গণিত, উচ্চতর গণিত সৃজনশীল প্রশ্ন প্রণয়ন

সুপ্লব কান্তি দত্ত

শনিবার , ৩ মার্চ, ২০১৮ at ৯:৫৫ পূর্বাহ্ণ
877

সৃজনশীল অভীক্ষা/ প্রশ্ন প্রণয়ন

সৃজনশীল প্রশ্ন হচ্ছে সুনির্দিষ্ট কাঠামো অনুসরণে শিক্ষার্থীর বুদ্ধিবৃত্তিক দক্ষতার বিভিন্ন স্তর ভিত্তিক শিখন অর্জন যাচাইয়ের বা মূল্যায়নের জন্য বিশেষ ধরনের অভীক্ষা, যা একটি নৈর্ব্যক্তিক পদ্ধতি। সৃজনশীল প্রশ্নের প্রথম অংশ শুরু হয় একটি উদ্দীপক বা দৃশ্যপট দিয়ে। দ্বিতীয় অংশে থাকে উদ্দীপকে সংশ্লিষ্ট তিনটি প্রশ্ন যাতে বিভিন্ন স্তরের বুদ্ধিবৃত্তীয় দক্ষতা মূল্যায়ন করা যায়।

সৃজনশীল প্রশ্নের গঠন কাঠামো

একটি সৃজনশীল প্রশ্নের শুরুতে একটি নতুন পরিস্থিতিমুক্ত উদ্দীপক এবং উদ্দীপক সংশ্লিষ্ট তিনটি প্রশ্ন থাকে। প্রশ্ন তিনটি কাঠিন্যের ক্রমানুসারে সাজানো থাকে সহজ, মধ্যম ও কঠিন। চিন্তার গভীরতা বহুমাত্রিকতা, সময় এবং ধাপের উপর নির্ভর করে এই কাঠিন্যের স্তর নির্ধারণ করা হয়। একটি সৃজনশীল প্রশ্নের মাধ্যমে কাঠিন্যের বিভিন্ন স্তর যাচাই করা যায়। প্রতিটি সৃজনশীল প্রশ্নের জন্য ১০ (দশ) নম্বর বরাদ্দ থাকবে।

সহজ স্তর

একজন শিক্ষার্থী () মিনিট ব্যয় করে যে প্রশ্নের উত্তর সমাপ্ত করতে পারে সেই প্রশ্নটি হলো সহজ। এই অংশের প্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে উদ্দীপকের উপর নির্ভরশীলতা থাকা বাঞ্ছনীয়। তবে গণিতের তত্ত্ব, তথ্য, সূত্র, নিয়মনীতি ইত্যাদি জানতে চাওয়া হলে এই অংশের প্রশ্নের উত্তর দেয়ার ক্ষেত্রে উদ্দীপকের উপর সরাসরি নির্ভরশীলতা নাও থাকতে পারে। তবে পরনির্ভরশীলতা থাকতে হবে। এই অংশের জন্য ২ নম্বর বরাদ্দ থাকবে। এই অংশের প্রশ্নের উত্তরের ক্ষেত্রে ন্যূনতম দুটি ধাপ থাকতে হবে। এখানে ধাপ বলতে সুনির্দিষ্ট শিখন ফলকে বোঝানো হয়েছে।

মধ্যম স্তর

যে অংশের প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার ক্ষেত্রে ন্যূনতম ৪টি ধাপ থাকা বাঞ্ছনীয় এবং ৬৮ মিনিটের মধ্যে উত্তর দিতে সক্ষম হবে। সেই প্রশ্নকে মধ্যম স্তর বলে। উদ্দীপকের সাহায্য ছাড়া এই অংশের প্রশ্নের উত্তর দেয়া যাবে না, এই অংশের প্রশ্নের উত্তরের ক্ষেত্রে একজন শিক্ষার্থীর চিন্তার গভীরতা বহুমাত্রিকতা প্রথম অংশের চেয়ে বেশি হতে হবে। প্রশ্ন প্রণয়নের সময় বিবেচনা করতে হবে যেন শিক্ষার্থীর উত্তরের মধ্যে পাঠ্যপুস্তকের এক বা একাধিক তত্ত্ব, তথ্য, ধারণা, নিয়ম নীতি, সূত্র ইত্যাদি প্রয়োগের সুযোগ থাকে। এই অংশের জন্য নম্বর বরাদ্দ হবে ৪।

কঠিন স্তর

যে অংশের প্রশ্ন সরাসরি উদ্দীপক নির্ভর, একাধিক বিষয় বস্তু আলোকে শিক্ষার্থীর চিন্তার গভীরতা/ বহুমাত্রিকতা বেশি, ন্যূনতম ৪টি ধাপ থাকে এবং শিক্ষার্থী ৯১১ মিনিট সময়ের মধ্যে উত্তর দিতে সক্ষম হবে সেই মানের প্রশ্নকে কঠিন স্তর বলে। এখানে একাধিক তত্ত্ব, তথ্য, সূত্র, নিয়মনীতি, ধারণা ইত্যাদি প্রয়োগের সুযোগ এই অংশের প্রশ্নের উত্তরের ক্ষেত্রে মধ্যম স্তরের চেয়ে বেশি থাকতে হবে। এই অংশের জন্য নম্বর বরাদ্দ হবে ৪।

