৩ দিনের মধ্যে পুনঃতফসিল দাবি

ডাকসু নির্বাচন

আজাদী ডেস্ক

বৃহস্পতিবার , ১৪ মার্চ, ২০১৯ at ৬:৩৮ পূর্বাহ্ণ
414

৩ দিনের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) পুননির্বাচনের তফসিল ঘোষণার দাবিতে উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন পাঁচটি প্যানেলের প্রতিনিধিরা। গতকাল নবনির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুর, লিটন নন্দী, এআরএম আসিফুর রহমানসহ দশজনের একটি প্রতিনিধি দল ভিসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এসময় তারা মৌখিকভাবে উপাচার্যকে নিজেদের দাবি দাওয়া জানান।
এদিকে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে পাল্টাপাল্টি অবস্থান নেন স্যার এ এফ রহমান হলের ছাত্রলীগ ও বাম জোটের প্রার্থীরা। গতকাল দুপুরের পর থেকে এফ রহমান হলের শিক্ষার্থীরা ছাত্রলীগের কর্মী ও সাধারণ ভোটারের ব্যানারে অবস্থান নেন। তাদের এই অবস্থান নেওয়ার প্রতিবাদে বিকেল থেকে পাল্টা অবস্থান নেন হল সংসদে বাম জোটের প্রার্থী-সমর্থকরা। দু’পক্ষই প্ল্যাকার্ড নিয়ে পাশাপাশি অবস্থান করেন। তাদের পেছনে পুননির্বাচনের দাবিতে আমরণ অনশন করছেন নির্বাচনে অংশ নেওয়া প্রার্থী ও সাধারণ ভোটাররা।
রাজু ভাস্কর্যের সামনে অবস্থান নেয়া ছাত্রলীগের একটি প্ল্যাকার্ডে লেখা আছে, ‘আমার হলে ছাত্র ইউনিয়নের প্রার্থীই ছিল মাত্র ৩ জন। এবার বলুন, ১৩টি পদের হল সংসদ নির্বাচনে আপনারা কিভাবে জয় আশা করেন? আপনি জিতলে সুষ্ঠু, আমি জিতলে কারচুপি?’ নিজেকে ছাত্রলীগ পরিচয় দেয়া এক শিক্ষার্থী বলেন, ডাকসু নির্বাচনে যেসব ভুল ত্রুটি ছিল সেগুলো কাটিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন একটি নির্বাচন করেছে। যেসব পোস্টে বাম ও স্বতন্ত্ররা জয় লাভ করেছে, সেগুলোতে কোনো ঝামেলা নেই। যেসব পদে জয় পায়নি সেগুলো নিয়ে প্রশ্ন তুলছে। এসব কথা হাস্যকর। তারা ক্যাম্পাসকে অস্থিতিশীল করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। আমরা এসব দ্বিমুখী আচরণের প্রতিবাদ জানাই। আমরা চাই, ক্যাম্পাসে নিয়মিত ক্লাস পরীক্ষা হোক। ক্যাম্পাসে শিক্ষার পরিবেশ বজায় থাক। তিনি আরো বলেন, হল সংসদে ইউনিয়ন পূর্ণ প্যানেল দিতে পারে না। তারা কী জয় প্রত্যাশা করে!
অন্যদিকে, বাম জোটের প্যানেল থেকে অংশ নেওয়া প্রার্থী ও সমর্থকদের প্ল্যাকার্ডগুলোতে লেখা আছে, রাজু চত্বর বেহায়াদের জন্য নয়; এখানে নির্বাচন বেচা হয়; একটি সিটের বিনিময়ে বিবেক বেচার দল; এফ রহমান হলের তিন প্রার্থীর একজন আমি। জানি তো, কী ঘটেছিল; ‘ভিসিত্র’ নির্বাচন; প্রশাসনের মেরুদণ্ড নাই। ছিঃ!
এর আগে উপাচার্যের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে বামজোটের অন্যতম ছাত্রনেতা লিটন নন্দী সাংবাদিকদের বলেন, আমরা পুননির্বাচনের দাবিতে উপাচার্যের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছি। এরপর আমরা তার কাছে আমাদের দাবি দাওয়াগুলো জানাই। আমরা তাকে তিনদিনের মধ্যে দাবি মেনে পুনঃতফসিল ঘোষণার আল্টিমেটাম দিয়েছি। তবে ভিসি আমাদের কোনো কথা দেননি। উল্টো তিনি আমাদের বলেছেন, যারা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশৃঙ্খলা করবে, তাদের হাড়গোড় থাকবে না। তবে আমরা তাতে ভীত নয়। আমরা পুননির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাবো।
তিনি আরও বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। আমরা সেটিও প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছি। তবে সে বিষয়েও আমরা কোনো আশ্বাস পাইনি।
স্বতন্ত্রজোট থেকে ভিপি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী অরনী সামন্তী খান বলেন, আমরা উপাচার্যের কাছ থেকে কোনো আশ্বাস পাইনি। আমরা পুননির্বাচনের জন্য আন্দোলন চালিয়ে যাবো। উপাচার্য আমাদের দাবি না শুনে উল্টো অনেক কথা শুনিয়ে দিয়েছেন। পরে উপাচার্য ভবনের সামনে থেকে প্রতিনিধি দলটি মিছিল নিয়ে রাজু ভাস্কর্যের সামনে চলে আসে।
এদিকে নির্বাচনের ফল বাতিল করে পুনঃতফসিলের দাবিতে অনশনরত শিক্ষার্থীদের একজন অসুস্থ হয়ে পড়ার পর তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। অনশনরত দর্শন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের অনিন্দ্য মণ্ডলকে গতকাল দুপুরের পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অনিন্দ্য মণ্ডল হল জগন্নাথ হলের শিক্ষার্থী। তিনি হল সংসদে বাম জোটের প্যানেলে সদস্য প্রার্থী ছিলেন।

x