ঈদের বিশেষ পুরস্কার

উৎপলকান্তি বড়ুয়া

বুধবার , ২৯ মে, ২০১৯ at ১১:০৬ পূর্বাহ্ণ
39

শিপলু মামা চার ভাগিনা-ভাগিনাকে এমনিতেই খুব আদর-খাতির করেই থাকে সবসময়। এবার ঈদে মামা তাদের জন্য এই ব্যতিক্রম আয়োজনটা করেছে। শিপলুমামাটা এরকমই। সবসময় এমন কিছু করবে যা অন্য আর কারোর কাছ থেকে কিছুটা হলেও আলাদা।
ঈদের মাত্র সপ্তাহখানেক বাকী থাকতেই চার ভাগিনা-ভাগিনীকে ডেকে প্রস্তাবটা দেন। তোদের চারজনের জন্য আকর্ষণীয় কিছু থাকছে ঈদের বিশেষ পুরস্কার হিসেবে। অবশ্য তোরা যদি তার উপযুক্ত যোগ্য হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করতে পারিস, তবে।
মামার প্রস্তাবে ওরা সবাই রাজী। পুরস্কারটা ঈদের দিনই প্রদান করা হবে। কে কার চেয়ে বেশি ঈদের আগে তাদের নিজের ভাল কাজ দেখাতে পারে, তার উপরই মামা পুরস্কার ঘোষণা করেছে। শিপলুমামার পুরস্কার ঘোষণা করা মানে, মহা ব্যাপার তো বটেই। মোট দশহাজার টাকার প্রাইজবন্ড। ভাল কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ প্রথম পুরস্কার, চার হাজার টাকার প্রাইজবন্ড, দ্বিতীয় পুরস্কার তিন হাজার টাকা, তৃতীয় পুরস্কার দুই হাজার টাকা এবং চতুর্থ পুরস্কার একহাজার টাকা।
দিপু,লিপু, সিপু ও টিপু। চার ভাইবোন। চারজনই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে। কে প্রথম পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হয়েছে। আজ ঈদের দিনে হাউস টিউটরকে বাসায় দাওয়াত দেয়া হয়েছে। তিনি তাদের হাতেকড়ি বয়স থেকেই তাদের নিয়ে আছেন। এখন দিপু, লিপু, সিপু ও টিপু যথাক্রমে ষষ্ট,পঞ্চম, চতুর্থ ও তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র। সেই নির্ভরযোগ্য হাউস টিউটর ও বড়মামা, এ দু’জনের উপর দায়িত্ব অর্পিত হয়েছে। ঈদের এক সপ্তাহ আগে থেকে কে সবচে বেশি ভালো কাজ করতে পেরেছে, তা বিশ্লেষণ করার।
টিপু দিপুকে উদ্দেশ্য করে বলে, বড়ভাইয়া, দেখো তুমিই পাবে প্রথম পুরস্কার।
-না, দেখিস টিপু, সিপু মামার একমাত্র ভাগিনী বলে- সে পাবে প্রথম পুরস্কারটা। মামাতো সিপুকে আবার বেশি দেখতে পারে। দিপু সিপুর দিকে তাকিয়ে টিপ্পনি কেটে কথাটা বলে।
-হ্যাঁ, বলেছে তোমাকে বড়ভাইয়া। স্যার আছে না? বড়মামা আছে না? ওনারা থাকতে কোনো কথা নেই। যেটা সত্যি সেটাই তারা করবেন। সিপু দৃঢ়বিশ্বাসে বড়ভাইয়া আর মেজোভাইয়াকে বুঝিয়ে দেয়।
টিপু বলে-বড়ভাইয়া, আমি যে পুরস্কার খুব ভালো মানের পাবো সে আশাটা করতে পারিনা। কাজের মধ্যে করেছি, বড়দের সাথে শান্ত-ভালো এবং সুন্দর করে কথা বলার চেষ্ঠা করেছি। আমারতো আবার বদনাম। সবাই বলে আমি রেগে কথা বলি। কারোর সাথে এই এক সপ্তাহে একবারের জন্যও ঝগড়া বা রাগারাগি করিনি। এ কথা অন্তত বলতে পারি।
সিপু চটজলদি বলে ওঠে, টিপু আমি অবশ্য তোর চেয়ে খানিকটা এগিয়েই আছি হয়তো। কেননা, আমার খুব প্রিয় লালফুল জামাটা, সেদিন যে ভিখারিনীর মেয়েটাকে দিয়ে দিয়েছি। জামাটার ডানহাতার পেছন দিকে তবে বেশ খানিকটা কালির দাগ লেগেছিল। তারপরও কাপড়-বস্ত্রদান, বড় দান। আমিতো আমার প্রিয় জামাটা দান করেছি।
