এই অর্জন ইতিবাচক, সামনে আরও ভালো করতে হবে

সহজে ব্যবসা করার সূচকে বাংলাদেশের অগ্রগতি

রবিবার , ২৭ অক্টোবর, ২০১৯ at ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ
40

সহজে ব্যবসা করার সূচকে বাংলাদেশের ৮ ধাপ অগ্রগতি হয়েছে। গত বছর এই সূচকে বাংলাদেশের যেখানে অবস্থান ছিল ১৭৬’র ঘরে, সেখানে এবার অবস্থান হয়েছে ১৬৮। পাশাপাশি এবার এই সূচকে সবচেয়ে বেশি উন্নতি ঘটানো ২০ দেশের তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে বাংলাদেশ। তবে আফগানিস্তান ছাড়া সার্কভুক্ত অন্য দেশগুলোর তুলনায় বাংলাদেশ এখনও পিছিয়ে রয়েছে। দক্ষিণ এশিয়ার ৮ দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৭। বিশ্বব্যাংকের এ বছরের ‘গ্লোবল ইজ অব ডুয়িং বিজনেস’ বা সহজে ব্যবসা করার সূচকে এ তথ্য উঠে এসেছে। ব্যবসা সহজ করার সূচকে এবার শীর্ষ স্থানে আছে নিউজিল্যান্ড।
গত এক দশকে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে অসাধারণ সাফল্য অর্জন করেছে। শক্তিশালী নেতৃত্ব, সুশাসন, সঠিক উন্নয়ন পরিকল্পনা, স্থিতিশীল সরকার এবং রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বাংলাদেশের অর্থনীতিকে মজবুত করে তুলেছে। বাংলাদেশকে উন্নয়নের মডেল বানিয়েছে। বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সবাইকে অবাক করে দিয়েছে। ব্যবসা সহজ করার সূচকে বাংলাদেশের ৮ ধাপ অগ্রগতিকে বড় অর্জন বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, বৈশ্বিক পর্যায়ে বাংলাদেশের ব্র্যান্ডিং এবং বিনিয়োগ সমপ্রসারণে এই অগ্রগতি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।
অন্যদিকে অর্থনীতিবিদরা আমাদের অর্থনীতি বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে বলে উল্লেখ করেছেন। তাঁরা বলেন, বর্তমান সরকারের ধারাবাহিকতা এবং দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার কারণে বাংলাদেশ অর্থনীতির সব সূচকে এগিয়ে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত যেসব বিশেষ অর্থনীনৈতিক অঞ্চলের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন সেগুলো বাস্তবায়ন হলে আমাদের অর্থনীতি বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে। তবে এ বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশের প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন পত্রিকান্তরে বলেছেন, বাংলাদেশ সহজে ব্যবসা সূচকে কিছুটা উন্নতি করেছে তবে এশিয়ার অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে আছে। এ বছর ভারত ১৪ পয়েন্ট এগিয়েছে সেই তুলনায় বাংলাদেশ তেমন সফলতা পায়নি। ব্যবসা শুরুর ক্ষেত্রে সহজীকরণের জন্য শুধু ডিজিটাল সেবা এবং লোকবল বাড়ালেই হবে না, সিদ্ধান্ত গ্রহণের বিষয়টিও দেখতে হবে। এজন্য ঋণের ক্ষেত্রে ক্রেডিট ইনফরমেশন ব্যুরোর আওতাটা বাড়ানো হয়েছে। আগে দুই বছরের তথ্য রাখা হতো এখন পাঁচ বছরের জন্য রাখা হয়। আগে পঞ্চাশ হাজারের কম ঋণ হলে তার কোনো তথ্য রাখা হতো না এখন এক টাকার ঋণ হলেও তার তথ্য রাখা হচ্ছে। যার কারণে রেটিং ক্রেডিটেই বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি এগিয়েছে। তবে ব্যবসা করার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যাগুলো রয়েই গেছে। বিশেষ করে চুক্তি নিষ্পত্তিকরণের ক্ষেত্রে আমরা এখনো অনেক পিছিয়ে আছি। বিদ্যুৎ সংযোগ পাওয়ার ক্ষেত্রেও তেমন উন্নতি হয়নি এবং সম্পত্তির নিবন্ধীকরণেও তেমন অগ্রগতি নেই। সব মিলে বাংলাদেশকে আরও অনেক কিছু করার বাকি। সরকার এই প্রক্রিয়াগুলো সহজ করার কাজ শুরু করেছে এবং প্রক্রিয়া চলমান। ফলে আগামীতে বাংলাদেশকে আরও ভালো করার সুযোগ রয়েছে।
আবার অনেকে বলেছেন, বাংলাদেশের এই উন্নতি নিয়ে আত্মতুষ্টির কিছু নেই। বাংলাদেশ যদি আরও বিশ ধাপ এগোতো তাহলে বোঝা যেতো বাংলাদেশ ভালো করছে। আপাতত আমাদের এই অর্জনকে ইতিবাচকভাবে নিয়ে সামনে আরও ভালো করতে হবে। বিশ্বব্যাংকের সহজে ব্যবসা করার সূচকে বাংলাদেশের আট ধাপ অগ্রগতিকে ইতিবাচকভাবে দেখেছে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই)। তবে সংস্থাটি মনে করে, আরও উন্নতি করার সুযোগ ছিল। এ সূচকটিতে উন্নতির জন্য যেসব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, সেগুলো পুরোপুরি বাস্তবায়ন না হওয়ায় কাঙ্ক্ষিত অগ্রগতি হয়নি।
বুধবার প্রকাশিত বিশ্বব্যাংকের এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ১০০-এর মধ্যে বাংলাদেশের স্কোর এবার ৪৫, যা গতবছর ছিল ৪১ দশমিক ৯৭। এই উন্নতির পরও ব্যবসার পরিবেশে দক্ষিণ এশিয়ায় আফগানিস্তান ছাড়া সব দেশের চেয়ে পিছিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের এবারের অগ্রগতির কারণ হিসেবে বিশ্বব্যাংক বলছে, ব্যবসা শুরু করতে আগের চেয়ে খরচ কমেছে বাংলাদেশে। রাজধানী ঢাকাসহ শহর এলাকায় বিদ্যুৎপ্রাপ্তিও সহজ হয়েছে। মূলত, একটি দেশের অর্থ-বাণিজ্যের পরিবেশ ১০টি মাপকাঠিতে পরিমাপ করে এই সূচক তৈরি করা হয়। বাংলাদেশের পরিবেশ নির্ধারণে ব্যবহার করা হয়েছে ঢাকা ও চট্টগ্রামের তথ্য। ১০টি মাপকাঠি হলো- নতুন ব্যবসা শুরু করা, অবকাঠামো নির্মাণের অনুমতি পাওয়া, বিদ্যুৎ সুবিধা, সম্পত্তির নিবন্ধন, ঋণ পাওয়ার সুযোগ, সংখ্যালঘু বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষা, কর পরিশোধ, বৈদেশিক বাণিজ্য, চুক্তি বাস্তবায়ন এবং দেউলিয়া হওয়া ব্যবসার উন্নয়ন।
আসলে বাংলাদেশ এবার ৮ ধাপ অগ্রগতি করলেও আমরা কিন্তু পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর তুলনায় পিছিয়ে আছি। তাই এক্ষেত্রে আমাদের কাজ করার আরো অনেক জায়গা আছে। চলমান কর্মসূচি অগ্রাধিকারভিত্তিতে বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমাদের অগ্রগতি সাধিত হবে।

x