অক্সিজেন মোড়ের যানজট কমাতে সরানো হল টেক্সি স্ট্যান্ড

সোহেল মারমা

শনিবার , ৯ নভেম্বর, ২০১৯ at ৪:১৯ পূর্বাহ্ণ
1538

নগরীর অক্সিজেন মোড় কেন্দ্রিক যানজট ঠেকাতে গ্রাম সিএনজি টেক্সির অস্থায়ী স্ট্যান্ড থেকে এক কিলোমিটার দূরে সরিয়ে দিয়েছে ট্রাফিক পুলিশ। গত সোমবার থেকে সিএমপির ট্রাফিক উত্তর বিভাগ ওইসব টেক্সিকে শহরের বাইরে সরিয়ে দেয়ার কার্যক্রম শুরু করে। বর্তমানে চট্টগ্রাম বিআরটিএ কার্যালয় সংলগ্ন নতুন পাড়া এলাকা থেকে গ্রাম সিএনজিকে শহরের ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না।
নগর পুলিশের উপ কমিশনার (ট্রাফিক-উত্তর) আমির জাফর দৈনিক আজাদীকে বলেন, অক্সিজেন মোড় শহরের প্রবেশ মুখ। বৈধ-অবৈধ সিএনজি টেক্সির জটলার কারণে সেখানে সবসময় যানজট লেগে থাকে। এছাড়া এসব সিএনজি টেক্সির শহর এলাকায় চলাচলের বৈধতা নেই। অক্সিজেন মোড়কে যানজটমুক্ত করতে এমন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে শহরের বিভিন্ন জায়গায় এ ধরনের কার্যক্রম নেয়া হবে।
অক্সিজেন মোড় থেকে গ্রাম সিএনজি সরিয়ে দেওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম নয়। এর আগেও বিভিন্ন সময় মোড় কেন্দ্রিক যানজট এড়াতে ট্রাফিক পুলিশের পক্ষ থেকে এই এলাকায় গ্রাম সিএনজির প্রবেশ ঠেকানো হয়। সর্বশেষ ট্রাফিক উত্তর বিভাগের তৎকালীন ডিসি হারুনুর রশীদ হাজারী দায়িত্ব থাকাকালীন অক্সিজেন মোড় ও কাপ্তাই রাস্তার মাথা এলাকায় থাকা টেক্সি স্ট্যান্ড সরিয়ে দেওয়া হয়। তবে ওই উদ্যোগ কার্যকরের সপ্তাহ পেরোতেই আবারো ওইসব এলাকায় গ্রাম সিএনজির স্ট্যান্ড বসে যায়।
অক্সিজেন মোড় ও কাপ্তাই রাস্তার মাথা এলাকায় তিন হাজারের অধিক গ্রাম সিএনজি রয়েছে। এসব টেক্সির চলাচল ঘিরে প্রতি মাসে অন্তত কোটি টাকার ওপরে বাণিজ্য হয়ে থাকে। পুলিশ ও স্থানীয় রাজনৈতিক দলের ক্যাডারদের মাসোহারা দিয়ে শ্রমিক সংগঠনগুলো ওইসব সিএনজি আবারো রাস্তায় নামিয়ে দেয় বলে অভিযোগ রয়েছে। এ কারণে ট্রাফিক পুলিশের ওই উদ্যোগ বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। এ ব্যাপারে ডিসি আমির জাফর বলেন, এবারের উদ্যোগ স্থায়ী হবে। গ্রাম সিএনজি আর কোনোভাবেই শহরে প্রবেশ করবে না।
সরেজমিনে দেখা যায়, নতুন পাড়া এলাকায় একটি ব্রিজ সংলগ্ন সড়কের এক পাশে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়ানো রয়েছে জেলায়
চলাচলের নিবন্ধন নেয়া গ্রাম সিএনজি টেক্সি। অন্যদিকে অপর পাশে দাঁড়ানো রয়েছে মেট্রো এলাকায় চলাচলের জন্য নিবন্ধনকৃত সিএনজি। মাঝখানে ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা ওইসব যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করছেন। ট্রাফিক পুলিশ সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জেলায় চলাচলকারী গ্রাম সিএনজি নতুনপাড়া এলাকায় যাত্রী উঠা-নামা করতে পারবে। তবে শহরের ভেতরে প্রবেশ করতে পারবে না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ট্রাফিক পুলিশের একজন সার্জেন্ট বলেন, পুলিশের ভালো-মন্দ উভয় দিক আছে। আমরা এখন একটি ভালো উদ্যোগ নিয়ে মাঠে নেমেছি। এখন সম্মিলিত প্রচেষ্টা থাকলে এই উদ্যোগ স্থায়ী হবে। তবে ইতিমধ্যে এসব গাড়ির লাইন নিয়ন্ত্রণ নিয়ে শ্রমিক শ্রেণিসহ বিভিন্ন মহলের তৎপরতা শুরু হয়ে গেছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে।

x