কৃষিকাজ ও পশু পালনে আধুনিকতা আসুক

নুরুল হাসান বিপুল

রবিবার , ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৪:২৯ পূর্বাহ্ণ

দেশে অর্গানিক কৃষি প্রতিষ্ঠানগুলো দিনদিন জনপ্রিয় হচ্ছে। অনেক শিক্ষিত তরুণ ও যুবক এই খাতে বিনিয়োগ করছেন, যা ইতোমধ্যেই ব্যাপক পরিচিতি ও জনপ্রিয়তা পেয়েছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে এমন দুটো প্রতিষ্ঠান “শিকড় এগ্রো” ও “ভ্যালে অর্গানিকা” থেকে পণ্য কিনি প্রায় বছর দুয়েক। এর মধ্যে কোরবানির গরু থেকে শুরু করে প্রতিদিনের গোসত, মাছ, মুরগি, ডিম, দুধ ইত্যাদি। অর্গানিক খামারগুলোর পন্য কেন কিনি? প্রথমত বাজার থেকে কি কিনছি কোনো ধারণা নেই। কি পদ্ধতিতে কি পরিবেশে চাষ, সংরক্ষণ ও পরিবহন হচ্ছে জানা নেই। দূরবর্তী কোনো জেলায় ফসল সংগ্রহের পর তা অনেক হাত ঘুরে আপনার বাসায় পৌঁছানোর আগে, কি পরিবেশে, কোন তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করা হচ্ছে তা গুরুত্বপূর্ণ। পরিষ্কার পরিবেশ ও যথার্থ তাপমাত্রায় সংরক্ষিত না হলে, তাতে শিঘ্রই পচন ধরতে শুরু করে ও বিভিন্ন রোগ জীবাণু ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ শুরু হয়, যা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। অন্যদিকে অর্গানিক খামারগুলোতে বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে পশু লালন পালন ও চাষ হয়, দক্ষ ও প্রশিক্ষিত হাতে, চরম মমতা ও ভালোবাসায়। পরিস্কার পরিচ্ছন্ন পরিবেশে ফসল তোলা হয়, যথাযথ পদ্ধতি ও তাপমাত্রায় সংরক্ষণ ও পরিবহণের পর আপনার হাতে পৌঁছায় অতি যত্ন ও ভালোবাসায়। এছাড়াও বাজারে যাওয়ার মতো সময় সুযোগ বের করা দিনদিন কঠিন হয়ে পড়ছে ব্যক্তিগত ব্যস্ততার কারণে। আমি ব্যক্তিগতভাবে চাচ্ছি এই চাষ ও ব্যবসায় পরিবর্তন আসুক, আধুনিকায়ন আসুক। মধ্যস্বত্বভোগী, ভেজাল প্রদানকারী ও দুর্বৃত্তদের হাত থেকে এটা আধুনিকমনা শিক্ষিতদের হাতে আসুক। এই ব্যবসার সাথে জড়িতদের সার্বিক সহযোগিতা ও পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া আমার নৈতিক দায়িত্ব বলে মনে করি। কৃষিকাজ ও পশু পালনে আধুনিকতা আসুক, ভেজালবিহীন স্বাস্থ্যকর খাবারের নিশ্চয়তা নিশ্চিত হোক, এই কামনা করি।

x