উচ্চারকের স্মরণানুষ্ঠান

আনন্দন প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ২১ নভেম্বর, ২০১৯ at ৪:৫৮ পূর্বাহ্ণ
0

একুশের প্রথম কবিতার স্রষ্ঠা কবি মাহবুব উল আলম চৌধুরীর ৯৩ তম জন্মদিন উপলক্ষে উচ্চারক আবৃত্তি কুঞ্জের আলোচনা ও আবৃত্তি সন্ধ্যায় ড. অনুপম সেন বলেছেন, কবি মাহবুব উল আলম চৌধুরী কেবল একজন কবিই ছিলেন না, তিনি ছিলেন তাঁর সময়ের একজন শ্রেষ্ঠ চিন্তাবিদ ও সংস্কৃতিক আন্দোলনের নেতা। তাঁর নেতৃত্বে চট্টগ্রাম নয়, দেশের অনেক বড় বড় সাংস্কৃতিক আন্দোলন হয়েছে। তিনি ছিলেন নির্ভীক এবং স্পস্টভাষী একজন বাঙালি, যার চরিত্রে ছিল বীর বাঙালির দৃঢ়চেতা মনোবল ও স্বপ্ন।
গত ৭ নভেম্বর সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমির মূল মিলনায়তনে উচ্চারকের ‘কাঁদতে আসিনি’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে বরেণ্য সমাজবিজ্ঞানী ড. অনুপম সেন প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। বাচিক সংগঠন উচ্চারক আবৃত্তি কুঞ্জের সভাপতি ফারুক তাহের-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অতিথি আলোচক হিসেবে কবির জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোকপাত করেন অধ্যাপক ও লেখক ড. ইলু ইলিয়াস, সম্মিলিত আবৃত্তি জোট সভাপতি অঞ্চল চৌধুরী ও জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক নাট্যজন সাইফুল আলম বাবু।
ড. ইলু ইলিয়াস বলেন, কবি মাহবুব উল আলম চৌধুরী একজন কবি একজন সম্পাদক। তাঁর হাতে সম্পাদিত হয়েছে তৎকালীন পূর্ব বাংলার প্রথম অসাম্প্রদায়িক পত্রিকা ‘সীমান্ত’। যে পত্রিকার প্রতিটি সংখ্যা বিষয়-বৈচিত্রের কারণে অত্যন্ত গ্রহণযোগ্য হয়েছিল এপার বাংলা ওপার বাংলায়।
অনুষ্ঠানে ভাষাসংগ্রামী ও সমাজচিন্তক মাহবুব উল আলম চৌধুরীর কবিতা থেকে আবৃত্তি করেন আমন্ত্রিত আবৃত্তিশিল্পী মিলি চৌধুরী, মো. সেলিম উদ্দিন, শাহেদুল ইসলাম, সারমিন আক্তার, রীমা দাশ, প্রিয়ম দাশ, সুস্মিতা দত্ত, সুপ্রিয়া চৌধুরী, দীপ্ত বিশ্বাস, ইমতিয়াজ আহমেদ, সারোয়ার আলম দীপ, টুটুল দেবনাথ, জ্যাকসন দাশ ।
উচ্চারক আবৃত্তি কুঞ্জের শিল্পীদের মধ্যে আবৃত্তি করেন শিল্পী মো. মোস্তফা কামাল. এ এস এম এরফান, শামীমা ইয়াছমিন, মন্দিরা বিশ্বাস, এ্যানি চৌধুরী, দীপা দাশ মিতু, নাজিফা তাজনুর ও কবির নাতনি তাসরিন চৌধুরী।
এছাড়া একুশের প্রথম কবিতা ‘কাঁদতে আসিনি ফাঁসির দাবী নিয়ে এসেছি’র পূর্ণাঙ্গ বৃন্দ আবৃত্তি পরিবেশন করেন উচ্চাকের শিল্পীরা।

x