হযরত শাহছু্‌ফী মঈনুদ্দীন শাহ্‌ (রহঃ) মাজার

লিটন কুমার চৌধুরী : সীতাকুণ্ড

সোমবার , ২২ জুলাই, ২০১৯ at ১০:৫০ পূর্বাহ্ণ
185

আনোয়ারার বড় উঠান এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী দৌলত খাঁয়ের কোন সন্তান হচ্ছিল না। এতে তিনি দারুণ হতাশায় ভুগতে থাকেন। এক পর্যায়ে সীতাকুণ্ড সংসদীয় আসনের কাট্টলীতে অবস্থিত হযরত শাহ্‌ছুফী মঈনুদ্দীন শাহ (রহঃ) এর মাজারে গিয়ে সন্তান পাবার জন্য আর্জি জানান। এর অল্প সময়েই তার স্ত্রী সন্তানসম্ভবা হন এবং পরবর্তী তারা সন্তান লাভ করেন। এটি প্রায় ২৫ বছর আগের ঘটনা। এরপর থেকে এই মাজারে নিয়মিত আসেন দৌলত খাঁ। ওরশসহ বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে করেন সার্বিক সহযোগিতাও।
এ মাজারে হযরত শাহছুফী মঈনুদ্দীন শাহ (রহঃ) এর অলৌকিক কুদরতী থাকায় অগণিত ভক্তের মনের বাসনা, চাওয়া-পাওয়া পূরণ হয় বলে জানালেন দৌলত খাঁ। তিনি বলেন, একসময় আমার দাদা এ মাজারের ভক্ত ছিলেন। তার পরে আমার বাবা জাফর খানও সেখানে যেতেন। কিন্তু যখন নিজের সন্তান না হওয়ায় সন্তানের জন্য আর্জি জানিয়ে সন্তান পেলাম তখন থেকে আমিও ভক্ত হয়ে গেছি। এখন নিয়মিত আমি এই মাজারে যাতায়াত করি। দৌলত খাঁনের মতই এ মাজারে এসে অসংখ্য মানুষ তাদের স্বপ্ন পূরণ করেছেন বলে জানা যায়।
যারাই এখানে এসে মন থেকে কিছু চান তিনি বিফল হননি বলে নিজেরাই জানিয়েছেন। এজন্য সারাবছর এখানে ভক্তের ঢল লেগে থাকে।
তিনি বলেন, আনুমানিক ৫’শ বছর আগে ঘন বন-জঙ্গলের মধ্যে মঈনুদ্দীন শাহ (রহঃ) এর মাজারটি প্রতিষ্ঠা হয়। মঈনুদ্দীন শাহ ছিলেন পীরানে পীর দস্তগীর মাহবুব সোবাহানী কুতুবে রাব্বানী হযরত আবদুল কাদের জিলানীর বংশধর। তিনি নিজে এখানে অবস্থান করায় মাজারটি গড়ে উঠে। এখানে এসে তার কাছে কিছু চাইলেই ভক্তের মনের বাসনা পূরণ হয়। এভাবে প্রচুর ভক্তের সহযোগিতায় বর্তমানে এই মাজারের সাথে মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানা যুক্ত হয়ে মাজার কমপ্লেক্স হয়েছে। এটি পরিচালনার জন্য কমিটিও গঠন হয়েছে।
কমপ্লেক্স পরিচালনা কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব এস.এ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক হলেন আলহাজ্ব মঞ্জুরুল আলম। তারা দক্ষতার সাথে এর কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি আরো বলেন, এই মাজারে প্রতিবছর জ্বিলক্বদ মাসের দ্বিতীয় জুম্মায় এখানে ওরশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে অগণিত ভক্তের সমাগম হয়। চলতি মাসের ১২ জুলাই বার্ষিক ওরশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
এ মাজারটি সম্পর্কে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম-৪ সীতাকুণ্ড সংসদীয় আসনের এমপি আলহাজ্ব দিদারুল আলম বলেন হযরত শাহছুফী মঈনুদ্দীন শাহ (রহঃ) মাজারটি আমার বাড়ির কাছেই অবস্থিত। এটি বহু পুরোনো মাজার। বর্তমানে এটি মাজার কমপ্লেক্স। এখানে এসে কোন আর্জি করলে মনের আশা পূরণ হয় এমন বিশ্বাসে অগণিত মানুষ আসেন প্রতিনিয়ত। বিশেষত ওরশের দিনে ভক্তদের উপচে পড়া ভিড় দেখা যায়। তিনি নিজেও বিভিন্ন সময়ে এই মাজারে গিয়েছেন বলে জানান।

x