দিপু বলে, আরে শোন শোন তোরা। আমি এই এক সপ্তাহে যা ভালো কাজ করেছি, তাতে আশা করি তোদের সকলকে অবশ্যই ছাড়িয়ে যাবো।
টিপু ও সিপু সমস্বরে বলে ওঠে- কি এমন ভালো কাজ করেছো বড়ভাইয়া, বলো দেখিতো শুনি। যা, আমাদের সকলের চেয়ে ভালো।
কেন, তোরা মনে করে দেখতো। প্রতিদিন সকালে সবার আগে ঘুম থেকে আমি উঠেছি। দুপুরে বাইরে না খেলে লেখাপড়া করেছি। এই এক সপ্তাহ বাবা-মা’র কোনো কথাই অমান্য করিনি। দেখিসনি, গত পরশুদিনের আগেরদিন বাবার সাথে বাজারে গিয়েছি। বাজারের থলি নিয়ে একাই বাজার থেকে হেঁটে বাসায় চলে এসেছি। মা তো বাজারের থলি হাতে আমায় দেখে মহাখুশি। এটা কী সত্যি ভালো কাজ নয়?
লিপুর উদ্দেশ্য এবার সিপুর প্রশ্ন, লিপু ভাইয়া, এই এক সপ্তাহে তোমার ভালো কাজ কি কি বলো তো দেখি?
লিপুর একটু কম কথা বলা স্বভাব। কিছুটা বিরক্তভাব নিয়েই বললো-আহা এমন করছো কেনো, এত কথা বলছো কেনো ? অপেক্ষা করোই না। সময় হলে ঠিকই দেখতে পাবে, কে কতটুকু ভালো কাজ করেছো।
নাছোড়বান্দা দিপু, সিপু ও টিপু একসাথেই লিপুকে অনেকটা জোর করে ধরে, তার এই সপ্তাহে ভালো কাজের বিবরণ শোনার জন্যে।
কী আর করা! লিপু অগত্যা এই এক সপ্তাহে তার ভালো কাজের বিবরণ বর্ণনা করে।
-আমাদের বাসার সামনে যে ভিখারিটা বসে তাকে ইফতারের জন্য প্রতিদিন কিছু টাকা আমি দিয়েছি।
-লিপু তুই টাকা কোথায় পেয়েছিস ? দিপুর তড়িৎ প্রশ্ন।
-ইশকুলের টিফিন থেকে বাঁচিয়ে জমানো টাকা আছে না আমার। সেখান থেকে দিয়েছি।
টিপু-সিপু প্রশ্ন করে-আর?
ছোট খালাম্মার দেয়া এবার ঈদের নতুন জামা-প্যান্ট দুটো আমাদের বুয়ার ছেলেটাকে দিয়েছি।
-ও মাই গড! মা শুনলে তো তোকে— দিপুর চোখ জোড়া কপালে উঠে যায়।
-মা জানে। মাকে বলেই, তবে দিয়েছি। আমার তো, আরেক জোড়া নতুন জামা-প্যান্ট,পাঞ্জাবি আছে। বুয়ার ছেলেটার তো একটাও নতুন ঈদের জামা প্যান্ট নেই। ও কি , ঈদে নতুন জামা পরবে না? তাই দিয়েছি।
হাউস টিউটর এবং বড়মামা ভেতরের ঘর থেকে ড্রয়িং রুমে এসে বসেন। এতক্ষণে নির্ধারিত হয়ে গেছে, কোন ভালো কাজের জন্যে কে কোন পুরস্কার পাচ্ছে। বাসার সবাই আছেন। মা বাবা শিপলুমামা ছোটচাচা, বড়চাচা, ছোটচাচী, বড়চাচী, বুয়া সবাই জড়ো হয়েছে। এখনই শিপলুমামার দেয়া চার ভাগিনা-ভাগিনীর জন্যে ঈদের বিশেষ পুরস্কার ঘোষণা করবেন। হাবভাবে বুঝতে বাকী নেই যে, বড়মামাই পুরস্কার ঘোষণার জন্যে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। দিপু, লিপু, সিপু ও টিপু। সবার ভেতরে উত্তেজনা। বড়মামা উঠে দাঁড়ালেন। এখনই পুরস্কার ঘোষণা করবেন। প্রথম পুরস্কার, দ্বিতীয় পুরস্কার, তৃতীয় পুরস্কার ও চতুর্থ পুরস্কার। চার হাজার টাকার প্রাইজবন্ড, তিন হাজার টাকার প্রাইজবন্ড, দুই হাজার টাকার প্রাইজবন্ড ও এক হাজার টাকার প্রাইজবন্ড। কে পাবে প্রথম পুরস্কার ? দ্বিতীয় পুরস্কার ? তৃতীয় পুরস্কার বা চতুর্থ পুরস্কার ? দিপু লিপু সিপু টিপুর বুকের ভেতর চাপা উত্তেজনার জোয়ার বয়ে যায়।

x