এটাই হয়ত আমার শেষ সম্মেলন : মোশাররফ

আজাদী প্রতিবেদন

রবিবার , ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৪:১৭ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসে আবেগতাড়িত হয়ে পড়লেন বর্ষীয়ান রাজনীতিক ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। বেলা সাড়ে ১১টায় সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তব্যের শুরুতেই মোশাররফ হোসেন বলেন, এটা আমার জীবনের শেষ সম্মেলন হতে পারে। চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে এসে তাঁর দীর্ঘদিনের পুরনো রাজনৈতিক সতীর্থদের না দেখে আবেগ আর ধরে রাখতে পারলেন না দলের বর্ষীয়ান রাজনীতিক ও সাবেকমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। এসময় ভেতরের বোবা কান্নায় তাঁর গলা আটকে যায়।
ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, আমি আজকে আবেগের মধ্যে আছি। এটা হয়তো আমার জীবনের শেষ সম্মেলন উদ্বোধন করে যাচ্ছি। কারণ আমার সাথে এই মঞ্চে যারা থাকতো সেই আখতারুজ্জমান বাবু নেই, আতাউর রহমান খান কায়সার নেই, এবিএম মহিউদ্দীন চৌধুরী আজকে আমার পাশে নেই। আমার পাশে এমএ ওহাব নেই, আজিজ ভাই নেই, মান্নান ভাই নেই, জহুর ভাই নেই। আমি অনেক জনকেই হারিয়েছি।
ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ আমরা সুসংগঠিত, আমরা শেখ হাসিনার একেকজন অতন্দ্র প্রহরীর মত আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এই উত্তর চট্টগ্রামের প্রতিটি উপজেলায় আমরা নিয়মিতভাবে সম্মেলন করে আসছি। আজকে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে বলতে চাই, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে সকল কর্মসূচি নিয়েছেন আমরা অক্ষরে অক্ষরে সেই সকল কর্মসূচি পালন করছি। এই সম্মেলনের মাধ্যমে উনি বলেছেন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদদের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য, আমরা সেই পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদদের নিয়ে কমিটি করেছি প্রতিটি উপজেলায়।
তিনি বলেন, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের একটা ঐতিহ্য আছে। ১৯৮০ সালে স্বৈরাচার বিরোধী শান্তিপূর্ণ মিছিলে নিউমার্কেটের মোড়ে আমার পায়ের রগ কেটে দিয়েছিল। আমি তিনমাস পঙ্গুত্বের সাথে লড়াই করে জীবন রক্ষা করেছি। ১৯৯২ সালে যখন ছাত্রলীগের কনফারেন্সে গেলাম ফটিকছড়িতে, সেখানে আমাদের উপর শিবির ক্যাডাররা আক্রমন চালিয়েছে। আমার সাথে ইউনুচ গনি, আবু তৈয়ব ছিল। আমরা কোন রকমে ফিরে এসেছি। আমাদের একজনকে গুলি করে হত্যা করেছে শিবির সন্ত্রাসীরা।

x