একাদশ শ্রেণিতে ভতি: দ্বিতীয় পর্যায়ের অবেদনের প্রস্তুতি

এম. পারভেজ

শনিবার , ১৫ জুন, ২০১৯ at ৭:০৪ পূর্বাহ্ণ
361

২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির প্রথম মেধাতালিকা প্রকাশিত হয়েছে। প্রতিবছরের মত এবারও নগরীর খ্যাতিমান সরকাফর কলেজগুলোতে গোল্ডেন জিপিএ-৫প্রাপ্তরাই ঠাঁই করে নিয়েছে। নগরীর সরকারি কলেজ সমূহের বিজ্ঞান শাখায় মোট ২৯৯০ আসনের বিপরীতে প্রায় ৫০,০০০ আবেদন যাচাই বাছাই করে প্রকাশিত এই ফলাফলে হাজারো শিক্ষার্থীর স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে! এদের মধ্যে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীও রয়েছে। সরকারি কলেজে পড়ার সুযোগ না পেলেও উন্নততর শিক্ষাপরিবেশ, নিয়মিত ক্লাস গ্রহণ, মাল্টিমিডিয়া প্রযুক্তির মাধ্যমে ক্লাসনির্ভর পাঠদান, এসএমএস এলার্টের মাধ্যমে ক্লাসে উপস্থিতি নিশ্চিতকরণ, মেধাবী শিক্ষকগণের তৈরি হ্যান্ডনোট, ছাত্রছাত্রীদের নিবিড় পরিচর্যা, দ্রুত সিলেবাস সমাপন, ক্লাস পরীক্ষা, সাপ্তাহিক ও মাসিক পরীক্ষা এবং ফাইনাল পরীক্ষার পূর্বে বোর্ড পরীক্ষার অনুরূপ মডেল টেস্ট গ্রহণ ইত্যাদি ব্যতিক্রমী পাঠপদ্ধতি সম্পন্ন প্রাইভেট কলেজ চট্টগ্রামে রয়েছে। তাই মেধাতালিকায় আসা কলেজ পছন্দ না হলে মনোনীত হয়েও শিক্ষার্থী ঐ কলেজে ভর্তি নিশ্চায়ন করবে না। ফলে সে আগামী ১৯ ও ২০ জুন পুনরায় আবেদন করতে পারবে এবং পছন্দক্রমে যে কলেজের নাম লিখবে সে কলেজেই ভর্তি হতে পারবে।

