সিরিয়ায় ফের হামলা হলে বৈশ্বিক গোলযোগ: পুতিন

মঙ্গলবার , ১৭ এপ্রিল, ২০১৮ at ১১:২৯ পূর্বাহ্ণ
114

সিরিয়ায় ফের পশ্চিমারা হামলা চালালে বৈশ্বিক গোলযোগ তৈরি হবে বলে সতর্ক করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। বাশার আলআসাদ সরকারের বিরুদ্ধে নিজের নাগরিকদের ওপর রাসায়নিক হামলার অভিযোগ এনে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স সিরিয়ায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর পরদিন রোববার ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির সঙ্গে টেলিফোন আলাপে এই হুঁশিয়ারি দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট। খবর বিডিনিউজের।

ক্রেমলিনের এক বিবৃতিতে বলা হয়, পশ্চিমাদের এই হামলা সিরিয়ায় গত সাত বছর ধরে চলমান গৃহযুদ্ধের অবসানে রাজনৈতিক সমঝোতায় পৌঁছানোর সম্ভাবনাকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে বলে পুতিন ও রুহানি একমত হয়েছেন। ভ্লাদিমির পুতিন বিশেষভাবে জোর দিয়েছেন যে, জাতিসংঘ সনদের লংঘন করে এই ধরনের পদক্ষেপ যদি অব্যাহত থাকে তাহলে অবশ্যই তা আন্তর্জাতিক পরিসরে গোলযোগ তৈরি করবে।

ওয়াশিংটন বলছে, এক সপ্তাহ আগে দৌমায় রাসায়নিক হামলার জবাবে সিরিয়ার রাসায়নিক অস্ত্র কর্মসূচির প্রাণ কেন্দ্রে এই হামলা চালানো হয়েছে। হামলায় অংশ নেওয়া তিন দেশই দাবি করেছে, তাদের এই হামলার পেছনে প্রেসিডেন্ট বাশার আলআসাদকে উৎখাত বা দেশটির গৃহযুদ্ধে হস্তক্ষেপের অভিপ্রায় তাদের ছিল না। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষেপণাস্ত্র হামলা সফল হয়েছে বলে প্রশংসা করলেও আগ্রাসন আখ্যায়িত করে এর নিন্দা জানিয়েছে দামেস্ক ও তার মিত্ররা। রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সেরগেই লাভরভ এই হামলাকে বলেছেন ‘অগ্রহণযোগ্য ও বেআইনি’।

তবে রোববার পুতিনের এই সতর্ক বার্তা আসার কিছুক্ষণ আগেই রাশিয়ার উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী সেরগেই রিবাকোভ বলেছেন, পশ্চিমাদের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়ন সব প্রচেষ্টা নেবে মস্কো। পশ্চিমা দেশগুলো জাতিসংঘে যে প্রস্তাবে তুলছে তার সঙ্গে রাশিয়া কাজ করবে কি না সে প্রশ্নের জবাবে তিনি তাস বার্তা সংস্থাকে বলেন, “এখন রাজনৈতিক পরিস্থিতি খবুই উত্তেজনাপূর্ণ, পরিবেশ খুবই উত্তপ্ত। তাই আমি এ বিষয়ে কিছু বলব না। বর্তমানের অশান্ত পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে সব সুযোগ ব্যবহার করে আমরা শান্তভাবে ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে কাজ করব। এদিকে রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ভ্লাদিমির এরমাকোভ বলেছেন, ওই হামলার পর কৌশলগত স্থিতিশীলতা নিয়ে মস্কোর সঙ্গে আলোচনায় বসতে চেয়েছে ওয়াশিংটন। এদিকে দামেস্কে রাসায়নিক অস্ত্র নিরোধ আন্তর্জাতিক সংস্থাওপিসিডব্লিউর পরিদর্শকদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন সিরিয়ার উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফয়সাল মেকদাদ। রাশিয়া ও সিরিয়ার জ্যেষ্ঠ নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে তিন ঘণ্টার ওই বৈঠক হয়। আগামী ৭ এপ্রিল দৌমায় সন্দেহভাজন গ্যাস হামলাস্থল পরিদর্শন করার কথা ছিল ওপিসিডব্লিউর পরিদর্শকদের। সে পর্যন্ত অপেক্ষা না করে রাসায়নিক হামলার অভিযোগ তুলে সিরিয়ায় পশ্চিমাদের এই হামলার কঠোর সমালোচনা করছে মস্কো।

রাশিয়াবিরোধী প্রচার:

সিরিয়ার সরকারের বিরুদ্ধে দৌমায় রাসায়নিক হামলার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে মস্কো বলছে, রাশিয়াবিরোধী মনোভাব ছড়িয়ে দিতে এই নাটক সাজিয়েছে যুক্তরাজ্য। তবে পশ্চিমারা উত্তেজনা না বাড়িয়ে কমানোর পক্ষে বলে ইঙ্গিত এসেছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন উভয়ই বলেছে, শনিবারের তাদের এই সামরিক পদক্ষেপের লক্ষ্য বাশার আলআসাদ নয়, শুধু তার রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের ওপর।

ব্রিটেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন বিবিসিকে বলেছেন, পশ্চিমা শক্তিগুলোর আরও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর পরিকল্পনা নেই, তবে দামেস্ক ফের রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করলে করণীয় নিয়ে ভাববে তারা। এটা সরকারের পরিবর্তনের জন্য নয়, এটা সিরিয়ায় সংঘাতের ধারা পরিবর্তনের চেষ্টা নয়। সিরিয়ায় সংঘাত নিরসনে সমঝোতার জন্য আসাদকে চাপ প্রয়োগের ক্ষমতা একমাত্র রাশিয়ার আছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্ররাশিয়ার সম্পর্ক নিয়ে প্রশ্নের জবাবে জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত নিকি হেলি বলেন, সম্পর্ক ‘খুবই নাজুক’। তবে যুক্তরাষ্ট্র এখনও সম্পর্কোন্নয়নের আশা করছে। হেলি বলেন, লক্ষ্য অর্জন না হওয়া পর্যন্ত সিরিয়া থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করবে না যুক্তরাষ্ট্র। রোববার ফক্স নিউজকে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের তিনটি লক্ষ্য রয়েছেকোনোভাবে যেন রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার না হয়, যা যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থের প্রতি হুমকি সৃষ্টি করে; ইসলামিক স্টেটকে পরাজিত এবং ইরানের কর্মকাণ্ডের ওপর নজরদারি। জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে অভিযানে সহযোগিতার লক্ষ্যে সিরিয়ায় প্রায় দুই হাজার সৈন্য মোতায়েন করেছিল যুক্তরাষ্ট্র, যাদের প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছিলেন ট্রাম্প। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে গাঁটছাড়া বেঁধে সিরিয়ায় হামলা নিয়ে স্পষ্ট আপত্তি জানিয়েছেন যুক্তরাজ্যের বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা জেরমি করবিন। বিবিসিকে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “আমি পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে বলেছি, আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি, এই আইনি বৈধতা কোথায়?”

x