৬ষ্ঠ জয় পেয়ে শীর্ষে পাইরেট্‌স, বন্দর

সিজেকেএস প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগ

ক্রীড়া প্রতিবেদক

রবিবার , ১৪ এপ্রিল, ২০১৯ at ৮:০৩ পূর্বাহ্ণ
18

সিজেকেএস ইস্পাহানী প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে ছয়টি করে ম্যাচ জিতেছে শিরোপা প্রত্যাশি পাইরেট্‌্‌স অব চিটাগাং এবং চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ ক্রীড়া সমিতি। গতকাল দু’দলই নিজ নিজ খেলায় জিতে লিগ টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে।
গতকাল এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত খেলায় পাইরেট্‌্‌স অব চিটাগাং ৫ উইকেটে ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্লাবকে পরাজিত করে। ব্রাদার্স ৩টি খেলায় জয় পায় এবং ৩টি খেলায় পরাজিত হয়। টসে জিতে পাইরেট্‌্‌স ব্রাদার্সকে প্রথমে ব্যাট করতে পাঠায়। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ব্রাদার্স ২২০ রান সংগ্রহ করে ৯ উইকেট হারিয়ে। শুরুতে খানিকটা বেকায়দায় থাকলেও পরবর্তীতে আবদুল গফুর পন্টি আর সোহরাওয়ার্দী শুভর দুই অর্ধশতকে ব্রাদার্স দু’শতাধিক রান করতে সমর্থ হয়। পন্টি ৫৪ রান করেন ১৩৬ কবল খেলে। অন্যদিকে ৫৫ বল খেলে ৭৬ রান করে আউট হন শুভ। এছাড়া মইনুদ্দিন রুবেল ২১,ইয়াসির আলী রাব্বী ১২,শরীফুল্লাহ ১২ এবং নকিব ১১ রান করেন। অতিরিক্ত রান হয় ১৪। পাইরেট্‌্‌স এর অংশুমান ঘোষ ৩১ রান দিয়ে ৪টি উইকেট দখল করেন। সোহাগ গাজী পান ২টি উইকেট। বেলাল হোসেন এবং রেজাউল করিম ১টি করে উইকেট নেন।
জবাব দিতে নেমে পাইরেট্‌্‌স অব চিটাগাং শুরুতেই ধাক্কা খায়। ব্রাদার্স ইউনিয়নের শাহনিন মাহিমের বোলিং তোপে কোন রান না করেই বিদায় নেন ওপেনার পিয়ার মো.সৌরভ। ১ রান করে ফেরত যান আরমানউল্লাহ। আবারো শুণ্য রানে বিদায় হন আবদুল কাদের রাসেল। দলীয় ১৩ রান করতেই চারটি উইকেট চলে যায় পাইরেট্‌্‌স অব চিটাগাং এর। সব কটি উইকেটই দখল করে নেন শাহনিন মাহিম। কিন্তু এরপরই পরিস্থিতি পাল্টে যায়। ওমর ফারুক সজিবের অপরাজিত ৮৫ এবং অধিনায়ক রেজাউল করিমের অপরাজিত ৯৯ রানে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে পাইরেট্‌্‌স। মাঝে ইনজামাম উল হক ১৪ রানে আউট হলেও ঐ দুজন দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেন। রেজাউল ১০০ রান করে ৯৯ রান করেন ১০টি চারে। ১ রানের জন্য সেঞ্চুরি না পেলেও দলের জয়ে সে আফসোস থাকার কথা নয় রেজাউলের। পাইরেট্‌্‌স ৪৫.৩ ওভার ব্যাট করে ৫ উইকেট হারিয়ে ২২২ রানে পৌঁছে। ব্রাদার্স ইউনিয়নের শাহনিন মাহিম ৩৭ রানে ৪টি উইকেট এবং নকিব ৪৪ রান দিয়ে ১টি উইকেট লাভ করেন। জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে লিগের অপর খেলায় অফিসিয়াল দল চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ ৯৯ রানের বড় ব্যবধানে ফ্রেন্ডস ক্লাবকে পরাজিত করে। ফ্রেন্ডস ক্লাব এ নিয়ে তিন খেলায় পরাজিত হয়েছে। তারা চারটি খেলায় জয়লাভ করে। গতকাল টসে জিতে ফ্রেন্ডস প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়। ব্যাট করতে নেমে বন্দর ৫০ ওভার ব্যাট করে ৫ উইকেটে ৩০১ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর দাঁড় করায় ফ্রেন্ডসের সামনে। ওপেনিং জুটিতেই সংগৃহিত হয় ১৪০ রান। ওপেনার সাদিকুর রাহমান ৭১,ইফতেখার সাজ্জাদ ৬৭,আশিকুল আলম ৬৬ এবং মো. রুবেলের অপরাজিত ৫২-এই চার অর্ধশতকে স্কোর তিনশো পার হয়ে যায় বন্দরের। এছাড়া সাজ্জাদুল হকের ব্যাট থেকে আসে ৩৩ রান। অতিরিক্ত রান হয় ১০। ফ্রেন্ডস ক্লাবের শোয়েব ২টি,তানভির এবং লিখন ১টি করে উইকেট পান। ৩০২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ফ্রেন্ডস ক্লাব ২০২ রানেই থেমে যায়। আল আমিন ৩৬,আবু নেওয়াজ লিখন ৬৭,শরীফুল ইসলাম ১৬,শাহদাত বাবু ২৭ এবং মো. শোয়েব ১০ রান করেন। বাকিদের কারো ভূমিকা না থাকলে দলের হার ত্বরান্বিত হয়। অতিরিক্ত থেকে আসে ২২ রান। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের মেহেদী হাসান ৩৪ রান দিয়ে ৪টি উইকেট দখল করেন। ২টি উইকেট পান ইফতেখার সাজ্জাদ। ১টি করে উইকেট নেন তন্ময় পাটোয়ারী এবং মো. বেলাল।

x