চট্টগ্রাম বিজ্ঞান কলেজ

চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড ও শিক্ষা মন্ত্রণালয় অনুমোদিত চট্টগ্রাম বিজ্ঞান কলেজ এবং একই ট্রাস্টের পরিচালনাধীন সিটি বিজ্ঞান কলেজ ও চট্টগ্রাম কমার্স কলেজ থাকতে পারে শিক্ষার্থীদের পছন্দের তালিকায়।
চট্টগ্রাম বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ ড. মো. জাহেদ খান বলেন, আমদের কলেজে রয়েছে ৩৫টি পূর্ণাঙ্গ মাল্টিমিডিয়া ক্লাস। এইচএসসি-তে পাঠ্যবই এর পাশাপাশি শতভাগ ভালো ফলাফলের জন্য বিষয়ভিত্তিক হ্যান্ডনোট প্রদান করা হয়। প্রতিটি টার্ম পরীক্ষা শুরুর আগে সিলেবাসে বিদ্যমান অধ্যায়গুলোর সলভশিট, ক্রিয়েটিভ শিট ও নোট সরবরাহ করা হয়। প্রতিদিন ক্লাসে নির্দিষ্ট বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক দ্বারা ক্লাসেই রিভিশনসহ বুঝানো, শিখানো ও আদায়ের ব্যবস্থা করা হয়। এতকিছুর পরও যারা খারাপ ফলাফল করে তাদের জন্য রয়েছে ডে-কেয়ার, যেখানে দৈনিক ৭-৮ ঘন্টা পড়িয়ে পাঠ আদায় করা হয়। স্বয়ংক্রিয় অঃঃবহফধহপব ঝবৎারপব এর মাধ্যমে অভিভাবক জানতে পারেন কলেজে তার সন্তানের আগমন ও প্রস্থানের সঠিক সময়। এ ছাড়াও জেএফ ট্রাস্ট প্রতি বছর বিনা বেতনে/অর্ধ-বেতনে অসচ্ছ্বল শিক্ষার্থীর পড়াশুনার দায়িত্ব নিয়ে থাকে। শিক্ষাবান্ধব এসব পদক্ষেপের কারণে প্রতি বছর অসংখ্য শিক্ষার্থী এইচএসসি তে অ/অ+ পেয়ে মেডিকেল/ ইঞ্জিনিয়ারিং/ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পাচ্ছে।
সাফল্যের প্রধান কৌশল সম্পর্কে বলতে গিয়ে অধ্যক্ষ বলেন, লেখাপড়ার বিষয়ে আমরা কোন ছাড় দেই না। এখানে বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে আমাদের বিশেষ হ্যান্ডনোট। অত্যন্ত অভিজ্ঞ ও বোর্ড পরীক্ষক শিক্ষকবৃন্দের সমন্বয়ে গঠিত বিশেষ প্যানেলের তত্ত্বাবধানে সৃজনশীল প্রশ্নপদ্ধতির আলোকে প্রতিটি বিষয়ে প্রস্তুতকৃত হ্যান্ডনোট ছাত্রছাত্রীদের কাছে ত্রাতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। সহজবোধ্য ও কৌশলপূর্ণ এই নোট অনুসরণ করলে বোর্ড ফাইনাল পরীক্ষার জন্য আর কোন নোট বা গৃহশিক্ষকের প্রয়োজন হবে না।
ভর্তিজনিত যে কোন জটিলতা এড়াতে একটি বিশেষ পরামর্শ সেল গঠন করা হয়েছে, যেখানে পরামর্শ দেবেন অভিজ্ঞ শিক্ষকবৃন্দ। কেননা গত বছরেও কলেজ ভর্তির আবেদনে বিভিন্ন ত্রুটির কারণে অনেক শিক্ষার্থীকে নানা হয়রানির শিকার হতে হয়েছে। মতি টাওয়ার (৫ম তলা), চকবাজার, চট্টগ্রাম এই ঠিকানায় এবং ০১৯৭৭-২৯১৮৮৮ নম্বরে যোগাযোগ করে কিংবা ঈযধঃঃধমৎধস ইরমমধহ ঈড়ষষবমব- ফেসবুকে লগইন করে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।

