হতে পারে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষার অনুষ্ঠান প্রামাণ্য অনুষ্ঠান হতে হবে তথ্যনির্ভর

আয়শা আদৃতা

বৃহস্পতিবার , ৩ জানুয়ারি, ২০১৯ at ৪:৪২ পূর্বাহ্ণ
33

নির্বাচনের কারণে দুদিন প্রচার বন্ধ থাকার পর মঙ্গলবার থেকে আবারো অনুষ্ঠান প্রচার শুরু করেছে বিটিভি চট্টগ্রাম। এই দুদিন বিটিভি ওয়ার্ল্ড-এর অনুষ্ঠান প্রচারিত হয়। নতুন বছরের প্রথম দিন ইংরেজি নববর্ষ নিয়ে বিশেষ কোনো অনুষ্ঠান প্রচার হতে দেখা যায়নি। পুরোনো অনুষ্ঠানমালায় যেভাবে বছর শেষ হয়েছিল সেভাবেই ধারাবাহিক অনুষ্ঠান দিয়েই শুরু হয়েছে নতুন বছরের কার্যক্রম। আগামী দিনগুলো কেমন যায় সেটিই এখন দেখার বিষয়। পুরোনো বিষয়ে আলোচনা বাদ দিয়ে প্রথম দিনের দুটি অনুষ্ঠান নিয়ে একটু কথা বলা যাক।
যার একটি চট্টগ্রামের ইতিহাস-ঐতিহ্যভিত্তিক অনুষ্ঠান আমার চট্টলা। চট্টগ্রামের বিভিন্ন দর্শনীয় ও পর্যটন স্পটের নানা তথ্য উপাত্ত দিয়ে সাজানো হয় এ অনুষ্ঠানটি। এবারের পর্বে দেখানো হয়েছে সীতাকুণ্ডের গুপ্তছড়া ঘাটের উপর প্রতিবেদন। চট্টগ্রামে যেসব পর্যটন স্পট রয়েছে তার মধ্যে এটি খুব একটা পরিচিত নয়। তাই অনুষ্ঠান শুরুর সময় এ বিষয়ে জানতে আগ্রহী হই। কিন্তু খুব বেশি কিংবা পর্যাপ্ত তথ্য উপাত্ত পাওয়া যায়নি অনুষ্ঠানটিতে। হাতে গোনা কিছু পর্যটকের উপস্থিতি কিংবা তাদের কাছ থেকে জানতে চাওয়া গঁৎবাধা প্রশ্নের মধ্য থেকে জানার খোরাক খুব একটা মেটেনি। সংবাদ প্রতিবেদন উপস্থাপনার স্টাইলে সাধারণ কিছু তথ্য উপস্থাপন করে গেছেন উপস্থাপক হিমাদ্রি রাহা। সংবাদ আর প্রামাণ্য অনুষ্ঠান দুটো ভিন্ন জিনিস সেটিও মনে রাখা খুব প্রয়োজন। এ অনুষ্ঠানটিতে, বিশেষ করে কোনো পর্যটন স্পটের ওপর যখন নির্মিত হয়, তখন সেখানে যাওয়ার পথ-পদ্ধতি, অর্থাৎ চট্টগ্রাম শহর থেকে কিভাবে যাওয়া যায়, খাবার হোটেল-রেস্টুরেন্টের কি কি সুবিধা আছে, দেখার মতো কি রয়েছে, থাকার মতো ব্যবস্থা আছে কি-না, পরিবার কিংবা পিকনিকে যাওয়ার মতো অবস্থা আছে কি-না, নিরাপত্তার কি ব্যবস্থা আছে, প্রশাসনের কি উদ্যোগ এসব তথ্য সন্নিবেশিত হওয়া প্রয়োজন। যাই হোক, আরো কিছু তথ্য-উপাত্ত দিতে পারলে, একই দৃশ্যের বারবার অবতারণা না করলে এ অনুষ্ঠানটি বিটিভি চট্টগ্রামের দর্শকপ্রিয় একটি অনুষ্ঠানে পরিণত হতে পারে।
একইদিন প্রচারিত হয় রান্না বিষয়ক অনুষ্ঠান ঘরোয়া। রোকেয়া হকের উপস্থাপনায় এবারের পর্বে শীতের পিঠা তৈরি করে দেখানো হয়। অতিথি ছিলেন পেশাদার পিঠা বিক্রেতা ফোরকান। তিনি বিনি চালের একটা পিঠা তৈরি করে দেখান, উপস্থাপক যেটিকে বললেন, গইজ্জা পিঠা। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক এ শব্দটা বলতে গিয়ে অতিথিও যে আঞ্চলিক ভাষা ব্যবহারে অভ্যস্ত সেটা দর্শকদের মনে করিয়ে দিলেন। এক পর্যায়ে তিনি চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় কথোপকথন করলেন।
এ অনুষ্ঠানটি চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় নির্মিত হলে খুব একটা খারাপ হবে না। একেতো উপস্থাপকের কথায় চট্টগ্রামের আঞ্চলিকতার টান প্রকট, তার ওপর বিটিভি চট্টগ্রামে আঞ্চলিক ভাষায় কোনো অনুষ্ঠান নেই। আঁরার চাটগাঁ নামে একটি ম্যাগজিন অনুষ্ঠান প্রচার হতো, সেটিও নিয়মিত হতে দেখা যাচ্ছে না। অথচ, চট্টগ্রামের নিজস্ব চ্যানেল হিসেবে অন্তত দুয়েকটি অনুষ্ঠান চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় নির্মিত হতে পারে। এতে করে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষা সংরক্ষণেও একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারবে কেন্দ্রটি, সাথে সাথে স্থানীয় দর্শকদের কাছেও অনুষ্ঠানটি আলাদা মাত্রা পাবে।

x