সার্বিয়ার সাথে অর্থনৈতিক সম্পর্কোন্নয়নের ওপর গুরুত্বারোপ

সার্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে ইতালিতে বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

আখি সীমা কাউসার, রোম (ইতালি) থেকে

শনিবার , ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ৫:৩৮ অপরাহ্ণ
40
ইতালির রোমে বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার সার্বিয়ার জ্যেষ্ঠ উপ-প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী আইভিকা ড্যাসিক-এর সাথে গত শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেছেন।
এসময় দু’দেশের মধ্যে ঐতিহাসিক বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক এবং বিদ্যমান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে কীভাবে আরো শক্তিশালী করা যায় সেই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।
সার্বিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক অনুভিাগের মহাপরিচালক এবং এশিয়া অনুবিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।
অপরদিকে, বাংলাদেশ রাষ্ট্রদূতের সাথে ছিলেন দূতাবাসের ইকনমিক কাউন্সেলর মানস মিত্র ও প্রথম সচিব (রাজনৈতিক) রাজীব ত্রিপুরা।
আলোচনায় সার্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী দু’দেশের সম্পর্কোন্নয়নে রাজনৈতিক সংলাপ এবং উভয় দেশের মধ্যে উচ্চ পর্যায়ের সফর বিনিময়ের গুরুত্ব তুলে ধরেন। পাশাপাশি দু’দেশের ঐতিহাসিক বন্ধুত্বের ওপর ভিত্তি করে সামগ্রিক দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও জোরদার করার বিষয়ে তার আগ্রহের কথা জানান।
রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার সার্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে একমত পোষণ করেন এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেষ মুজিবুর রহমানের সাথে সাবেক যুগোস্লাভিয়ার রাষ্ট্রপতি মার্শাল জোসেফ টিটোর ঐতিহাসিক বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা স্মরণ করেন।  রাষ্ট্রদূত জানান, দু’দেশের সম্পর্কোন্নয়নে বিশেষত অর্থনৈতিক সহযোগিতা আরও জোরদার করার ব্যাপারে তিনি আন্তরিকতার সাথে কাজ করছেন। এ প্রসঙ্গে তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাতের পরে সার্বিয়ার ব্যবসায়ীদের সাথে তার বাণ্যিজিক সেমিনারে অংশগ্রহণের প্রসঙ্গ উল্লেখ করেন।
তিনি বলেন, ‘সেমিনারে দু’দেশের অর্থনৈতিক বাণিজ্য বৃদ্ধির ব্যাপারে ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা করা হবে।’
তিঁনি দু’দেশের মধ্যে ‘প্রতিরক্ষা চুক্তি’ এবং ‘সরকারি ও কুটনৈতিক পাসপোর্টধারীদের ভিসা অব্যাহতি চুক্তি’ স্বাক্ষরের জন্য চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে মর্মে সার্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে অবহিত করেন।
রাষ্ট্রদূত উচ্চ পর্যায়ের সফরের মাধ্যমে এ চুক্তি স্বাক্ষর সম্পাদন করা যেতে পারে বলে মত ব্যক্ত করলে সার্বিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ বিষয়ে তার আগ্রহের কথা জানান।
উল্লেখ্য, রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার ইতালিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এবং সার্বিয়া ও আলবেনিয়ার অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত হিসেবে নিয়োজিত আছেন।
উক্ত সাক্ষাৎ শেষে রাষ্ট্রদূত বেলগ্রেডে বাংলাদেশ ও সার্বিয়ার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি বিষয়ক সেমিনারে যোগদান করেন।
রোমের বাংলাদেশ দূতাবাস এবং সার্বিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে গত ১৩ সেপ্টেম্বর চেম্বার ভবনে এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।
বাংলাদেশের উন্নয়ন চিত্র, বিদ্যমান বিনিয়োগ বান্ধব পরিবেশ, বিনিয়োগের সম্ভাব্য ক্ষেত্রসমুহ, বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা এবং বাংলাদেশ ও সার্বিয়ার মধ্যে বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রসমূহ নিয়ে সেমিনারে আলোচনা করা হয়।
এক্ষেত্রে ‍দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য চুক্তি, দ্বৈতকর অব্যাহতি চুক্তি এবং দু’দেশের বাণিজ্যিক সংগঠনগুলোর মধ্যে সমঝোতা স্মারক চুক্তি করা যায় মর্মে সেমিনারে মত প্রকাশ করা হয়।
রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উক্ত সেমিনারে সার্বিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এশিয়া অনুবিভাগের কর্মকর্তা এবং চেম্বার অভ কমার্স-এর নেতৃবৃন্দসহ প্রায় ৩০ জন সার্বিয়ান ব্যবসায়ী অংশগ্রহণ করেন।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন চেম্বার অভ কমার্স-এর আন্তর্জাতিক বিভাগের পরিচালক মিজ জেলেনা জোভানোভিস।
রাষ্ট্রদূত প্রথমেই বাংলাদেশকে উন্নত সমৃদ্ধ দেশে রূপান্তরিত করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন-২০২১ এবং ভিশন-২০৪১ সম্পর্কে এবং বিগত দশ বছরে বাংলাদেশের ধারাবাহিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের চিত্র ব্যবসায়ীদের কাছে তুলে ধরেন। তিঁনি বলেন, ‘দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক শক্তিশালীকরণে অর্থনৈতিক সহযোগিতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর এ সম্পর্ক উন্নয়নে সরকারের ভূমিকার পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের ভূমিকাও অনস্বীকার্য।’
সেমিনারে ইকনমিক কাউন্সেলর মানস মিত্র একটি পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করের।
প্রেজেন্টেশনের শুরুতে তিনি সংক্ষিপ্তভাবে বাংলাদেশের ইতিহাস এবং ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেন।
এরপর বাংলাদেশের বাণিজ্য এবং বিনিয়োগের বর্তমান  অবস্থান এবং সার্বিয়ার সাথে বিদ্যমান দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্কের বিষয়ে আলোকপাত করেন।
সবশেষে তিনি বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (BEZA), বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (BIDA) এবং হাই-টেক পার্ক-এ বিনিয়োগ করার সুযোগসহ বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশ সরকার প্রদত্ত বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা এবং বিনিয়োগের সম্ভাব্য ক্ষেত্র তুলে ধরেন।
বিনিয়োগের সম্ভাব্য ক্ষেত্র হিসেবে তিনি পোশাক শিল্প, কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য, ফার্মাসিউটিক্যাল, তথ্য প্রযুক্তি, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, সিরামিকস, নবায়নযোগ্য শক্তি, ব্লু-ইকোনমি এবং ট্যুরিজম বিষয়ে প্রেজেন্টেশনে বিস্তারিত তুলে ধরেন।
উপস্থাপনার পর দু’জন সার্বিয়ান ব্যবসায়ী বাংলাদেশে তাদের ব্যবসার অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন এবং উপস্থিত অন্যদেরকেও বাংলাদেশে বিনিয়োগ ও ব্যবসায় উৎসাহিত করেন।
এরপর প্রশ্ন-উত্তর ও মুক্ত আলোচনা পর্ব অনুষ্ঠিত হয়।
উপস্থিত ব্যবসায়ীরা বিপুল আগ্রহ নিয়ে স্বতস্ফূর্তভাবে এতে অংশগ্রহণ করেন।
ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশ সরকারের যুগোপযোগী ট্যাক্স, উদার বাণিজ্যনীতি ও বিনিয়োগ সংক্রান্ত বিভিন্ন দিক ও অগ্রগতির বিষয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন।
x