পরীক্ষা অধিক অর্থবহ এবং শিক্ষাক্রমের উদ্দেশ্যের সাথে সংগতি রাখার ক্ষেত্রে সৃজনশীল প্রশ্নে উদ্দীপক বা নতুন পরিস্থিতি অপরিহার্য। একটি সৃজনশীল প্রশ্নের ক, , গ অংশ উদ্দীপকের বিষয়বস্তুর আলোকে প্রণয়ন করতে হবে। উদ্দীপক না পড়ে বা না দেখে ও প্রশ্নের ক অংশের উত্তর দেয়া সম্ভব হতে পারে। তবে উদ্দীপকের সাথে প্রশ্নে ক অংশের একটি পরোক্ষ যোগসূত্র থাকতে হবে। যে বিষয় বা বিষয়সমূহের আলোকেই ক প্রশ্ন করা হয়। কিন্তু খ ও গ অংশের উত্তর উদ্দীপক বিবেচনায় না এনে করা সম্ভব হবে না। উল্লেখ্য একটি সৃজনশীল প্রশ্নের বিভিন্ন অংশের উত্তরে পুনরাবৃত্তি পরিহার করতে হবে।

বহুনির্বাচনি অভীক্ষা/ প্রশ্ন প্রণয়ন

শিক্ষাক্রমে মূল্যায়ন ব্যবস্থায় তিন ধরনের বহু নির্বাচনী প্রশ্ন প্রবর্তন করা হয়েছে। ক) সাধারণ বহুনির্বাচনি খ) বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি গ) অভিন্ন তথ্যভিত্তিক বহু নির্বাচনি।

সাধারণ বহুনির্বাচনি

যে প্রশ্নের উদ্দীপক নির্দেশনা একই বাক্যে এবং (১০৪০) সেকেন্ড সময়ের মধ্যে উত্তর দিতে সক্ষম হবে সেই প্রশ্নকে সাধারণ বহু নির্বাচনি বলে। সাধারণ বা বিশেষ কোন তত্ত্ব, তথ্য, পদ্ধতি, প্রক্রিয়া, ধারণা এবং নীতিমালা ইত্যাদি চিনতে পারার দক্ষতা এই স্তরে যাচাই করা হয়।

বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি

এ ধরনের প্রশ্নের শুরুতে একটি অসমাপ্ত প্রারম্ভিক বাক্য থাকে এবং এর নিচে ৩টি তথ্য/বিবৃতি/ধারণা দেয়া থাকে। এগুলোর ১টি, ২টি এমনকি ৩টি অসমাপ্ত প্রারম্ভিক বাক্যটির ক্ষেত্রে সঠিক হতে পারে। তথ্যবাক্যগুলোকে সাজিয়ে ৪টি বিকল্প উত্তর তৈরি করা হয়। এই ৪টি বিকল্প উত্তর থেকে শিক্ষার্থীকে একটি সঠিক/সর্বোত্তম সঠিক উত্তর বাছাই করতে হয়। বহুপদী সমাপ্তিসূচক বহুনির্বাচনি প্রশ্নে অসমাপ্ত প্রারম্ভিক বাক্য এবং তথ্য, নীতিমালা, সূত্র, নিয়ম, পদ্ধতি, প্রক্রিয়া একত্রে উদ্দীপক হিসেবে বিবেচিত হয়। প্রশ্নপত্রে এ ধরনের প্রশ্নের সংখ্যা কম থাকাই ভাল। প্রয়োজনের ভিত্তিতে এ ধরনের প্রশ্ন সংখ্যা নির্ধারণ করা উচিত হবে তা যেন কোনোভাবেই ২০% এর অধিক না হয়।

অভিন্ন তথ্যভিত্তিক বহুনির্বাচনি

অভিন্ন তথ্যভিত্তিক বহু নির্বাচনি প্রশ্ন একটি উদ্দীপক/দৃশ্যকল্প/ সূচনা বাক্য/ অনুচ্ছেদ দিয়ে শুরু হয়। একটি উদ্দীপক থেকে কয়েকটি প্রশ্ন করা হয়। প্রশ্নগুলো পরস্পরের সাথে সম্পর্কিত। একজন শিক্ষার্থী প্রশ্নের উত্তর দিতে গেলে তার চিন্তার যেন বহুমাত্রিকতা থাকে যে বিষয়টি প্রশ্ন তৈরির সময় মনে রাখতে হবে। এই স্তরের প্রশ্নের মাধ্যমে শিক্ষার্থী যেন তার পঠিত তথ্য, নীতিমালা, সূত্র, নিয়মনীতি, পদ্ধতি, প্রক্রিয়া ইত্যাদি নতুন পরিস্থিতির আলোকে ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ করার সুযোগ পায় তা বিবেচনা করতে হবে।

এ স্তরের প্রশ্নের উত্তর দেয়ার একজন শিক্ষার্থী যেন ৬০ সেকেন্ড থেকে ৯০ সেকেন্ড সময়ের মধ্যে উত্তর দিতে পারে। সে বিষয়টি প্রশ্ন করার সময় লক্ষ্য রাখতে হবে।

লেখক : মাস্টার ট্রেনার, সহকারী শিক্ষক (গণিত), সেন্ট প্ল্যাসিড্‌স স্কুল এন্ড কলেজ

x