অভিশংসনের আরও কাছে ট্রাম্প

দুই অভিযোগ অনুমোদন বিচার বিভাগীয় কমিটির ।। কোনো দোষ করিনি, তবু আমাকে ইমপিচ করা হচ্ছে, এটা অন্যায় : টুইট ট্রাম্পের

রবিবার , ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ at ৯:১৭ পূর্বাহ্ণ

ক্ষমতার অপব্যবহার ও কংগ্রেসের কার্যক্রমে বাধাদানের অভিযোগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসনের প্রক্রিয়া শুরু করতে অনুমোদন দিয়েছে দেশটির প্রতিনিধি পরিষদের বিচারবিভাগীয় কমিটি। শুক্রবার ২৩-১৭ ভোটে এটি অনুমোদিত হয় বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। বিচারবিভাগীয় কমিটির অনুমোদনের পর মাত্র দুই ঘণ্টায় ১২৩ বার টুইট করে রেকর্ড গড়েছেন ট্রাম্প। টুইটে রীতমতো ক্ষোভ প্রকাশ করে ট্রাম্প লিখেছেন, ‘আমি কোনো দোষ করিনি। আমাকে অযথা ইমপিচ করা হচ্ছে। এটা অত্যন্ত অন্যায়।’ আগামী বছর যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, ইমপিচমেন্টই আগামী দিনে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে শক্তিশালী হাতিয়ার হয়ে উঠতে পারে বিরোধীদের। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে ইমপিচ করার প্রস্তাব মার্কিন কংগ্রেসের কমিটি অনুমোদন করায় হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসে তোড়জোড় শুরু হয়ে গিয়েছে। হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসে সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে প্রতিদ্বন্দ্বী দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টির। ফলে সেখানে ইমপিচমেন্ট প্রস্তাবটি পাস হয়ে যাবে বলেই সকলের ধারণা। তার পর প্রস্তাবটি আসবে ১০০ সদস্যের সেনেটে। সেখানে অবশ্য ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টিরই সংখ্যাগরিষ্ঠতা।
ইমপিচমেন্ট প্রস্তাব আনার ব্যাপারে যারা মূল উদ্যোগ নিয়েছেন, সেই র‌্যাডিকাল লেফ্‌ট (অতিবামপন্থী)ও ডেমোক্র্যাটদের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। লিখেছেন, ‘‘র‌্যাডিকাল লেফ্‌ট আর নিষ্কর্মা ডেমোক্র্যাটরা সকলেরই ঘৃণার পাত্র হয়ে উঠছেন। আমাদের দেশের পক্ষে ওদের মতো খারাপ আর কিছু হয় না।’ মার্কিন প্রেসিডেন্টের মতে, ‘এই ইমপিচমেন্ট আদতে বিরোধীদের একটা ‘ধাপ্পাবাজি’ আর ‘রাজনৈতিক চাল। ইমপিচমেন্টের কথা ওঠে খুব জরুরি কিছু ঘটলে। ডেমোক্র্যাটদের জন্য ওবামা (পূর্বতন মার্কিন প্রেসিডেন্ট) যা করেছিলেন, আমি ওদের জন্য তার চেয়ে বেশি করেছি। তার পরেও আমার বিরুদ্ধে ওরা এই প্রস্তাব এনেছেন।’ এর জেরে আগামী দিনে কোনও ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্টও রিপাবলিকান সদস্যে ভরা হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসে ইমপিচমেন্টের মুখে পড়তে পারেন বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ট্রাম্প।
প্রসঙ্গত, বিচারবিভাগীয় কমিটি শুক্রবার শুনানি শেষে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে দুটি অভিযোগে অনুমোদন দেয়। এর মধ্যে ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগে বলা হয়েছে, আগামী নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের দুর্নীতি নিয়ে তদন্ত করতে ইউক্রেইনের ওপর চাপ সৃষ্টির চেষ্টা করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিজের স্বার্থ হাসিলে বিদেশি একটি রাষ্ট্রকে যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে হস্তক্ষেপের সুযোগ করে দিয়েছেন। প্রতিনিধি পরিষদের তদন্তে সহযোগিতা না করায় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে কংগ্রেসের কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত করার অন্য অভিযোগটি আনা হয়েছে। প্রেসিডেন্টকে ‘অভিশংসনযোগ্য’ এ অভিযোগ দুটির ধারাগুলো ৯ পৃষ্ঠা জুড়ে বিবৃত হয়েছে, জানিয়েছে বিবিসি। এ নিয়ে বৃহস্পতিবারই হাউসের এই জুডিসিয়ারি কমিটিতে ভোট হওয়ার কথা ছিল; যদিও পক্ষে-বিপক্ষে ১৪ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে চলা বিতর্কে তা আটকে যায়। শীর্ষ ডেমোক্রেট নেতারা বলছেন, দুর্নীতির মাধ্যমে ট্রাম্প ‘জাতির সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা’ করেছেন। খবর বিভিন্ন সংবাদ সংস্থার।

x