সঙ্গীতাঙ্গনের উজ্জ্বল নক্ষত্র তাসনিয়া নওশিন

আবছার অলি

বৃহস্পতিবার , ৮ নভেম্বর, ২০১৮ at ৮:১৭ পূর্বাহ্ণ
24

বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় এই শিল্পী এখন ব্যস্ততম সময় কাটাচ্ছেন। তাঁর মায়াবি কন্ঠ আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার। ইতিমধ্যে তাঁর সুমধুর কন্ঠ মুগ্ধ করেছে দেশ-বিদেশের দর্শক শ্রোতাদের। চ্যানেল আইয়ের সুবাদে তাঁর কন্ঠ এখন বিশ্বব্যাপী পরিচিত। যত কঠিন গানই হোক না কেন তা খুব সহজেই তাসনিয়া নওশিন তার শ্রোতাদের কাছে অত্যন্ত চমৎকার ভাবে উপস্থাপন করে চলেছেন। যা হয় তো সবার পক্ষে অনেক সময় সম্ভব হয়ে ওঠে না। এই জায়গা থেকে নওশিন একেবারে ব্যতিক্রম। সঙ্গীতের সবক্ষেত্রে তার সফলতা এখন আকাশ ছোঁয়া। মেধাবী ছাত্রী হিসেবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রয়েছে তার সুনাম-সুখ্যাতি। তাসনিয়া নওশিন ২০১১ সালে ৩য় মেরিডিয়ান চ্যানেল আই ক্ষুদে গানরাজ তারকা।
তাসনিয়া নওশিন বাংলাদেশের সঙ্গীতাঙ্গনে একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র। বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই শিল্পী এখন ব্যস্ততম সময় কাটাচ্ছেন। তার মায়াবি কন্ঠ আমাদের গর্ব, আমাদের অহংকার। ইতিমধ্যে তার সুমধুর কন্ঠ মুগ্ধ করেছে দেশ-বিদেশের দর্শক শ্রোতাদের। চ্যানেল আইয়ের সুবাদে তার কন্ঠ এখন বিশ্বব্যাপী পরিচিত। যত কঠিন গানই হোক না কেন তা খুব সহজেই তাসনিয়া নওশিন তার শ্রোতাদের কাছে অত্যন্ত চমৎকার ভাবে উপস্থাপন করে চলেছেন। যা হয় তো সবার পক্ষে অনেক সময় সম্ভব হয়ে ওঠে না। এই জায়গা থেকে নওশিন একেবারে ব্যতিক্রম। সঙ্গীতের সবক্ষেত্রে তার সফলতা এখন আকাশ ছোঁয়া। মেধাবী ছাত্রী হিসেবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রয়েছে তার সুনাম-সুখ্যাতি। তাসনিয়া নওশিন ২০১১ সালে ৩য় মেরিডিয়ান চ্যানেল আই ক্ষুদে গানরাজ তারকা। সঙ্গীতের শুরু হয় প্রায় ৪ বছর বয়স থেকেই। বাবা আলমগীর আলাউদ্দিন যখন সঙ্গীত চর্চা করতেন তখন তার পাশে বসে শুনতো আর দেখত বাবার সঙ্গীত চর্চা। শুরু হয় ভালোলাগা ও সঙ্গীতের প্রতি। এর পর ভালোলাগাটা থেকে রীতিমত বাবার হাতে সঙ্গীতের হাতেখড়ি। সঙ্গীতের তালিম ও চর্চা শুরু হয় বাবার কাছ থেকে। তাসনিয়া নওশিন চট্টগ্রাম বিভাগে প্রথম স্থান অধিকারী ও বাংলাদেশ বেতার চট্টগ্রাম কেন্দ্রের শিল্পী। জন্ম: ১৯৯৮, ২৮ নভেম্বর। জন্মস্থান: চট্টগ্রাম। পিতা বিশিষ্ট সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক (বিটিভি ও বেতার), কন্ঠশিল্পী (বিটিভি ও বেতার) আলমগীর আলাউদ্দিন। মাতা: জেবুন্নেসা পপি (কন্ঠশিল্পী, বাংলাদেশ টেলিভিশন, চট্টগ্রাম)। সঙ্গীতের প্রাথমিক হাতেখড়ি বাবা আলমগীর আলাউদ্দিন এর কাছে। উচ্চাঙ্গ ও নজরুল সঙ্গীতে তালিম: ফজলুল কবির চৌধুরী, আধুনিক গানে তালিম: বানী কুমার চৌধুরী, উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতে তালিম: মিহির নন্দী ও মিঠুন চক্রবর্তী। যে ধরণের গান পছন্দ: ক্লাসিক্যাল, সেমি ক্ল্যাসিকেল, আধুনিক, নজরুল সঙ্গীত। যে ধরণের গান করা: আধুনিক, ক্ল্যাসিকেল ও সেমিপ-ক্ল্যাসিকেল। পছন্দের শিল্পী (বাংলাদেশ): রুনা লায়লা, শাহ্‌নাজ রহমত উল্ল্লাহ, সৈয়দ আব্দুল হাদী, আব্দুল আলিম। পছন্দের শিল্পী (দেশের বাইরে): লতা মঙ্গেশকর, কিশোর কুমার, শ্রেয়া ঘোষাল, সনু নিগাম, আশা ভোষলে, চিত্রা সিং, নির্মলা মিশ্র, অরিজিৎ সিং। পারিবারিক সঙ্গীতে জগতে সদস্য: বড় জেঠা মরহুম মেজবাহ্‌ উদ্দিন আহমেদ বেতারের কন্ঠশিল্পী ও মুখ্য সঙ্গীত পরিচালক, সেজো জেঠা তাসলিম উদ্দিন আহমেদ, বিটিভি ও বেতারে বিশিষ্ট গীতিকার, এরপর রয়েছেন ৫ম জেঠা ড. ময়ূখ চৌধুরী কবি ও বিশিষ্ট গীতিকার, সবার সান্নিধ্যে পারিবারিক আবহে সঙ্গীতের সকল চর্চা সম্ভব হয়েছে। পরিবারের অন্যান্য চাচারা হলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক জি.এম জসিম উদ্দিন আহমেদ, পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রাক্তন পরিচালক প্রশাসন মহিউদ্দিন মাহমুদ ও মেঝ চাচা ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। নওশিনের মামাদের মধ্যে সরওয়ার ইমাম টুটুল, বিশিষ্ট সমাজসেবক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এর নাম বিশেষ ভাবে উল্লেখযোগ্য। প্রসঙ্গক্রমে আরো উল্ল্লেখযোগ্য এই যে তাসনিয়া নওশিনের দাদা ছিলেন চট্টগ্রাম সরকারী কলেজিয়েট স্কুলের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক মরহুম সাবের আহমেদ। তাসনিয়া নওশিন ১৯৯৮ সালের ২৮ নভেম্বর চট্টগ্রামের একটি সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করে।
বাবা আলমগীর আলাউদ্দিন বিশিষ্ট কন্ঠশিল্পী, সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক বেতার ও বিটিভি এবং মা জেবুন্নেসা পপি ও একজন বিশিষ্ট কন্ঠশিল্পী বাংলাদেশ টেলিভিশনের। সংগীত জীবনের পথ চলায় তাসনিয়া নওশিনের সাফল্য কামনা করছি। একই পরিবারের বাবা, মা, মেয়ে তিনজনেই শিল্পী। এমন পরিবার বাংলাদেশে আর একটিও নেই। সঙ্গীত পরিবার হিসেবে এটি হতে পারে আদর্শ। যাকে দেখে অন্যরাও অনুপ্রাণিত হবেন।

x