এবার ৮ উইকেট নিলেন চট্টগ্রামের ছেলে নাইম

ক্রীড়া প্রতিবেদক

শনিবার , ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ at ৫:০৬ পূর্বাহ্ণ
56

পাকিস্তান সফরে যাওয়ার আগে বিসিএলের ম্যাচের সবশেষ ইনিংসে ৬ উইকেট তুলে নিয়েছিলেন চট্টগ্রামের ছেলে নাইম হাসান। এরপর টেস্ট দলের সদস্য হয়ে পাকিস্তানে যাওয়া নাইম খেলার সুযোগ পাননি রাওয়ালাপিন্ডি টেস্টে। দেশে ফিরে আবার মাঠে নেমেছেন নাইম বিসিএল খেলতে। এবার আবার তার ঘূর্ণিতে কুপোকাত প্রতিপক্ষ ব্যাটসনম্যানরা। ইস্ট জোনের হয়ে খেলতে নামা নাইম হাসান গতকাল ১০৭ রানে নিয়েছেন ৮ উইকেট। যা প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে তার সেরা বোলিং। এছাড়া ব্যাট হাতে দারুণ করেছেন মুশফিকুর রহিম। নিরাপত্তা নিয়ে পরিবারের আপত্তি থাকায় পাকিস্তান সফরে যাননি মুশফিক । পরে শোনা যায় ইনজুরির সমস্যাও ছিল মুশফিকুর রহীমের। তবে ইনজুরি কাটিয়ে দলে ফেরার জন্য বোধ হয় মুখিয়েই রয়েছেন উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান।
সামনে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্ট। তার আগে বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে (বিসিএল) প্রাপ্ত সুযোগের সর্বোচ্চ সদ্ব্যবহারই করলেন মুশফিক। কঙবাজারে নর্থ জোনের হয়ে ইস্ট জোনের বিপক্ষে ১৪০ রানের চোখ ধাঁধানো এক ইনিংস খেলেছেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। ১৫৭ বলের ইনিংসে ১৬টি চার আর ১টি ছক্কা হাঁকান তিনি। মুশফিকের বড় এই সেঞ্চুরিতে ভর করেও অবশ্য দলীয় সংগ্রহটা বড় হয়নি নর্থ জোনের। বাকি ব্যাটসম্যানদের কেউ যে ফিফটিও করতে পারেননি। অধিনায়ক নাইম ইসলাম ৩১, ওপেনার রনি তালুকদার ২৮ আর সানজামুল ইসলামের ব্যাট থেকে আসে ২৯ রান। ৮২.৪ ওভারে নর্থ জোন অলআউট হয়েছে ২৭২ রানে। মুশফিক বলতে গেলে একাই লড়াই করেছেন। নিয়মিত বিরতিতেই উইকেট হারিয়েছে নর্থ জোন। হারাবেই বা না কেন? অফস্পিনার নাইম হাসান যে ঘূর্ণি জাদুতে রীতিমত কোণঠাসা করে রেখেছিলেন প্রতিপক্ষকে। ইস্ট জোনের স্পিনার নাইম ১০৭ রান খরচা করে একাই নিয়েছেন ৮টি উইকেট। বাকি দুই উইকেট নেন পেসার হাসান মাহমুদ। জবাবে ৩ রান তুলতেই ২ উইকেট হারিয়ে প্রথম দিন শেষ করেছে ইস্ট জোন। পিনাক ঘোষ ৩ আর মোহাম্মদ আশরাফুল রানের খাতদা খোলার আগেই সাজঘরের পথ ধরেছেন।
এদিকে দিনের আরেক খেলায় মার্শাল আইয়ুবের সেঞ্চুরির ইনিংসে ভর করে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৩৫ রান সংগ্রহ করেছে মধ্যাঞ্চল। দলের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩০ রান এসেছে মোস্তাফিজুর রহমানের ব্যাট থেকে। বল হাতে দক্ষিণাঞ্চলের মেহেদি হাসান নিয়েছেন ৩ উইকেট। ২টি করে উইকেট গেছে শফিউল ইসলাম, আব্দুর রাজ্জাক ও নাসুম আহমেদের ঝুলিতে। বাকি উইকেট ফরহাদ রেজার। জবাব দিতে নেমে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২৯ রান তুলতেই ২ উইকেট হারিয়েছে দক্ষিণাঞ্চল। এর মধ্যে ১০ রান করে ইরফান হোসেনের বলে বোল্ড হয়ে ফিরেছেন শাহরিয়ার নাফিস। আর ৩ রান করে রান আউটের শিকার হয়েছেন ইরফান শুক্কুর। মধ্যাঞ্চলের চেয়ে এখনও ২০৬ রানে পিছিয়ে আছে দক্ষিণাঞ্চল।