খালেদার ‘স্ট্রোক হয়নি’ সুগার কমেছিল: সেতুমন্ত্রী

আজাদী অনলাইন

রবিবার , ১০ জুন, ২০১৮ at ১১:১০ অপরাহ্ণ
347

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্ট্রোক হয়নি, সুগার কমেছিল বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।’

বিএনপির ৭৩ বছর বয়সী চেয়ারপারসনের শারীরিক অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে তাকে বেসরকারি ইউনাইটেড হাসপাতালে পাঠানোর দাবি করে আসছেন দলের নেতারা। খবর বিডিনিউজের

খালেদা জিয়ার চিকিৎসকরা শনিবার তাকে কারাগারে দেখে আসার পর বলেছিলেন, গত ৫ জুন খালেদার ‘মাইল্ড স্ট্রোক’ হয়েছে বলে তাদের সন্দেহ।

এর পরিপ্রেক্ষিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছিলেন, ‘চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর বোঝা যাবে তার কী হয়েছে।’

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে বিএনপি নেত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা হবে রোববার বলে জানিয়েছিলেন আইনমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এদিকে গাজীপুরে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক পরিদর্শনে এসে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, ‘আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। আইজি প্রিজন্সের সঙ্গেও আমার কথা হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়ার যে বিষয়টিকে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা মাইল্ড স্ট্রোকের কথা বলেছেন, আমাকে আইজি প্রিজন্স সে ব্যাপারে বলেছেন, তিনি জেলখানার কর্তব্যরত চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে জেনেছেন এটা মাইল্ড স্ট্রোক নয়, তার সুগার ফল হয়েছিল কিছুক্ষণের জন্য।‘ এ কারণে শারীরিক অবস্থার যে অবনতি হতে পারত একটা চকলেট খাওয়ানোর পর তা রোধ করা গেছে বলে কাদেরের ভাষ্য।

তিনি আরো বলেন, ‘তারপরও বেগম জিয়াকে অনুরোধ করা হচ্ছে বাইরে গিয়ে চিকিৎসা করার জন্য। তিনি রাজি হলে চিকিৎসকের পরামর্শে শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে। তিনি দেশের একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী। তার চিকিৎসায় কোনো উপেক্ষা বা গাফিলতি হওয়ার বিষয় আমরা কেউ সাপোর্ট করি না। শেখ হাসিনার সরকার এখানে কোনো গাফিলতি করবে এমনটা মনে করার কারণ নেই ‘

মন্ত্রী গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার চন্দ্রায় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

খালেদাকে বিএসএমএমইউতে নেয়া হয়নি
স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য খালেদা জিয়াকে রোববারই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নেয়ার কথা আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানালেও তা হয়নি। বিএনপি চেয়ারপারসনের ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা তার ‘মাইল্ড স্ট্রোক হয়েছে’ বলে সন্দেহ প্রকাশ করার পর কারাবন্দি খালেদার স্বাস্থ্য পরীক্ষার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। দুপুরে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছিলেন, রোববারই তাকে ওই হাসপাতালে নেয়া হতে পারে।

এরপর থেকেই শাহবাগে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে অপেক্ষা করতে থাকেন সাংবাদিকরা। তবে সন্ধ্যার পরেও তাকে হাসপাতালে আনা হয়নি।

খালেদা জিয়াকে কখন হাসপাতালে নেয়া হবে তা জানতে রাতে কারা মহাপরিদর্শক সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিনকে বেশ কয়েকবার ফোন করলেও তিনি ধরেননি। পরে তার মোবাইলে এসএমএস পাঠিয়েও জবাব পাওয়া যায়নি।
শনিবার খালেদার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা কারাগারে গিয়ে তাকে দেখে এসে বলেছিলেন, গত ৫ জুন বিএনপি চেয়ারপারসনের ‘মাইল্ড স্ট্রোক’ হয়েছিল বলে তারা ধারণা করছেন। সেই কারণে তিনি পড়ে গিয়েছিলেন।

৭৩ বছর বয়সী দলীয় চেয়ারপারসনের শারীরিক অবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে তাকে বেসরকারি ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তির দাবি জানিয়ে আসছে বিএনপি।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে সরকার ‘কনসার্নড’ জানিয়ে সচিবালয়ে আইনমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘যেসব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সিদ্ধান্ত নিতে হয় যে মাইল্ড স্ট্রোক হয়েছে কি না, সে ব্যাপারে আজ (রোববার) তাকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল ইউনিভার্সিটিতে নিয়ে যাওয়া হবে বলে আমাকে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন।’

খালেদাকে কখন নেয়া হবে- জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা দুপুরে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছিলাম, কিন্তু ঠিক কখন খালেদা জিয়াকে পরীক্ষার জন্য নেয়া হবে, তা আইজি প্রিজন্স নির্ধারণ করবেন।’

খালেদার ব্যক্তিগত চিকিৎসকরা ইউনাইটেড হাসপাতালে নেয়ার সুপারিশ করলেও বিএসএমএমইউতে নেয়ার কারণ জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এখানে বড়-বড় চিকিৎসক ও গবেষকরা রয়েছেন। আর উনার ব্যক্তিগত চিকিৎসকেরা তো রয়েছেনই, সুতরাং এখানেই চিকিৎসা হবে।’

এরপর অন্য কোনো সিদ্ধান্ত নিতে হলে তা চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে সরকার শতভাগ আন্তরিক।’

চার মাস ধরে কারাবন্দি খালেদাকে এর আগে এপ্রিলের শুরুতে এক্স রে করাতে বিএসএমএমইউতে নেয়া হয়েছিল। ওই দিনই তাকে পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে ফেরত নেয়া হয়।

পরিত্যক্ত ওই কারাগারে একমাত্র বন্দি হিসেবে রয়েছেন দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা।

খালেদার পড়ে যাওয়ার বিষয়ে আনিসুল হক বলেন, ‘তিনি (খালেদা) রোজা রেখেছিলেন, রোজা রাখার পরে বিকাল ৩টা-সাড়ে ৩টার দিকে একটু হেলে পড়ে যাচ্ছিলেন, তখন ওখানে যে লোক আছে ফাতেমা, সে তাকে ধরে ফেলে এবং তাৎক্ষণিক জেলের ডাক্তাররা তাকে দেখেন। তিনি যেহেতু রোজা রেখেছিলেন, তার সুগার লেভেল কমে গিয়েছিল বলে তারা (চিকিৎসক) জানান এবং একটা চকলেট খাওয়ার পরে তা রিভাইভ করে ‘

কারাগারে কেউ অসুস্থ হলে কারাবিধি অনুযায়ী তার যে চিকিৎসা প্রয়োজন, সরকার তা নিশ্চিত করবে বলে আশ্বস্ত করেন আইনমন্ত্রী।

বিএনপির অভিযোগ, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে সরকার ‘উদাসীন’। সেই কারণে তার অবস্থার ‘অবনতি ঘটছে’।

x