সৈয়দ ইবরাহীমের আয়ের প্রধান উৎস মাছ ব্যবসা

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৫:১৮ পূর্বাহ্ণ
135

চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে ২০ দলীয় জোট মনোনীত প্রার্থী কল্যাণ পার্টির সভাপতি মেজর জেনারেল (অব:) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহীম হলফনামায় আয়ের প্রধান উৎস দেখিয়েছেন মাছ ব্যবসা। পৈতৃক জলাশয় থেকে মাছ বিক্রি করে তিনি বার্ষিক ১২ লাখ টাকা আয় করেন। এছাড়া বিভিন্ন সম্মানি ভাতা ও পেনশনসহ তার মোট বার্ষিক আয় ১৮ লাখ ৮৮ হাজার ৬১৬ টাকা। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে গত ২৮ নভেম্বর নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা হলফনামায় ব্যবসার পাশাপাশি পেশা হিসেবে গবেষণা ও রাজনীতিও দেখিয়েছেন তিনি।
হলফনামায় তিনি উল্লেখ করেন, বর্তমানে তাঁর উপর কেউ নির্ভরশীল নন। কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেন, তাঁর একমাত্র পুত্র, কন্যা ও স্ত্রী প্রত্যেকের স্বতন্ত্র আয় রয়েছে এবং তারা নিয়মিত কর প্রদান করেন।
হলফনামার তথ্য মতে, সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহীমের নিজের নামে ৭৮ লাখ ২৬ হাজার ৯৫৫ টাকা এবং স্ত্রীর নামে ৭৫ লাখ ৭৬ হাজার টাকার স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ রয়েছে। অস্থাবর সম্পদের মধ্যে নিজের কাছে নগদ টাকা আছে ৪৮ লাখ ২৫ হাজার ৬০৩ টাকা এবং স্ত্রীর কাছে আছে ৬৫ হাজার টাকা। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে তাঁর নামে জমা রয়েছে ১০ হাজার ৮৫২ টাকা এবং স্ত্রীর নামে আছে ৭ লাখ ২১০ টাকা। বন্ড, ঋণপত্র, স্টক এঙচেঞ্জের তালিকাভুক্ত এবং তালিকাভুক্ত নয় এমন কোম্পানির নিজের নামে (অর্জনকালীন) ১৫ লাখ ৪৬ হাজার ৫০০ টাকার এবং স্ত্রীর নামে ৩৮ হাজার ৬০০ টাকার শেয়ার রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। এছাড়া নিজের নামে থাকা বাস, ট্রাক, মটরগাড়ি ও মটরসাইকেলের মূল্য দেখিয়েছেন ৩ লাখ টাকা। অন্যদিকে তাঁর নামে ২০ হাজার টাকার এবং স্ত্রীর নামে মাত্র ৬ হাজার টাকার স্বর্ণ ও মূল্যবান ধাতু রয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। তাছাড়া স্ত্রীর নামে ১ লাখ ১ হাজার টাকার ও নিজের নামে ৮৫ হাজার টাকার ইলেকট্রনিক সামগ্রী এবং নিজের নামে ১ লাখ ৬০ টাকার ও স্ত্রীর নামে ৫ হাজার টাকার আসবাবপত্র রয়েছে বলে তিনি হলফনামায় উল্লেখ করেন।
এদিকে স্থাবর সম্পদের মধ্যে সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহীমের নামে ৮ লাখ ৭৯ হাজার টাকার ও স্ত্রীর নামে ১০ লাখ ১১ হাজার টাকার অকৃষি জমি রয়েছে। নিজের নামে পৈত্রিক সূত্রে যৌথ মালিকানার অংশ থেকে ৮ দশমিক ৬৬২ শতক কৃষি জমি রয়েছে ইবরাহীমের। এছাড়া স্ত্রীর নামে ৫৬ লাখ ৫০ হাজার টাকার আবাসিক ও বাণিজ্যিক দালান রয়েছে বলে হলফনামায় উল্লেখ করেন তিনি।।
সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহীম আয়ের প্রধান উৎস দেখিয়েছেন পৈত্রিক জলাশয় থেকে মাছ বিক্রি। এ খাত থেকে তিনি বাৎসরিক ১২ লাখ ৭ হাজার টাকা আয় করেন বলে হলফনামায় তথ্য দেন। এছাড়া টক-শো সম্মানি, পত্রিকায় কলাম লেখার সম্মানি, সভা সেমিনারের বক্তৃতা সম্মানি, মুক্তিযোদ্ধা সম্মানি, বীর প্রতীক সম্মানি এবং সেনাবাহিনীর পেনশন থেকে বাৎসরিক ৬ লাখ ৮০ হাজার ৯৭৪ টাকা আয় করেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।
উল্লেখ্য, আদালতে দণ্ডপ্রাপ্ত হওয়ায় একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে ইতোমধ্যে প্রাথমিক ভাবে মনোনয়ন বাতিল হয়েছে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সাবেক সিটি মেয়র ও প্রতিমন্ত্রী মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন এবং তার পুত্র মীর মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিনের। তবে এ বিষয়ে তারা ইসিতে আপিল করায় বিষয়টি এখন চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে অপেক্ষায় রয়েছে। অন্যদিকে এ আসনে মনোনয়ন বৈধ হওয়ায় ভোট যুদ্ধে টিকে আছেন সাবেক হুইপ প্রয়াত ওয়াদিুল আলমের মেয়ে ব্যারিস্টার সাকিলা ফারজানা। কিন্তু ২০ দলীয় জোটের সমীকরণে এ আসনে এবার কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর (অবসরপ্রাপ্ত) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহীম ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করতে পারেন বলে রাজনৈতিক মহলে জোরগুঞ্জন রয়েছে। ইতোমধ্যে তাঁর মনোনয়নপত্রও বৈধতা পেয়েছে। তাই ধারণা করা হচ্ছে, তিনিই হতে পারেন ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী। এর আগে কখনো সংসদ নির্বাচনে করেননি সাবেক এই সেনা কর্মকর্তা। অন্যদিকে টানা তৃতীয়বারের মতো হাটহাজারী থেকে এবারও মহাজোট প্রার্থী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

x