথা বাংলাদেশের সেরা বিদ্যাপীঠ চট্টগ্রাম সরকারি কলেজে ভর্তি হলেন। এর কিছুদিন পরে সরকারি বাণিজ্য কলেজে অবশেষে চট্টগ্রামের ছাত্র আন্দোলনের সুতিকাগার সিটি কলেজে ভর্তি হয়ে শুরু করেন তাঁর সংগ্রামী বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন। ষাটের দশকে এস.এস.সি ও এইচ.এস.সি পাস করেন। ’৬৮ সালে স্নাতক ডিগ্রী, এর পর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় হতে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতিক বিভাগে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। ’৬২ সালে কুখ্যাত হামিদুর রহমানের শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে ও ’৬৪ সালে সামপ্রদায়িক সমপ্রীতি রক্ষা আন্দোলনে তাঁর ভূমিকা ছিল প্রশংসনীয়। ’৬৬ এর ছয়দফা আন্দোলনে মরহুম এম.এ আজিজ ও জহুর আহম্মদ চৌধুরীর সান্নিধ্যে থেকে ধীরে ধীরে রাজনীতিতে নিজস্ব বলয় সৃষ্টি করেন মহিউদ্দীন ভাই। ’৬৮ সালে চট্টগ্রাম শহর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হলেন তার সাথে সভাপতি ছিলেন বাঁশখালীর কৃতী সন্তান বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী শহীদ মৌলভী সৈয়দ আহমদ। ’৬৯ এর গণ আন্দোলনে শহর ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্ব প্রদান করেন তিনি। ’৭০ এর নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থীদের বিজয়ী করাতে হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করেন। ’৭১ এর মহান মুক্তি সংগ্রামে প্রত্যক্ষ নেতৃত্ব দিয়েছেন। ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার পর প্রতিবাদী হয়ে উঠেন মহিউদ্দীন চৌধুরী। সেই সময় অনেকেই দলের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিলেন। খন্দকার মোস্তাক আর খুনী জিয়ার সাথে আতাত করে রাজনৈতিক ও সামাজিক ভাবে অনেক ফায়দা নিয়েছিলেন। নীতি আদর্শের প্রশ্নে অন্যায় এর কাছে মাথানত করেননি এই বীর। শুরু হলো নতুন উদ্যোমে আন্দোলন সংগ্রাম। মানুষের অধিকারের কথা বলতে গিয়ে বারবার কারা নির্যাতন ভোগ করেন। খন্দকার মোস্তাক আর জিয়ার দুঃশাসনের প্রতিবাদ করতে গিয়ে গ্রেফতার হয়ে দীর্ঘদিন কারা ভোগের পর অবশেষে অর্ধ পাগল অবস্থায় মুক্তি পেলেন। ’৮০ দশকে চট্টগ্রামের শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তাঁর সময়ে সভাপতি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সাবেক মন্ত্রী মরহুম এম.এ. মান্নান। ১৯৮৬ সালে নিজ এলাকা রাউজান থেকে ১ম দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করেন। স্বৈরাচার এরশাদ এর ভোট ডাকাতি ও চর দখলের মত কেন্দ্র দখল করে নির্বাচিত হলেন যুদ্ধাপরাধী সাকা চৌধুরী। থেমে ছিলেন না মহিউদ্দীন ভাই। ’৯১ সালে কোতোয়ালী আসন থেকে আবারো মনোনয়ন পেলেন কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস বাকশাল থেকে কাস্তে মার্কায় নির্বাচন করলেন সিরাজ মিয়া। ভোটের হিসাব নিকাশে আবারো পরাজিত হলেন মহিউদ্দীন ভাই। ১৯৯৩ সালে বন্দরটিলা ট্রাজেডির কথা আমরা অনেকেই জানি নৌবাহিনীর সাথে এলাকার সাধারণ মানুষের একটি সংঘাতে বহুলোক হতাহত হয়েছিলেন। সেই সময় নিহত মানুষের লাশ দাফন সহ সব ধরনের কাজে মহিউদ্দীন চৌধুরী সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ান তাঁর সেই কর্মকান্ডে দেশ জুড়ে তিনি প্রশংসিত হয়েছিলেন। অবশেষে দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর সেই খুশির দিন এলো ১৯৯৪ সালে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন মেয়র নির্বাচনে লক্ষাধিক ভোটে পরাজিত করলেন ক্ষমতাসীন বি.