স্পৃহার শ্রাবণ গগন ঘিরে, ঘন মেঘ ঘুরে ফিরে

আনন্দন প্রতিবেদক

বৃহস্পতিবার , ২৯ আগস্ট, ২০১৯ at ১০:৩১ পূর্বাহ্ণ
11

গত ৩০শে জুলাই, মঙ্গলবার, সন্ধ্যা সাতটায়, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর আর্ট গ্যালারীতে ‘স্পৃহা আবৃত্তি নীড়’ এর বর্ষার অনুষ্ঠান ‘শ্রাবণ গনন ঘিরে, ঘন মেঘ ঘুরে ফিরে’ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিশু সাহিত্যিক ও সাংবাদিক রাশেদ রউফ। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন অধ্যাপক রোটারিয়ান প্রদীপ দত্ত এবং এ.এস.এম আজিম উদ্দিন। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন প্রাবন্ধিক আমিনুর রশিদ কাদেরী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্পৃহার সভাপতি কবি ও আবৃত্তি শিল্পী অধ্যাপক নিশাত হাসিনা শিরিন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন আবৃত্তি শিল্পী শেখ ফাইরুজ নাওয়াল চৌধুরী দূর্দানা। অনুষ্ঠানের শুরুতেই নাট্যকার ও সুরকার প্রয়াত শান্তনু বিশ্বাসের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথিরা বর্ষার প্রভাব এবং বর্ষায় প্রকৃতির রূপ মানুষকে কতটা আকুল করে তোলে তা বর্ণনা করেন। প্রধান অতিথি কবিতা পাঠের মাধ্যমে বর্ষার বিভিন্ন রূপ তুলে ধরেন এবং স্পৃহার সাথে তার আন্তরিক সর্ম্পকের কথা উল্লেখ করেন। অতিথিরা স্পৃহার সুন্দর ও গোছানো অনুষ্ঠানের প্রশংসা করেন এবং স্পৃহার চলার পথে সাথি হয়ে পাশে থাকার আশ্বাস দেন। অনুষ্ঠানে ২য় পর্বে ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান দলীয় সংগীত “পাগলা হাওয়ার বাদল দিনে” দলীয় সংগীত পরিবেশনায় ছিলেন প্রজ্ঞা, সৈকত, হৃদিকা, শ্রাবন্তী, চৈতী, নাসরিন, ফেরদৌস, অমিশা, পায়েল, আইভি, শর্মি ও প্রিয়ন্তী।
তবলায় ছিলেন অনিক দাশ। একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন আবৃত্তি শিল্পী মোঃ তাওসিফুল হক চৌধুরী দীপ, শেখ ফাইরুজ নাওয়াল দূর্দানা, তামান্না, সামিয়া, আইভি, অমিশা ও অনিক। এরপর একক গান নিয়ে মঞ্চে আসেন – পায়েল নাথ, শুভ্রা দাশ, প্রজ্ঞাদ্যূাতি ধর, অমিশা দত্ত। প্রত্যেকে তাদের সুন্দর পরিবেশনা দিয়ে হল ভর্তি দর্শকদের শেষ পর্যন্ত ধরে রাখতে সক্ষম হয়। গান ও আবৃত্তির সাথে কী-বোর্ডে সুন্দর সুর তুলে অনুষ্ঠানকে আরো মনমুগ্ধকর করে তোলে স্পৃহার সদস্য সাগ্নীক দাশ রূপ।
স্পৃহার এই আয়োজনকে শৈল্পিক ও নান্দদিকতায় ভরে তুলতে যুক্ত হয়েছিল আমন্ত্রিত আবৃত্তি শিল্পী, সংগঠন ও গুণীজনেরা।
অনুষ্ঠানের আরো একটি বিশেষ আর্কষণ ছিল স্পৃহার সদস্য আফতাব, মুবিন, প্রিজন, আকিব, মুয়িব, অপূর্ব, নোবেল ও আইমান এর একসাথে গিটার বাজিয়ে বৃষ্টির গান- “এই বৃষ্টি ভেজা রাতে তুমি নেই বলে” পরিবেশনা। শেষ পরিবেশনা ছিল দলীয় সংগীত- “মনমোর মেঘের সঙ্গী, উড়ে চলে দিক দিগন্ত”।

x