অরুনিমা আশ্রয়ণ প্রকল্পে ১৮ লাখ টাকা বরাদ্দ

আর ভিজতে হবে না ২০০ পরিবারকে

ছোটন কান্তি নাথ, চকরিয়া

রবিবার , ১৬ জুন, ২০১৯ at ৬:৫২ পূর্বাহ্ণ
41

এবারের বর্ষায় আর বৃষ্টিতে ভিজতে হবে না কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের ‘অরুনিমা আশ্রয়ণ প্রকল্পের’ উপকারভোগী ২০০ পরিবারের শিশু-নারীসহ প্রায় দেড় হাজার সদস্যকে। দীর্ঘ একযুগ ধরে বৃষ্টিতে ভিজে, রোদে পুড়ে এসব পরিবারের সদস্যরা মানবেতর জীবন-যাপন করলেও এতদিন কেউ ফিরেও তাকায়নি। অবশেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টিগোচর হওয়ায় এসব পরিবারের দুঃখ-দুর্দশা লাঘবে আশ্রয়ণ প্রকল্পের জরাজীর্ণ হয়ে পড়া ছাউনি ও বিভিন্ন স্থাপনা সংস্কারের জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেন তিনি। এরই অংশ হিসেবে প্রাথমিকভাবে ১৮ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ থেকে। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের যুগ্ম সচিব ও বাংলাদেশ আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর প্রকল্প পরিচালক (পিডি) মো. মাহবুব হোসাইনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল জরাজীর্ণ হয়ে পড়া অরুনিমা আশ্রয়ণ প্রকল্পটি পরিদর্শন করেন। এ সময় সংস্কারের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এতে এসব পরিবারের মুখে হাসি ফুটেছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পেকুয়ার ইউএনও মো. মাহবুব-উল করিম, চকরিয়ার ইউএনও নূরুদ্দীন মুহাম্মদ শিবলী নোমান, পেকুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জহিরুল ইসলাম, কক্সবাজার-১ আসনের এমপি জাফর আলমের ব্যক্তিগত সহকারি (পিএস) আমিন চৌধুরী প্রমুখ।
উল্লেখ্য, অরুনিমা আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দাদের মানবেতর জীবন-যাপনের খবর পেয়ে সম্প্রতি কক্সবাজার-১ আসনের এমপি জাফর আলম সরজমিন পরিদর্শন করেন। এর পর প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে এমপি আবেদন করেন জরাজীর্ণ আশ্রয়ণ প্রকল্পটি প্রয়োজনীয় সংস্কারের অর্থ বরাদ্দের জন্য। পেকুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জহিরুল ইসলাম বলেন, আমার এলাকাতেই এই আশ্রয়ণ প্রকল্পের অবস্থান। দীর্ঘ একযুগ ধরে এই আশ্রয়ণ প্রকল্পের উপকারভোগী ২০০ পরিবারের অন্তত ১৫০০ সদস্য প্রতিবছর বৃষ্টিতে ভিজে ও রোদে পুড়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছিলেন। তাদের এই দুর্দশার বিষয়টি আমি নিজেও এমপিকে অবহিত করি। এমপি জাফর আলমের ব্যক্তিগত সহকারী অ্যাডভোকেট আমিন চৌধুরী দৈনিক আজাদীকে বলেন, ইউ আকৃতির অরুনিমা আশ্রয়ণ প্রকল্পের ২০ ব্যারাকের জরাজীর্ণ ছাউনি ও প্রয়োজনীয় স্থাপনা সংস্কারের জন্য এমপি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আবেদন করেন এবং সংশ্লিষ্ট দপ্তরের হিসেব অনুযায়ী প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার মতো অর্থ বরাদ্দ চান। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর প্রকল্প পরিচালক ও প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের যুগ্ম সচিব মো. মাহবুব হোসাইন সরেজমিন পরিদর্শনে এসে প্রাথমিকভাবে ১৮ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেন। আমিন চৌধুরী বলেন, এ সময় অরুনিমা আশ্রয়ণ প্রকল্পে রক্ষিত একটি বিশাল পুকুরের চারদিকে টেকসই ঘেরাবেড়া দিয়ে নিরাপদ করা এবং চারটি ঘাট নির্মাণেরও নির্দেশনা দেন পেকুয়ার ইউএনওকে। যাতে এসব পরিবারের কোন শিশু বা সদস্য দুর্ঘটনার শিকার না হন। এ সময় তিনি এই বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণের জন্যও কক্সবাজার-১ আসনের এমপি জাফর আলমের প্রশংসা করে ধন্যবাদ জানান এবং আরো অর্থ বরাদ্দ দেওয়ার আশ্বাস দেন।এদিকে প্রকল্প পরিচালক ও যুগ্ম সচিব মাহবুব হোসেন একইদিন পরিদর্শন করেন চকরিয়া উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নের আশ্রয়ণ প্রকল্পটিও। এ সময় সেখানে তেমন কোন সমস্যা দেখতে পাননি তিনি। তবে ভরাট করে ফেলা সেখানকার পুকুরটি পুনরায় খননের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন। এছাড়া পেকুয়া সদরের চৈরভাঙা ও মগনামার আশ্রয়ণ প্রকল্পও পরিদর্শন করেন তিনি।

x