আথ্রাইটিস রোগে যোগাসনের ভূমিকা

মো. মুজিবুল হক শ্যামল

শনিবার , ১২ অক্টোবর, ২০১৯ at ৪:২৩ পূর্বাহ্ণ
87

আজ ১২ অক্টোবর বিশ্ব আথ্রাইটিস দিবস। বাত- আথ্রাইটিস (গ্রীক শব্দ আর্থো- সন্ধি, আইটিস-প্রদাহ) হল মূলত অস্থিসন্ধির প্রদাহ যা একাধিক অস্থি সন্ধিকে আক্রান্ত করে। এটা শিল্পোন্নত দেশে ৫০-৫৫ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়সের মানুষের অক্ষমতা মূল কারণ। বাত ব্যথা জনিত অন্যান্য রোগের মধ্যে আথ্রাইটিস উল্লেখযোগ্য। মানুষের শরীরের জোড়ার অনেকগুলো রোগ বা সমস্যাকে একসাথে আথ্রাইটিস বলা হয়। আর আথ্রাইটিস সম্পর্কে জানার আগে আমাদের মানুষের জয়েন্ট বা অস্থি সন্ধি সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে। মানুষের শরীরে বহু জয়েন্ট বা জোড়া রয়েছে এবং এই সব জোড়া তিন প্রকার আর এসব জোড়ায় যদি কোনভাবে প্রদাহ বা ইনফ্লামেশন হয় তখন আমরা ডাক্তারী ভাষায় আথ্রাইটিস বলে থাকে।
আথ্রাইটিস এক বা একাধিক জোড়ায় ব্যথা হবে, জোড়া ফুলে যেতে পারে গরম হতে পারে, নড়াচড়ায় ব্যথা তীব্র থেকে তীব্রতর হতে পারে, রোগীদের দৈনন্দিন কাজকর্ম চলাফেরায় অসুবিধা হবে, অনেক সময় জ্বরও আসতে পারে, পাশাপশি শরীর ক্লান্তিবোধ অবসাধ, হতাশা, অনিদ্রা দেখা দিতে পারে। এভাবে চলতে থাকলে আস্তে আস্তে রোগী তার দেহের জোড়ার কর্মক্ষমতা বা নড়াচড়ার ক্ষমতা হারায় এবং জোড়া সম্পূর্ণ অকোজো হয়ে রোগী পঙ্গুত্ব বরণ করতে পারে। অনেক সময় দীর্ঘদিন রোগ ভোগে শরীরের মাংসপেশিগুলো শুকিয়ে যেতে পারে। আথ্রাইটিস একশত এরও বেশি প্রকার রয়েছে। তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে অস্টিওআথ্রাইটিস, রিউমাটয়েড আথ্রাইটস, এনকালজিং স্পন্ডাইলসিস, গাউট, জুভেনাইল আথ্রাইটিস যা বাচ্চাদের হয় সোরিয়াটিক আথ্রাইটিস, রি-একটিভ আথ্রাইটিস, সেপটিক আথ্রাইটিস স্কে-রোডারমা, এস এলই, তাছাড়া অন্যান্য রোগের কারণেও আথ্রাইটিস হতে পারে। যোগাসনকে বর্তমানে চিকিৎসা বিজ্ঞানের অন্যতম প্রধান মাধ্যমরুপে স্বীকৃতি দান করা হয়েছে। কম বেশি সকল শল্যচিকিৎসাই অস্থিসংক্রান্ত কোন রোগের শল্যচিকিৎসার পর অথবা উক্ত রোগের প্রাথমিক অবস্থায় নির্দিষ্ট সময়ের চিকিৎসার পর প্রয়োজনে রোগীকে একজন যোগ-থেরাপিস্ট বা ফিজিওথেরাপিস্টের নিকট পাঠানো দরকার। বিশেষ করে বাত জাতীয় উপসর্গে যোগাসনের ভূমিকা বর্তমানে সর্বজনগ্রাহ্য। বাতের যেহেতু নির্দিষ্ট কোনো ঔষধ এখনও পর্যন্ত নেই, ফলে সঠিক পদ্ধতিতে অভিজ্ঞ যোগ-থেরাপিস্টের পরামর্শ মতে যোগাসন অভ্যাস করতে হবে। নিয়মিত যোগাসন অভ্যাস করলে একজন বাত রোগী নিশ্চয়ই এ রোগ থেকে মুক্তি পেতে পারেন। বিভিন্ন যৌগিক ভঙ্গীতে মুভমেন্ট এক্সারসাইজ, স্ট্যাটিক এক্সারসাইজ, রেজিস্ট্যান্স এক্সারসাইজ করিয়ে রোগীকে আরোগ্যের পথে নিয়ে যেতে হবে। কয়েকটি যোগাসন বাত-রোগের নিরাময়ের জন্য খুবই উপযোগী। যেমন- যুষ্টিআসন, ভুজঙ্গাসন, অর্ধশলভাসন, পবনমুক্তাসন, অর্ধমৎস্যেন্দ্রাসন, উৎকটাসন, হলাসন, গোমুখাসন, নৌকাসন, উখিত নিতম্বাসন প্রভৃতি যোগাসন। এছাড়া ফিজিওথোপি আথ্রাইটিস রোগ চিকিৎসার এক অপরিহার্য অংশ। ফিজিও-থেরাপি বিভিন্ন পদ্ধতি প্রয়োগ করে আথ্রাইটিস কমানোর ব্যবস্থা করা হয়। ফিজিওথেরাপির মূল লক্ষ্যই হবে আক্রান্ত জয়েন্টগুলিকে একটিভ অথবা পেসিভ এক্সারসাইজ পদ্ধতিতে নড়া-চড়া করিয়ে অস্থি-সন্ধিগুলিকে সচল রাখে।

x