সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে বায়োমেট্রিক হাজিরা বয়কট বিএমএর

প্রজ্ঞাপন বাতিল না হলে আদালতে রিট করার ঘোষণা

আজাদী প্রতিবেদন

বৃহস্পতিবার , ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ at ৫:৩০ পূর্বাহ্ণ
113

পদোন্নতিতে শুধুমাত্র চিকিৎসকদের (বিসিএস স্বাস্থ্য ক্যাডারের) বায়োমেট্রিক হাজিরা চেয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত প্রজ্ঞাপন বাতিলের দাবিতে বায়োমেট্রিক হাজিরা বয়কট কর্মসূচি পালন করেছে বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ), চট্টগ্রাম শাখা। গতকাল বুধবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও চমেক হাসপাতালে একদিনের জন্য এই কর্মসূচি পালন করে চিকিৎসকদের এই সংগঠন। গত ৩ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত এক প্রজ্ঞাপনে পদোন্নতিতে চিকিৎসকদের জেষ্ঠ্যতার তালিকা প্রণয়নের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকদের অন্যান্য তথ্যাদির সাথে ৬ মাসের বায়োমেট্রিক হাজিরার তথ্য পাঠাতে বলা হয়। মন্ত্রণালয়ের এই আদেশের প্রতিবাদে একদিনের জন্য বায়োমেট্রিক হাজিরা বয়কটের কর্মসূচি ঘোষণা করে বিএমএ, চট্টগ্রাম। তবে কর্মসূচি সফল করতে একদিন আগেই (মঙ্গলবার) মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সবকয়টি বায়োমেট্রিক মেশিনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়ার তথ্য পাওয়া গেছে। সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার পাশাপাশি মেশিনের উপরিভাগে বিএমএ’র কর্মসূচির ব্যানার সাঁটিয়ে দিতে দেখা গেছে। তাছাড়া বায়োমেট্রিক হাজিরা বয়কটের আহ্বান জানিয়ে আগেই চিকিৎসকদের চিঠি দেওয়ার পাশাপাশি বুধবার সকালে চিকিৎসকদের হাজিরা প্রদানের সময় মেডিকেল কলেজে (যেখানে বায়োমেট্রিক মেশিন স্থাপন করা হয়েছে) অবস্থান নেন বিএমএ নেতৃবৃন্দ। যার কারণে চিকিৎসকরা বায়োমেট্রিক হাজিরা দেওয়ার সুযোগ পাননি। দুপুর ১২টার দিকে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মেডিকেল কলেজের একটি ব্যতীত বাকি সবকয়টি বায়োমেট্রিক মেশিন ব্যানারে ঢাকা। বিএমএ, চট্টগ্রামের এই ব্যানারে লেখা- ‘পদোন্নতিতে শুধুমাত্র স্বাস্থ্য ক্যাডারে বায়োমেট্রিক হাজিরা চেয়ে জারিকৃত প্রজ্ঞাপন বাতিলের দাবিতে যথাসময়ে কর্মস্থলে উপস্থিত থেকে দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় বায়োমেট্রিক হাজিরা বয়কট।’ তবে হাসপাতালের বায়োমেট্রিক মেশিনের উপর সাঁটানো ব্যানারগুলো একপাশে পড়ে থাকতে দেখা গেছে। দুপুর ১২টার আগে এই ব্যানার তুলে ফেলা হয় বলে সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা যায়। অবশ্য, আগের মতোই সকল শিক্ষক-চিকিৎসক হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে উপস্থিতি নিশ্চিত করেছেন বলে কলেজ ও হাসপাতাল প্রশাসন জানিয়েছে। যদিও চিকিৎসকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবেই বায়োমেট্রিক হাজিরা বয়কট করেছেন বলে দাবি করেছেন বিএমএ, চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক ডা. ফয়সল ইকবাল চৌধুরী। আর মেশিনের উপরিভাগে ব্যানার সাঁটানোর বিষয়টি স্বীকার করলেও মেশিনের সংযোগ বিচ্ছিন্নের সাথে বিএমএ কোন ভাবেই জড়িত নয় বলে দাবি করেন এই বিএমএ নেতা। তবে বিএমএ’র কর্মসূচি ঘিরে একদিন আগেই বায়োমেট্রিক মেশিনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার তথ্য নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আজাদীকে বলেন, যেহেতু বিএমএ ঘোষিত কর্মসূচির আগে বায়োমেট্রিক মেশিনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে, সেহেতু বিএমএ’র পক্ষ থেকেই এ কাজ করা হতে পারে। কলেজের পক্ষ থেকে বিষয়টি স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক ও চট্টগ্রামের মেয়রকে অবহিত করা হয়েছে জানিয়ে চমেক অধ্যক্ষ বলেন, কলেজের শিক্ষকদের প্রতিদিনকার বায়োমেট্রিক হাজিরার তথ্য ওয়েবসাইটে হালনাগাদের মাধ্যমে স্বাস্থ্য অধিদফতরে দিতে হয়। কিন্তু গতকাল বুধবার সেটি সম্ভব হয়নি। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছে বলেও জানান অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা. সেলিম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর।
এদিকে, একদিনের প্রতীকী কর্মসূচিতে চিকিৎসকরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে বায়োমেট্রিক হাজিরা বয়কট করেছেন দাবি করে বিএমএ চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক ডা. ফয়সল ইকবাল চৌধুরী বলেন, দেশে ২৬টি ক্যাডারের কর্মকর্তারা দায়িত্ব পালন করছেন। সকল ক্যাডারের জন্যই পদোন্নতির ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট বিধিমালা রয়েছে। কিন্তু শুধু চিকিৎসকদের পদোন্নতির ক্ষেত্রে ৬ মাসের বায়োমেট্রিক হাজিরার তথ্য চাওয়া কেবল বৈষম্যমূলকই নয়, অপমানজনকও। তাই আমরা মন্ত্রণালয়ের ওই প্রজ্ঞাপন বাতিলের দাবিতে এই কর্মসূচি পালন করেছি। সব ক্যাডারের জন্য একরকম নিয়ম কিন্তু স্বাস্থ্য ক্যাডারের জন্য আরেক নিয়ম, তা হয় না। মন্ত্রণালয়ের ওই প্রজ্ঞাপন বাতিল না হলে চট্টগ্রাম বিএমএ’র পক্ষ থেকে উচ্চ আদালতে রিট করা হবে বলেও ঘোষণা দেন ডা. ফয়সল ইকবাল চৌধুরী।

x