সুন্দর ভবিষ্যৎ নিশ্চিতে পরিকল্পিত সবুজ তৈরি বেশি প্রয়োজন

দেবপাহাড়ে সিপিডিএল ‘সুলতানা গার্ডেনিয়া’ উদ্বোধনে মেয়র

আজাদী প্রতিবেদন

রবিবার , ২১ এপ্রিল, ২০১৯ at ৭:৪৭ পূর্বাহ্ণ
170

সুন্দর ভবিষ্যৎ নিশ্চিতে সবুজের খুব বেশি প্রয়োজন উল্লেখ করে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন নগরবাসীর প্রতি পরিকল্পিতভাবে সবুজ তৈরির ব্যাপারে তাগিদ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, অনেকে বুঝে, আবার অনেকে না বুঝেই, কারণে-অকারণে নির্বিচারে পরিবেশের ক্ষতি করে যাচ্ছি। এর মাধ্যমে কিন্তু আমাদের নিজেদেরই ক্ষতি হচ্ছে। আমরা ভবিষ্যতে আমাদের সন্তানদের অনিরাপদের মধ্যে ফেলে রেখে যাচ্ছি। গতকাল শনিবার সকালে নগরীর চকবাজার কলেজ রোড সংলগ্ন দেবপাহাড় এলাকায় সিপিডিএল’র গ্রিন আবাসিক প্রকল্প ‘সুলতানা গার্ডেনিয়া’ নির্মাণ কাজের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র এসব কথা বলেন। মেয়র বলেন, যে যেভাবে পারেন পরিকল্পিতভাবে সবুজ তৈরি করুন। চট্টগ্রাম শহর একটি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা। আমরা ঝুঁকির মধ্যেই বসবাস করছি। এ কারণে সবুজ তৈরির ব্যাপারে সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে।
সবুজের সমারোহকে দৃষ্টিনন্দনভাবে উপস্থাপনের পাশাপাশি বিনোদনের সুবিধা নিয়ে গড়ে তোলা সিপিডিএল’র প্রকল্পটি প্রশংসনীয় ও যুগোপযোগী বলে মন্তব্য করেন তিনি। দেবপাহাড়ের হাতে নেওয়া আবাসন প্রকল্পটির প্রাথমিক কাজে মানুষ যেভাবে সন্তুষ্ট হয়েছেন সে সন্তুষ্টি যেন শেষ পর্যন্ত অব্যাহত থাকে সেই ব্যাপারে কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন মেয়র।
মেয়র বলেন, অনেক আবাসন কোম্পানি আছে যারা শুরুতে মুখরোচক ও নানা মিষ্টি কথা বলে থাকে। একটি পর্যায়ে নানা কারণে তাদের প্রতি ক্লায়েন্টরা আস্থা হারাচ্ছেন। এতে উভয়ের মধ্যে সম্পর্ক নষ্ট হচ্ছে। এক্ষেত্রে সিপিডিএল শুরু থেকেই কয়েকটি প্রকল্প সফলতার সাথে বাস্তবায়নের মাধ্যমে ক্লায়েন্টদের আস্থা অর্জন করতে পেরেছে বলে জানান তিনি। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রকল্পে ভূমি দাতা ব্যারিস্টার কামাল উদ্দিন, প্রকল্প বিস্তারিত তুলে ধরেন সিপিডিএল’র প্রকল্প পরিচালক আব্দুল করিম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চসিকের প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, ১৬ নম্বর চকবাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইয়েদ গোলাম হায়দার মিন্টু, জামালখান ওয়ার্ড কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, সিপিডিএল’র চেয়ারম্যান আবুল হোসেন চৌধুরী, ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী ইফতেখার হোসেন প্রমুখ। পরে প্রকল্পটির নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন মেয়রসহ অনুষ্ঠানে আসা অন্যান্য অতিথিরা।
জানা গেছে, প্রকল্পটিতে মূলত সবুজকে প্রধান্য দেওয়া হয়েছে। ৭২ কাঠা জায়গার ওপর এর ডিজাইন করা হয়েছে। প্রকল্পটি ৫০ শতাংশ জায়গা খালি থাকছে। বিভিন্ন অংশে দৃষ্টিনন্দিত গ্রিন স্পেস, শিশুসহ সব বয়সীদের খেলাধুলার বিভিন্ন জোন, ফিটনেস সেন্টার, ওয়াকওয়ে, ১৫৫টি পার্কিং স্পেসসহ একটি গণ্ডিতে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা সম্বলিত স্থাপনা প্রকল্পটির ডিজাইনে রাখা হয়েছে।

x