এন.পি ও চার দলীয় জোটের প্রার্থী এড. মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন কে। দেশ জুড়ে খুশির বন্যায় ভাসছিলো আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা। মানুষের ভোটের অধিকার ফিরে পায় ও অন্যায়ের বিরুদ্ধে ন্যায় প্রতিষ্ঠিত হয়। ঐ সময় বাবু ভাই, নাছির ভাই (বর্তমান মেয়র) জোট সরকারের একটি ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলায় দেশ ত্যাগে বাধ্য হন। নাছির ভাই কলকাতা থেকে আমাকে ফোনে বলেছিলেন মহিউদ্দীন ভাইয়ের পক্ষে নির্বাচনে কাজ করতে। আধাজল খেয়ে আমরা ভোট যুদ্ধে নেমে পড়ি। নির্বাচনের সময়ে আন্দরকিল্লা মোড়ে নাগরিক কমিটির উদ্যোগে মহিউদ্দীন ভাইয়ের নির্বাচনী প্রচারণা সভা হয়েছিল। সেই সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দলের সভাপতি (বর্তমান প্রধানমন্ত্রী) জননেত্রী শেখ হাসিনা এবং আরো উপস্থিত ছিলেন আব্দুস সামাদ আজাদ, ওবায়দুল কাদের, আ.ফ.ম বাহাউদ্দীন নাসিম, ইছহাক মিয়া, নুরুল ইসলাম বি.এস.সি, মরহুমা আইভী রহমানসহ স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। সভাটি পরিচালনা করেছিলাম আমি। মহিউদ্দীন ভাই শুধু রাজনৈতিক নেতা ছিলেন না তিনি ছিলেন একটি রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান সৃজনশীল রাজনৈতিক কর্মীগড়ার কারিগর। কখনও গালি দিতেন আবার কখনো আদর করে কাছে ডেকে নিতেন এই ছিল তাঁর চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য। ’৯৫ সালে খালেদা পতন আন্দোলনে ঢাকার পান্থপথে বিশাল সমাবেশ হলো। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অনেক বড় নেতারা সেখানে বক্তব্য রেখেছিলেন চট্টলবীর মহিউদ্দীন ভাই যখন বক্তব্য দিতে উঠলেন তখন করতালি আর স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত হলো ঢাকার আকাশ বাতাস, প্রিয় নেতাকে একনজর দেখার জন্য। মানুষের ভীড় লেগে গেলো সভা মঞ্চের আশেপাশে। ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে এসে আবারো গ্রেফতার হলেন মহিউদ্দীন ভাই এবার চট্টগ্রামের সাধারণ মানুষসহ দলমত নির্বিশেষে সকলেই রাজপথে নেমে এসে সমগ্র চট্টগ্রাম অচল করে দিলেন। খালেদা সরকার বাধ্য হলেন তাকে ছেড়ে দিতে। মহিউদ্দীন চৌধুরী একটি মানবতাবাদী প্রতিষ্ঠানের নাম। জীবন যৌবনের বেশিরভাগ সময় মানুষের মঙ্গলে কাটিয়েছেন। ১৯৯৯ সালে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বাঁশখালী জলদী পাইলট স্কুলের মাঠে উপজেলা আওয়ামী লীগের জনসভায় এসেছিলন, সেই সভাটি আমি সঞ্চালনা করি। বর্তমান এমপি মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে নেত্রী মঞ্চে এসেই আমার কাছ থেকে বক্তাদের তালিকা নিয়ে সমস্ত বক্তার নাম কেটেদিলেন সময়ের স্বল্পতার কারণে, তবুও আমি মহিউদ্দীন ভাইয়ের নাম মাইকে ঘোষণা করে দিলাম। এর পর নেত্রী আমাকে ডেকে বললেন তুমি কি মহিউদ্দীন ভাইয়ের লোক? আমি তো জানি তুমি বাবু ভাইয়ের লোক, মহিউদ্দিন ভাইয়ের প্রতি আমার প্রচন্ড দুর্বলতা ছিল যদিও গ্রুপ রাজনীতি আমরা নাছির ভাইয়ের সাথে করতাম। স্কুল পালানো ছেলে যেমন নজরুল (বিদ্রোহী কবি) হবে না, তেমনি শত আন্দোলন সংগ্রামের পরও একজন মহিউদ্দীন চৌধুরীর জন্ম হবে না।
