সুধীররঞ্জন খাস্তগীর: চিত্রশিল্পী ও ভাস্কর

সোমবার , ২৭ মে, ২০১৯ at ৪:১৪ পূর্বাহ্ণ
16

সুধীররঞ্জন খাস্তগীর – একাধারে ভাস্কর্য শিল্পী ও চিত্রকর। রং আর তুলির কোমল মাধুর্যে যেমন তাঁর শিল্প বিশিষ্টতা অর্জন করেছে, তেমনি ব্রোঞ্জ আর কংক্রিটের কাঠিন্যে তাঁর সৃষ্টি পেয়েছে আধুনিক শিল্পের বিস্ময়কর অভিব্যক্তি। আজ তাঁর ৪৫তম মৃত্যুবার্ষিকী।
শিল্পী সুধীররঞ্জন খাস্তগীরের জন্ম ১৯০৭ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামে। বাবার কর্মস্থল ভারতের গিরিডি থেকে মাধ্যমিক পাশ করে শান্তিনিকেতনে চলে যান তিনি। এই অনন্য বিদ্যাপীঠেই ছবি আঁকা ও ভাস্কর্যে তাঁর শিক্ষাগ্রহণ। কর্মজীবনে শিক্ষকতা করেছেন গোয়ালিয়রের সিন্ধিয়া স্কুলে, দেরাদুনের ডুন স্কুলে এবং সবশেষে লক্ষ্ণৌ-এর আর্ট কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে।
১৯৩৭ সালে লন্ডনের রয়্যাল সোসাইটি আর্টসের ফেলো নির্বাচিত হওয়া তাঁর জীবনের বিশেষ সম্মানজনক অর্জন। ১৯৫৮ সালে ‘পদ্মশ্রী’ উপাধিতে সম্মানিত করা হয় তাঁকে। ভাস্কর্য তৈরিতে শিল্পী সুধীররঞ্জন প্রধানত ব্রোঞ্জ, প্ল্যাস্টার ও কংক্রিট মাধ্যমে কাজ করেছেন।
কল্পিত কিছু সৃষ্টির পাশাপাশি তিনি দেশি-বিদেশি বহু বিশিষ্ট মানুষের মুখাবয়ব তৈরি করেছেন ভাস্কর্যে। চিত্রকলা ও ভাস্কর্য বিষয়ক তাঁর মৌলিক গ্রন্থ ‘ডান্সেস ইন লিনোকাট’, ‘পেন্টিংস’, ‘স্কালপ্‌চার্‌স’, ‘পেন্টিংস অ্যান্ড ড্রইংস’ প্রভৃতি গ্রন্থে তাঁর সৃজনশীল প্রতিভার মূর্ত প্রকাশ ঘটেছে।
‘তালপাতার সেপাই’ তাঁর শিশুতোষ রচনা। আত্মজীবনীমূলক গ্রন্থ ‘মাইসেলফ’, এবং ‘আমার এ পথ’-এ বিবৃত হয়েছে তাঁর ব্যক্তিজীবন ও শিল্পী জীবনের নানা কথা। ভারতের বেশ কয়েকটি মিউজিয়াম ও বিশ্ববিদ্যালয়ে শিল্পীর আঁকা ছবি এবং নির্মিত ভাস্কর্য সংগৃহীত আছে। ১৯৭৪ সালের ২৭ মে শিল্পী সুধীররঞ্জন খাস্তগীর প্রয়াত হন।

x