উন্নয়ন বিষয়ে কিছু কথা

সোমবার , ১৩ মে, ২০১৯ at ৪:৩৬ পূর্বাহ্ণ
49

কতিপয় মন্ত্রী, এমপি ও নেতা প্রায়ই বলেন, বাংলাদেশ সিংগাপুর-থাইল্যান্ডের মতো উন্নত করেছে। কেউ কেউ আর একটু আগ বাড়িয়ে বলেন, বাংলাদেশ আমেরিকার মতো উন্নয়নের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। কিন্তু বর্ণিত দেশের উন্নতির সাথে আমাদের দেশের খাত-ভিত্তিক উন্নতির তুলনা করলেই দেখা যাবে পার্থক্য কত? নিশ্চয় আকাশ-পাতাল। কেন না, আমেরিকার কথা বাদ দিয়ে শুধুমাত্র সিংগাপুরের উন্নতির সাথে বাংলাদেশের উন্নতির তুলনা করলে বলতে হয়, সিংগাপুরের যে গভীর সমুদ্র বন্দর আছে, সে রূপ একটি গভীর সুমদ্র বন্দর নিজস্ব অর্থে তৈরি করা সম্ভব কিনা। কারণ এর ব্যয় এক লাখ কোটি টাকার উপরে হবে। অবশ্য সোনাদিয়ায় একটি গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণ করার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সর্বশেষ চীন সফরকালে। তখন চীন উত্তর-বন্দর নির্মাণ করে দিতে এবং সমুদয় অর্থ ঋণ হিসেবে দিতে সম্মত হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে তা কার্যকর হয়নি। জনশ্রুতি আছে, ভারতের চাপে পড়ে উক্ত সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে পায়রা বন্দর নির্মাণ করা হচ্ছে। অবশ্য সম্প্রতি আবার সোনাদিয়া গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণের কথা শোনা যাচ্ছে। তবে তা বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত বিশ্বাস নেই। যা হোক, ধনী হতে কিংবা ধনী দেশে পরিণত হতে দেশের সব মানুষই আগ্রহী। এটা সত্য যে, যখন সে সরকার ক্ষমতায় এসেছে তারা প্রত্যেকেই ‘উন্নয়নের জোয়ারে ভাসার’ স্লোগান দিয়েছেন। তবে দেখা যায় সরকার পরিবর্তনের সাথে সাথে সে উন্নয়ন আর উন্নয়ন থাকে না। নতুন সরকার এসে একটা কথাই বলে, বিগত সরকার দেশকে পিছিয়ে দিয়েছে। সে নতুন স্লোগান ধরে। আর বারবার বলা হচ্ছে বিগত সরকার দেশকে একেবারে তলানিতে নিয়ে গিয়েছিল। আমরা দেখেছি যখন সে সরকার ক্ষমতায় থাকে তখন সে সরকারের মন্ত্রী আমলা থেকে শুরু করে তার আশেপাশের একটি শ্রেণি “আঙ্গুল ফুলে কলা গাছ’ হয়। এবং ক্ষমতার যাদুমন্ত্রে বছর না ঘুরতেই ধনবান হয়ে যায়। এ ধরনের উদাহরণ আমাদের চারপাশে অনেক রয়েছে। আর এখন এ ধরনের নব্য ধনবান হওয়ার লোক বেশ বেড়েছে। যাদের অর্থকড়ির অভাব নেই। ক্ষমতাসীনরা এদের দেখেই বলে, মানুষের জীবনমানের অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। অমাাদের দেশের মানুষের সাধারণ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে তারা তিন বেলা ঠিক মতো খেতে পারলে আর সামাজিকতা বজায় রাখতে পারলেই খুশী। এখন যে অধিকাংশ মানুষের এ অবস্থাটা নেই, তা বোধ করি সরকার ছাড়া সকলেই উলপব্ধি করতে পারে। সরকার হয়তো দেখাতে চাচ্ছে রাস্তাঘাটের উন্নয়ন হচ্ছে। বড় বড় ব্রিজ কালভার্ট হচ্ছে, চকচকে দালান কোটা হচ্ছে। এসবই উন্নয়নের সূচক। সরকারি দলের এমপি নেতাদের দেশের উন্নয়ন নিয়ে গর্ব করে অনবরত কথা বলতে শোনা যায়, কেউ কেউ উদাহরণ দিয়ে এখন গ্রামে একজন শ্রমিক তিনশ থেকে পাঁচশ টাকার নিচে পাওয়া যায় না। এটা কি উন্নতি নয়?
-এম.এ গফুর, বলুয়ারদীঘির দক্ষিণ-পশ্চিম পাড়, কোরবানীগঞ্জ, চট্টগ্রাম।

x