সাড়ে ৫ লাখ টাকা শুল্ক ফাঁকির চেষ্টা

মিথ্যা ঘোষণায় কেমিক্যাল আমদানি

আজাদী প্রতিবেদন

বুধবার , ১৫ মে, ২০১৯ at ৩:৪১ পূর্বাহ্ণ
176

চট্টগ্রাম বন্দরে ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টের জন্য বুল্যাব অর্গানিক ক্যামিক্যাল ঘোষণায় ৭ ড্রাম এন্টি স্কেলিং কম্পাউন্ড এবং বাইসাইডস কেমিক্যাল নিয়ে এসেছে ঢাকার একটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান। মিথ্যা ঘোষণায় আমদানিকৃত এসব পণ্যের শুল্ক আসে ১১ লাখ ৭৯ হাজার ১৭০ টাকা। অন্যদিকে ঘোষণা অনুযায়ী শুল্ক আসে ৬ লাখ ৩৫ হাজার ৮৯৩ টাকা। চালানটিতে ৫ লাখ ৪৩ হাজার ২৭৭ টাকা ফাঁকির চেষ্টা ছিল বলে জানায় কাস্টমস। কাস্টমস সূত্রে আরো জানা গেছে, ঢাকার মিরপুরের আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান বিডি ইন্টারন্যাশনাল ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিডেট এসব কেমিক্যাল আমদানি করেছে। চালানটি খালাসের দায়িত্বে রয়েছে প্রতিষ্ঠান আগ্রাবাদের ইন্টার ওয়েস ট্রেডিং এজেন্সি। বর্তমানে চালানটি চট্টগ্রাম বন্দরে রয়েছে। কাস্টমস কর্মকর্তারা জানান, ৭ ড্রামে ৭ হাজার ৭০০ কেজি চালানটির ঘোষিত মূল্য ছিল ১৯ লাখ ৪১ হাজার ৬৬০ টাকা। প্রকৃতপক্ষে ঘোষণা অনুযায়ী শুল্ক কর আসে ৩২ দশমিক ৭৫ শতাংশ। কিন্তু আমদানিকৃত পণ্যের শুল্ক কর আসে ৬০ দশমিক ৭৩ শতাংশ। আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান গত ১০ মার্চ ইসলামী ব্যাংক মিরপুর-১ শাখায় একটি এলসি (ঋণপত্র) খোলে। যার নম্বর ০৯০২১৯০১০০১৬। কান্ট্রি অব অরিজিন লেখা ছিল চীন এবং সিঙ্গাপুর। আমদানিকারক গত ২৩ এপ্রিল বিল অব এন্ট্রি দাখিল করে, যার নম্বর ‘সি-৬৭৭১২৭’।
এদিকে কাস্টমস ল্যাব পরীক্ষা দেখা গেছে, আমদানিকৃত ৭ ড্রাম কেমিক্যালের মধ্যে ৬টিতেই পাওয়া গেছে এন্টি স্কেলিং কম্পাউন্ড। তবে শুধুমাত্র ৪ নম্বর ড্রামে রক্ষিত ১ হাজার ৫০০ কেজি বাইসাইডস ক্যামিক্যাল পাওয়া গেছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কাস্টম হাউসের একজন কর্মকর্তা জানান, সম্প্রতি ল্যাব পরীক্ষায় মিথ্যা ঘোষণায় কেমিক্যাল আমদানির বিষয়টি ধরা পড়ে। প্রকৃত শুল্ককর এবং জরিমানার বিষয়টি কাস্টমস কর্মকর্তারা পরবর্তীতে বিবেচনা করবেন।

x