সিআইইউ’র স্থায়ী ক্যাম্পাস নিয়ে উচ্ছ্বাস শিক্ষার্থীদের

সোমবার , ৩ ডিসেম্বর, ২০১৮ at ৯:৫৪ অপরাহ্ণ
337

চিটাগং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি (সিআইইউ)-এর স্থায়ী ক্যাম্পাস নিয়ে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভেতর চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। কেমন হচ্ছে নতুন ক্যাম্পাস, সেখানে কেমন হবে তারুণ্যমুখর আড্ডা কিংবা কতোখানি এগিয়ে যাবে গবেষণা কার্যক্রম।
প্রস্তাবিত স্থায়ী ক্যাম্পাস নিয়ে এমন হাজারও প্রশ্নের জবাব খুঁজতে গত ২ ডিসেম্বর সিআইইউতে অনুষ্ঠিত হলো মতবিনিময় বৈঠক। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, শিক্ষকবৃন্দ ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহফুজুল হক চৌধুরী বলেন, ‘নতুন স্থায়ী ক্যাম্পাস শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এখানে গুণগত মানের পড়ালেখা নিশ্চিত করার পাশাপাশি ভালো গবেষক সৃষ্টির জন্যও উদ্যোগ নেয়া হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সময় এখন মানসম্মত, যুগোপযুগী, আধুনিক ও আন্তর্জাতিকমানের জ্ঞান অর্জন করার। সিআইইউ’র নতুন ক্যাম্পাসের পরিবেশ ছেলেমেয়েদের জ্ঞানের ভাণ্ডারের গভীর থেকে গভীরে নিয়ে যাবে।’

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে মতামত তুলে ধরেন প্রফেসর ড. মো. রেজাউল হক খান, প্রফেসর ড. নুরুল আবসার, এসোসিয়েট প্রফেসর ড. মোহাম্মদ নাঈম আবদুল্লাহ ও ড. ইঞ্জিনিয়ার রশীদ আহমেদ চৌধুরী।

উপস্থিত ছিলেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক সরকার কামরুল মামুন, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার আনজুমান বানু লিমা, ফিন্যান্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস শাখার ভারপ্রাপ্ত পরিচালক সালমা বেগম (এফসিএ), সিআইটিএস শাখার উপ-পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, অ্যাডমিন শাখার উপ-পরিচালক কুমার দোয়েল দে, লাইব্রেরিয়ান ড. মো. জিল্লুর রহমান প্রমুখ।

এদিকে নতুন ক্যাম্পাস নির্মাণের খবরে উচ্ছ্বাস ছড়িয়ে পড়েছে সিআইইউ’র শিক্ষার্থীদের ভেতর। তারা জানিয়েছেন, দৃষ্টিনন্দন স্থায়ী ক্যাম্পাস ছাত্র-ছাত্রীদের দীর্ঘক্ষণ পড়ালেখায় মনোনিবেশ করতে অনেক বেশি সহায়তা করবে।

ক্যাম্পাসের পরিচিত মুখ ও মেধাবী ছাত্রী সাদিকা ইসলাম সাকী বলেন, ‘খু-ব-ই ভালো লাগছে খবরটি শুনে। এখন সবাই অপেক্ষার প্রহর গুণছি। শুনেছি এম্ফিথিয়েটারটি নির্মাণ করা হবে খোলা আকাশের নিচে। একজন সংগঠক হিসেবে সেখানে অনুষ্ঠান আয়োজনের মাধ্যমে সহপাঠীদের উৎসাহ দিতে চাই।‘

সদা-হাসিখুশি ব্রেন্ট রিচার্ডসন বলেন, ‘আমরা উৎসব করার অপেক্ষায় আছি। উপাচার্য স্যারকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি সিআইইউ’র ট্রাস্টি বোর্ডের সব সদস্যদের কাছে। শিগগিরই ক্যাম্পাসটি নির্মাণ হলে তারুণ্যের মেলা বসবে সেখানে।’

সিআইইউ কর্তৃপক্ষ জানায়, নতুন স্থায়ী ক্যাম্পাসে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে সব ধরনের সুযোগসুবিধা নিশ্চিত করতে ইতোমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে। এখানে থাকছে শহীদ মিনার, অডিটোরিয়াম, প্রার্থনাগার, ক্লাসরুম, পরীক্ষার হল, ছেলেমেয়েদের কমন রুম, স্পোর্টসরুম, অত্যাধুনিক ল্যাব, মনোরুম লাইব্রেরি, গাড়ি পার্কিংসহ অনেক কিছু।

Advertisement