‘ঐতিহাসিক’

শুক্রবার , ২৫ অক্টোবর, ২০১৯ at ৫:৩০ পূর্বাহ্ণ
293

ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় দ্রুত বিচারের পর ঘোষিত রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা ও রাজনৈতিক দলগুলোর নেতারা। তারা বলছেন, সবচেয়ে কম সময়ের মধ্যে ‘বিনা হস্তক্ষেপে’ যেভাবে এই হত্যাকাণ্ডের রায় হলো, তা বিচার বিভাগের জন্য যেমন মাইলফলক, তেমনি বাংলাদেশের জন্য ঐতিহাসিক একটি ঘটনা। একইভাবে অন্য মামলাগুলোরও দ্রুত বিচার হবে বলে প্রত্যাশার কথা বলেছেন তারা।
নুসরাত হত্যাকাণ্ডের সাত মাসের মাথায় মামলার বিচার শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশীদ সোনাগাজীর ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলাসহ অভিযুক্ত ১৬ আসামির সবাইকে মৃত্যুদণ্ড দেন।
রায় ঘোষণার পর রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা মাহবুবে আলম নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের বলেন, আমি সন্তোষ প্রকাশ করছি এই জন্য যে, বিচারকাজটি অতি তরিৎ গতিতে সম্পন্ন হয়েছে। সব বিচারকাজ যদি এরকম তরিৎ গতিতে সম্পন্ন হয়- বিশেষ করে খুনের মামলাগুলো- তাহলে অন্ততপক্ষে জনগণ বিচার পাবে। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, গতকাল আমি একটি টেলিভিশনে দেখলাম, নুসরাতের পড়ার টেবিলের উপর লেখা… এই ধরনের মেধাবী ছাত্রী, একদম নিষ্কলঙ্ক চরিত্রের একটি মেয়েকে এভাবে হত্যা করার যে পৈশাচিকতা- এটা মেনে নেওয়া যায় না। এর সুষ্ঠু বিচার যদি না হতো তাহলে সমাজের কাছে এই ম্যাসেজটা যেত না যে, খুন-রাহাজানি করলে কেউ পার পায় না। এটাই এ মামলার রায়ে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, অতি স্বল্প সময়ের ভেতরে এরকম একটি হত্যাকাণ্ডের বিচার সম্পন্ন হয়েছে- এটা আমাদের বিচার বিভাগের জন্য বিরাট সার্থকতা এবং একটি মাইলফলক। এরকমই হওয়া উচিত; অতি স্বল্প সময়ের ভেতরে এ ধরণের যুগান্তকারী, গুরুত্বপূর্ণ মামলাগুলোর রায় হওয়ার উচিত।

রায়ে সরকারের স্বস্তি : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, নুসরাত হত্যা মামলায় ১৬ জনের ফাঁসি হয়েছে, দ্রুততার সঙ্গে বিচার কার্য সম্পাদন হয়েছে। তা অবিশ্বাস্য মনে হলেও এখানে বিচার প্রক্রিয়াটা ত্বরান্বিত হয়েছে, দ্রুততার সঙ্গে সম্পন্ন হয়েছে। এজন্য সরকারের পক্ষ থেকেও আমরা স্বস্তি প্রকাশ করছি। রায় নিয়েও কোনো বিরূপ প্রতিক্রিয়া হয়নি। আমার মনে হয়, তার পরিবারও সন্তুষ্ট হবে। গতকাল সচিবালয়ে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রায় নিয়ে এ প্রতিক্রিয়া জানান তিনি।
ঐতিহাসিক ও হস্তক্ষেপমুক্ত রায় : নুসরাত হত্যা মামলার রায়কে ‘ঐতিহাসিক’ অভিহিত করে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, ক্রমবর্ধমান নারী ধর্ষণ, হত্যা ও সহিংসতা নিরোধ করতে এই রায় ভূমিকা রাখবে। এ রায়ের মাধ্যমে ধর্ম প্রচারণার আড়ালে সমাজে নানা অনাচার করে যাওয়া অপরাধীদের বিষয়ে সমাজ জানবে। নুসরাত হত্যা মামলার দ্রুত বিচারের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মেনন বলেন, প্রধানমন্ত্রী সরাসরি হস্তক্ষেপ না করলে প্রভাবশালীরা তাকে চরিত্রহীনা বানিয়ে দিতে পারত। দ্রুত বিচার শেষে রায় ঘোষণায় সরকার ও বিচার বিভাগকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম। তিনি বলেন, সরকার অন্যান্য মামলার মতো এ রায়কে প্রভাবিত করার চেষ্টা করেননি। সেজন্য সরকারকে ধন্যবাদ। জনগণ এ ঘটনায় কঠোর শাস্তি দাবি করেছিল। সেদিক থেকে এ রায় সন্তোষজনক। আশা করি, এ রায়টির মতো অন্যান্য মামলাগুলোর ক্ষেত্রে দ্রুত বিচার শেষে রায় ঘোষণায় সরকার কাজ করবে।

x