করোনায় আতঙ্ক নয়, প্রয়োজন সচেতনতা ও প্রস্তুতি

ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটিতে দিকনির্দেশনামূলক সভা

বুধবার , ১১ মার্চ, ২০২০ at ৮:১১ অপরাহ্ণ
223

বিশ্বজুড়ে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯। বাংলাদেশও এর আক্রমণ থেকে রেহাই পায়নি। এর প্রকোপ থেকে রক্ষা পেতে সর্বস্তরে সচেতনতা প্রয়োজন। ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি এ মহামারি মোকাবেলায় সার্বিক প্রস্তুতি নিচ্ছে। জরুরি পরিস্থিতিতে করণীয়সমূহের কার্যক্রম ইতোমধ্যে শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি ফ্যাকাল্টি মেম্বারসহ প্রতিটি বিভাগে, বিশেষত পরিচ্ছন্নতার সাথে সংশ্লিষ্টদের কাজ নিয়ে সম্যক ধারণা দিতে আজ  বুধবার (১১ মার্চ) দুপুরে একটি দিকনির্দেশনামূলক সভার আয়োজন করা হয়।
এতে ইডিইউর প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান বলেন, ‘শিক্ষার্থীসহ ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির প্রত্যেকের সুস্থতা নিশ্চিত করার দায়িত্ব বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের। এ দায়িত্ববোধ থেকে প্রয়োজনীয় সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে সবাইকে সচেতন করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের করণীয় সম্পর্কে ধারণা দেয়া হয়েছে যাতে এই প্রাদুর্ভাব থেকে সবাইকে মুক্ত রাখা যায়। নিজের পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি প্রত্যেকের নিত্য ব্যবহার্যগুলো, বিশেষত মোবাইল ফোন সেট জীবাণুনাশক দ্বারা পরিষ্কার করা প্রয়োজন।’
এতে মূল আলোচক ছিলেন সাউদার্ন মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক ডা. আতিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে সচেতন হওয়া ও সাবধানতা জরুরি। পরিচ্ছন্নতাই পারে এ সংক্রমণ থেকে আমাদেরকে রক্ষা করতে। কাশি বা হাঁচি দেয়ার সময় নাক-মুখ রুমাল বা টিস্যু কিংবা অন্তত নিজের কনুই দিয়ে ঢাকতে হবে। কারও সঙ্গে হাত মেলানো, কোলাকুলি থেকে বিরত থাকতে হবে। প্রত্যেকেরই বিশ থেকে পঁচিশ মিনিট পর পর হাত-মুখ ধোয়ার অভ্যাস করা উচিৎ। জনসমাগম বেশি হয় এসব স্থান বার বার জীবাণুনাশক মিশ্রিত পানি দ্বারা পরিষ্কার করতে হবে।‘
তিনি আরো বলেন, ‘অসুস্থদের ঘরের বাইরে যাওয়া অত্যাবশ্যক হলে নাক-মুখ ঢাকার জন্য মাস্ক ব্যবহার করুন। সুস্থদের মাস্ক ব্যবহারের প্রয়োজন নেই।’
ডা. আতিক বলেন, ‘চীনসহ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত দেশগুলো ভ্রমণকারীরা ফিরে আসার ১৪ দিনের মধ্যে জ্বর, গলাব্যথা, কাশি ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হলে কোভিড-১৯ ভাইরাস সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকতে পারে। সেক্ষেত্রে অতিসত্ত্বর স্বাস্থ্যকেন্দ্র সমূহে দায়িত্বরত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।’ শিশু, বৃদ্ধ ও অন্য রোগে আক্রান্তদের অধিকতর সতর্ক রাখা এবং নিজেকে নিরাপদ রাখতে বিদেশ ভ্রমণ না করাই শ্রেয় বলে তিনি উল্লেখ করেন।
সভায় অন্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সামস উদ-দোহা, রেজিস্ট্রার সজল কান্তি বড়ুয়া, প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট ডিরেক্টর শাফায়েত কবির চৌধুরী, স্কুল অভ লিবারেল আর্টসের অ্যাসোসিয়েট ডিন মুহাম্মদ শহিদুল ইসলাম চৌধুরী, স্কুল অভ ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অ্যাসোসিয়েট ডিন ড. মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, স্কুল অভ বিজনেসের অ্যাসোসিয়েট ডিন ড. মুহাম্মদ রকিবুল কবির, প্রক্টর অনন্যা নন্দী প্রমুখ।