২০১৮ সাল সবার জন্য মঙ্গলময় হোক

সোমবার , ১ জানুয়ারি, ২০১৮ at ১২:১৭ অপরাহ্ণ
190

দেখতে দেখতে আরো একটা বছর বিদায় নিলো আমাদের ক্যালেন্ডার থেকে। কালের গর্ভে হারিয়ে গেল সেই বছরটি। শুরু হল নতুন বছর, ২০১৮ খ্রিস্টাব্দ। অনেক প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির সমীকরণকে পিছনে ফেলে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি এক নতুন প্রত্যাশার আলোকবর্তিকাকে সামনে নিয়ে। বিগত বছরের হতাশা, ব্যর্থতার গ্লানিকে পায়ে ঠেলে নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর মাধ্যমে আমরা পৌঁছে গেলাম নতুন স্বপ্নযজ্ঞে। ‘অফিসআদালতে নতুন ক্যালেন্ডার, নতুন ডায়েরি, নতুন কর্মপরিকল্পনা। দোকানিরা নতুন হিসাবের খাতা, নতুন রেজিস্ট্রার, নতুন গ্রাহক টার্গেট ইত্যাদি শুরু করেন। নতুন স্কুলকলেজে নতুন ক্লাসে ভর্তি, নতুন বই, নতুন খাতা, নতুন বন্ধুবান্ধব, নতুন পরিবেশ, নতুন ক্যাম্পাস, নতুন জামাকাপড়, চারিদিকে এ এক নতুনের কেতন। নতুন বছরে নতুন বই হাতে পেয়ে শিক্ষার্থীরা হয় আনন্দে আত্মহারা।’

২০১৭ সালে অনেক ব্যর্থতা যেমন আছে, তেমনি আছে সাফল্য। পুরাতন বছরের ব্যর্থতাকে আমরা গুরুত্ব দিয়ে গড়তে চাইবো সফলতার রেকর্ড। কবি গুরুর সেই অমোঘ বাণীটি আমরা স্মরণে রাখার চেষ্টা করবো : ‘যাক পুরাতন স্মৃতি, যাক ভুলে যাওয়া গীতি’। এই বাণীকে ধারণ করতে পারলে জীবনের গতিধারা বুঝতে সহজ হবে। তাহলে ব্যর্থতাকে শিক্ষা গ্রহণের উপকরণ হিসেবে মেনে নিয়ে নতুনভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা অব্যাহত রাখা যাবে। দুর্বল দিকগুলো চিহ্নিত করে সেগুলো পরিহার করার মানসিকতা থাকতে হবে। যেসব সফলতা আছে সেইগুলোকে আরো সফলতার সাথে ব্যবহার করে জনগণের কল্যাণে কাজে লাগাতে হবে। আইনশৃঙ্খলা, অপরাধ দমন, নারী ও শিশু নির্যাতন, গুমহত্যা, চুরিছিনতাই, সাইবার ক্রাইম, পারিবারিক অপরাধ’সহ যাবতীয় অপরাধ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা অত্যন্ত জরুরি। লেখক অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল তাঁর এক লেখায় বলেছেন, ‘এই বছর যখন বিষয়টি চিন্তা করছি তখন সবার আগে মনে পড়ল ওই বছর ক্লাস ওয়ানের পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে। অন্যরা বিষয়টিকে কিভাবে নিয়েছে আমি জানি না; কিন্তু আমার মনে হয় বাকি জীবনে এটি ভুলতে পারব না যে ২০১৭ সালে বাংলাদেশে ক্লাস ওয়ানের প্রশ্ন ফাঁস হয়েছিল। এ দেশে এখন যে শিক্ষানীতিটি রয়েছে আমি তার প্রণয়ন কমিটির একজন সদস্য ছিলাম, আমার যত দূর মনে পড়ে সেখানে আমরা বলেছিলাম, স্কুলের বাচ্চাদের প্রথম তিন বছর কোনো পরীক্ষাই থাকবে না। কিন্তু আমরা বেশ অবাক হয়ে আবিষ্কার করেছি শুধু ক্লাস ওয়ান নয়, প্রিস্কুলে পর্যন্ত বাচ্চাদের পরীক্ষা নেওয়া হয় এবং সেই পরীক্ষা নিয়ে মাবাবাদের ঘুম নষ্ট হয়ে যায়। ক্লাস ওয়ানের পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস হওয়ার অর্থ এই পুরো প্রক্রিয়ার সঙ্গে যাঁরা জড়িত তাঁদের ধারঋণ হয়েছে, ক্লাস ওয়ানের বাচ্চাদেরও পরীক্ষায় ভালো নম্বর পেতে হবে এবং সেটি করার জন্য প্রশ্নটি ফাঁস করিয়ে বাচ্চাদের সেই ফাঁস করা প্রশ্ন মুখস্থ করিয়ে পরীক্ষার হলে পাঠাতে হবে। আমি যখন খবরটি দেখছি তখন আমি কি হাসব, না কাঁদব, নাকি দেয়ালে মাথা কটুতে থাকবকিছুই বুঝতে পারিনি’। প্রশ্ন ফাঁসে শিক্ষা ব্যবস্থা যেন ফেঁসে যাচ্ছে। তাই নতুন বছরে প্রশ্নপত্র ফাঁস’সহ যাবতীয় অপরাধকে শূণ্যের কোঠায় আনতে হবে। আমাদের অর্থনীতিবিদদের মতে, মূল্যস্ফীতির সাথে সাথে আরেকটি বোঝা পড়েছে দেশের অর্থনীতির ওপর। এটি নিতান্তই অযাচিত বোঝা। হঠাৎ করে প্রতিবেশী মিয়ানমার তার নিজের নাগরিক রোহিঙ্গাদের ঠেলে দেয় বাংলাদেশে। বাংলাদেশ এখন বহন করছে প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গা শরঋণর্থীর বোঝা। এতে রাজস্ব বাজেটে চাপ পড়েছে ২০১৭ সালে। বনজসম্পদ নষ্ট হচ্ছে। প্রাকৃতিক সম্পদ নষ্ট হচ্ছে। এই বোঝা কতদিন বাংলাদেশকে বহন করতে হবে কেউ জানে না।

সামাজিক ও অর্থনৈতিক নানা সূচকে বাংলাদেশ এগিয়ে গেলেও রাজনৈতিক অনৈক্য, সংঘাত ও সহিংসতাঅন্যতম প্রধান সমস্যা হিসেবেই এখানে বিদ্যমান। এখনো পর্যন্ত দেশের স্বার্থে আমরা এক হতে পারি না। তবু আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। নানা কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে একটি আদর্শিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আমাদের পৌঁছাতেই হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক অর্থনীতিবিদ ড. আরএম দেবনাথ নতুন বছরে কিছু বিষয় নিয়ে সতর্ক থাকতে প্রস্তাবনা দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘নতুন বছরে মূল্যস্ফীতির ওপর নজর রাখতে হবে। আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্যবৃদ্ধি, ডলারের মূল্যবৃদ্ধি, রোহিঙ্গা চাপ ইত্যাদি ২০১৮ সালকে অস্থিতিশীল করে তুলতে পারে’। আশা করি সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ এই বিষয়গুলো মাথায় রাখবে। ২০১৮ সাল সবার জন্য মঙ্গলময় হোকণ্ডসেটাই আমাদের প্রত্যাশা।

x