২০০১ সালে বিএনপি চারদলীয় জোট সরকার দ্বিতীয় বার ক্ষমতায় এসে সংখ্যালঘু ও আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের উপর নির্যাতনের স্ট্রীম রোলার চালানো শুরু করে, ঐসময়ে বাঁশখালী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী একাধিক মামলার হুলিয়া নিয়ে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় হলিক্রিসেন্ট হাসপাতালে ভর্তি হন। ঐ সময় নেতাকর্মীদের খবর নেওয়ার কেউ ছিলো না। মহিউদ্দীন ভাই ব্যক্তিগত উদ্যোগে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁকে ভারতে পাঠিয়েছিলেন।
২০০৭ সালে ৭ই মার্চ মহিউদ্দীন চৌধুরী শেষ বারের মত গ্রেফতার হয়ে দীর্ঘ ১৯ মাস কারানির্যাতন ভোগ করে ২০০৮ সালের ৮ অক্টোবর কারাগার থেকে মুক্তি পান। ঐ সময় তাঁর মেয়ে টুম্পা ব্যাংককে একটি হাসপাতালে দুরারোগ্য ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিলেন। ২০০৮ সালের ১৮ অক্টোবর টুম্পা মৃত্যুবরণ করেন। মেয়ের অকাল মৃত্যুতে নির্বাক হয়ে যান তিনি। অনেকে মনে করেন মহিউদ্দীন ভাই কঠিন হৃদয়ের মানুষ কিন্তু আমি দেখেছি কন্যা শোকে তিনি বার বার মুর্ছা যাচ্ছিলেন চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে। ২০০৬ সালে এক মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় আমার ছেলে মিনহাজুল আলম মারা যায়। আমাকে জড়িয়ে ধরে মহিউদ্দীন ভাই বলেছিলেন পৃথিবীর সবচেয়ে ভারী বস্তু হলো সন্তানের লাশ পিতার কাঁধে উঠানো। সন্তান হারানোর বেদনা আমি কোন দিন ভুলতে পারবো না। অত্যন্ত অতিথিপরায়ণ ছিলেন মহিউদ্দীন ভাই, খালিমুখে ঘর থেকে কোন মেহমানকে যেতে দিতেন না তিনি।
২০১৭ সালে ১৫ ডিসেম্বর পৃথিবীর সব মায়া ছেড়ে তিনি চলে যান না ফেরার দেশে। আজ বারবার তাঁর কথা মনে পড়ছে। তিনি আমাকে অত্যন্ত স্নেহ করতেন, চন্দনপুরা আমাদের কিছু জমি (প্রায় ৩৫ শতক) কয়েকটি বিল্ডিং জামাতের লোকজন ও স্থানীয় প্রভাবশালী মহল জোরপূর্বক দীর্ঘদিন দখল করে রাখেন। আইনগত সহায়তাও সিটি কর্পোরেশন ঝুঁকিপূর্ণ ভবন হিসাবে চিহ্নিত করে সেটা ভেঙে দিলে সেই জমি আমাদের দখলে আসে। সেই উপকারের কথা কোন দিন ভুলতে পারবোনা। কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে ঋণ শোধ হবে না। তাঁর জানাজায় চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মানুষের ঢল নেমেছিল। সেই জানাজার নামাজে কত লোক সমাগম হয়েছিল সঠিকভাবে কেউ তা বলতে পারবে না। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল নোমান একটি টেলিভিশন সাক্ষাতে বলেছিলেন, মহিউদ্দীন ছিলেন গণমানুষের নেতা। তাঁর মৃত্যুতে চট্টগ্রামের মানুষের যে ক্ষতি হয়েছে তা পূরণ হবার নয়। আসুন আমরা সকলে মিলে মহিউদ্দীন ভাইয়ের জন্যে দোয়া করি এবং তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি আল্লাহ যেন তাঁকে জান্নাতবাসী করেন। আমিন।
লেখক: শ্রম সম্পাদক, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ।

x