কলেজ অব সায়েন্স, বিজনেস
এন্ড হিউমেনিটিজ

সচেতন শিক্ষার্থীদের আগামী ১৯ ও ২০ জুন ২য় বারের আবেদনে প্রথম পছন্দ হতে পারে পাঁচলাইশ এলাকায় প্রতিষ্ঠিত বাংলা ভার্সন ও ইংরেজি ভার্সনে (ন্যাশনাল কারিকুলাম) পরিচালিত চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড অনুমোদিত কলেজ অব সায়েন্স, বিজনেস এন্ড হিউমেনিটিজ।
কলেজ প্রতিষ্ঠাতা মেহরাব মাসুক বলে, ঈঝইঐ এ রয়েছে দুই স্তর বিশিষ্ট শিক্ষকমন্ডলী। ১ম স্তরে স্ব স্ব বিষয়ে সর্বোচ্চ ডিগ্রিধারী নবীন শিক্ষক-শিক্ষিকাগণকে নির্বাচিত করা হয়েছে কঠোর যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে। দ্বিতীয় স্তরে রয়েছেন খ্যাতিমান কলেজের স্বনামধন্য শিক্ষকবৃন্দ। যাঁদের পাঠদান শিক্ষার্থীদের জ্ঞানস্তরকে নিয়ে যাবে অনন্য উচ্চতায়।
শিক্ষা পদ্ধতি সম্পর্কে অধ্যক্ষ অধ্যাপক অজিত কুমার শীল জানান, আমাদের শিক্ষাপদ্ধতি সুশৃংখল, বিজ্ঞানসম্মত ও প্রযুক্তিনির্ভর। প্রতিটি বিষয়ের পাঠ্যসমূহকে জ্ঞান, অনুধাবন, প্রয়োগ ও বিশ্লেষণ অনুক্রমে বিন্যস্ত করেছি আমরা। গতানুগতিক লেকচার এর পরিবর্তে প্রতিটি শিক্ষক পাঠ্য বিষয়ের উপর বাংলা ও ইংরেজি ভার্সনে তৈরি করেন সমৃদ্ধ লেকচারশিট ও এমসিকিউ প্র্যাকটিস শিট। ডিজিটাল কনটেন্টের মাধ্যমে বিষয় উপস্থাপন, পর্যালোচনা, এসাইনমেন্ট, কুইজ প্রতিযোগিতা ও প্রজেক্ট এনালাইসিসের মাধ্যমে পাঠকে করা হয় সহজবোধ্য যাতে শিক্ষার্থীরা সৃজনশীল পদ্ধতির প্রশ্ন সহজে সমাধান করতে পারে। ওভারহেড প্রজেক্টর ও মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে ৩০ জনের প্রতিটি ক্লাসে প্রত্যেক ছাত্রের নিবিড় যত্ন নেন শিক্ষকগণ। লেকচারশিট ও এমসিকিউ প্র্যাকটিস শিট সলভ করার পর অধ্যায় ভিত্তিক হ্যান্ডনোট পায় শিক্ষার্থীরা। ক্লাস শেষে শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বিষয় সহজে অনুধাবন করার জন্য সকল শিক্ষার্থীকে তাদের ট্যাব-এ পাঠ্য সংশ্লিষ্ট অ্যানিমেশন, ভিডিও ক্লিপস, প্রেজেন্টেশন স্লাইড ইত্যাদি দেয়া হয় যাতে ডিজিটাল কনটেন্টের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা যতবার খুশি ক্লাস লেকচারটি পুনরায় দেখতে পারে। প্রতিদিন সন্তানের উপস্থিতি এবং অনুপস্থিতির খবরও এসএমএস এলার্টের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হয় তাঁকে। এছাড়া স্বল্পমেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে এক্সট্রা কেয়ার ক্লাস।
আধুনিক ও সমৃদ্ধ প্র্যাকটিক্যাল ল্যাব এই কলেজের অনন্য বৈশিষ্ট্য। পদার্থ, রসায়ন, জীব, গণিত এবং আইসিটির পৃথক ৫টি ল্যাব রয়েছে এখানে। প্র্যাকটিক্যাল ক্লাসে প্রতিটি শিক্ষার্থীর জন্য রয়েছে স্বতন্ত্র ইনস্ট্রুমেন্ট সেট। রয়েছে ইন্টারনেট সংযোগসহ ২৫টি কম্পিউটার এবং ৬টি ল্যাপটপ দিয়ে সুসজ্জিত কম্পিউটার ল্যাব।
আমাদের কলেজে বিজ্ঞান, ব্যবসায় শিক্ষার পাশাপাশি মানবিক শাখাও রয়েছে। সুযোগ রয়েছে ঐচ্ছিক বিষয় হিসেবে অর্থনীতি ও পরিসংখ্যান বিষয় নেবার। এছাড়াও আমরা আন্তর্জাতিক মানের ইংলিশ ল্যাংগুয়েজ সেন্টার পরিচালনা করি বিধায় ছাত্রছাত্রীদের জন্য রয়েছে English & Written English Club যেখানে শিক্ষার্থীরা Listening, Writing, Reading & Speaking দক্ষতা উন্নয়নের সাথে সাথে তারা প্রায় ৩৫০০ SAT ভোকাবিউলারী সম্পন্ন করে। ফ্রি অনলাইন আবেদন করা যাবে কলেজ ক্যাম্পাসে। ২২, পাঁচলাইশ (চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের সন্নিকটে) এই ঠিকানায় এবং ০১৯৭৬-৭৭৭৬৭৭-৯ ফোন নম্বরে যোগাযোগ এবং www.csbh.edu.bd এই সাইটে লগ ইন করে বিস্তারিত জানা যাবে।

x